Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ইরফান খান বেঁচে থাকলে আজ বয়স হতো ৫৪ বছর

1 min read

।। বিনোদন ডেস্ক ।।

২০২০ সালের ২৮ এপ্রিল শক্তিশালী অভিনেতা ইরফান খানকে হারায় হিন্দি সিনেমা ইন্ডাস্ট্রি। মা সাঈদা বেগম মারা যাওয়ার পর ভেঙে পড়েন ইরফান। মায়ের মৃত্যুর তিনদিন পর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। তবে আর ফিরে আসেননি, মহামারির লকডাউনের কারণে মা’কে শেষবারে মতো চোখের দেখা দেখতে না পারার অভিমানে তিনি চলে যান না ফেরার দেশে। 

বৃহস্পতিবার (০৭ জানুয়ারি) ইরফান খানের জন্মদিন। বেঁচে থাকলে তার বয়স হতো ৫৪ বছর। তার জন্মদিনে পরিবারের সদস্যরা ছাড়াও বলিউড তারকা ও ভক্তরা স্মরণ করছেন এই অভিনেতাকে। 

১৯৬৭ সালের ৭ জানুয়ারি জয়পুরের সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম নিয়েছিলেন ইরফান খান। 

শুরুতে তিনি একজন প্রতিভাবান ক্রিকেটার ছিলেন। তবে জাতীয় দলে খেলার সুযোগ হয়নি তার। ১৯৮৪ সালে যখন তিনি মাস্টার্সের ছাত্র, তখনই ন্যাশনাল স্কুল অব ড্রামা, দিল্লিতে শিক্ষাবৃত্তি পান। সেখানে পড়াশুনা শেষে মুম্বাইয়ে এসে অভিনয় জীবন শুরু করেন ইরফান। 

শুরুতেই অনেকগুলো টেলিভিশন ধারাবাহিকে কাজ করেন তিনি। এর মধ্যে ‘চাণক্য’, ‘ভারত এক খোঁজ’, ‘সারা জাহান হামারা’, ‘বনেগি আপনি বাত’, ‘চন্দ্রকান্ত’, ‘শ্রীকান্ত’ ও ‘স্পর্শ’ অন্যতম।

ইরফান খানের বড় পর্দায় অভিষেক ঘটে ১৯৮৮ সালে। ১৯৮৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত তার প্রথম সিনেমা মীরা নেয়ার পরিচালিত ‘সালাম বোম্বে’ অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনয়ন পায়। ১৯৯০ সালের আর্ট ফিল্ম ‘এক ডক্টর কি মৌত’-এ তার অভিনয় দারুণ প্রশংসিত হয়। মূলত শুরু থেকেই অভিনয় জগতে প্রভাব বিস্তার করতে থাকেন ইরফান। 

লন্ডনভিত্তিক চিত্রপরিচালক আসিফ কাপাড়িয়া ইরফানকে ‘দ্য ওয়ারিয়র’ (২০০১) সিনেমার প্রধান চরিত্রে রূপায়নের পর পশ্চিমা বিশ্বে তিনি সুপরিচিত মুখ হয়ে ওঠেন। আন্তর্জাতিক অনেক চলচ্চিত্র উৎসবে সিনেমাটি ভূয়সী প্রশংসা পায়। 

বলিউডে ‘হাসিল’ (২০০৩) ও ‘মকবুল’ (২০০৪) ইরফানের গ্রহণযোগ্যতা অনেক বাড়িয়ে দেয়। ‘হাসিল’ সিনেমায় অভিনয় করে সেরা খলনায়ক হিসেবে ফিল্মফেয়ার পুরস্কার জয় করেন ইরফান। ‘লাইফ ইন অ্যা মেট্রো’ (২০০৭) সিনেমার জন্য তিনি ফিল্মফেয়ার সেরা পার্শ্ব অভিনেতার পুরস্কার পান। ফিল্মফেয়ারে ইরফান ‘পান সিং তোমার’ (২০১২) সিনেমার জন্য সেরা অভিনেতা (সমালোচক) এবং ‘হিন্দি মিডিয়াম’ (২০১৭) সিনেমার জন্য সেরা অভিনেতার পুরস্কার জয় করেন।

প্রধান চরিত্রে ইরফান অভিনীত বলিউডের প্রথম বাণিজ্যিক সিনেমা ‘রগ’ (২০০৫)। এছাড়া তার অভিনীত ‘দ্য লাঞ্চবক্স’ (২০১৩), ‘গুন্ডে’ (২০১৪), ‘পিকু’ (২০১৫’ ও ‘তালওয়ার’ (২০১৫) দারুণ সফলতা পায়। 

বলিউড ছাপিয়ে হলিউডেও একের পর এক সম্মানজনক সিনেমায় অভিনয় করেছেন ইরফান খান। এর মধ্যে রয়েছে ‘দ্য নেমসেক’ (২০০৬), ‘দ্য দার্জিলিং লিমিটেড’ (২০০৭), অস্কারজয়ী সিনেমা ‘স্লামডগ মিলিয়নেয়ার’ (২০০৮), ‘নিউইয়র্ক, আই লাভ ইউ’ (২০০৯), ‘দ্য অ্যামেজিং স্পাইডারম্যান’ (২০১২), ‘লাইফ অব পাই’ (২০১২), ‘জুরাসিক ওয়ার্ল্ড’ (২০১৫) এবং ‘ইনফারনো’ (২০১৬)।

ইরফান খান অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের মোস্তফা সরয়ার ফারুকী অভিনীত ‘ডুব’ সিনেমায়ও।

২০১৮ সালে ইরফান খানের শরীরে নিউরোএন্ডোক্রাইন টিউমার ধরা পড়ে। লন্ডনে প্রায় এক বছর চিকিৎসা নিয়ে ভারত ফেরেন তিনি। এরপর তিনি নিজের সর্বশেষ সিনেমা ‘আংরেজি মিডিয়াম’-এর অসমাপ্ত কাজ শেষ করেন। 

পিসি/