Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ও তো চারটে আসন চেয়েছে, ও গোল্লা পাবে, নেতাই থেকে কাকে কটাক্ষ করলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় ?

1 min read

।। শর্মিলা মিত্র ।।

শুভেন্দু বনাম তৃণমূল তরজার স্বাক্ষী থাকল নেতাই। শহিদ দিবসের দিনই নেতাই (Netai) নিয়ে দড়ি টানাটানি চলল ঘাসফুল ও পদ্মফুল দুই শিবিরের মধ্যেই। বুধবার মধ্যরাতে নন্দীগ্রামে শহিদ বেদীতে মাল্যদানের পর বৃহস্পতিবার সকালে নেতাইয়ে এসে শহিদদের উদ্দ্যেশে শ্রদ্ধা জানান শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। আর এরপর শুভেন্দু অধিকারীর সভার পরই নেতাইতে পৌঁছে যান পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee), মদন মিত্র (Madan Mitra) সহ তৃণমূল নেত্রীত্ব। গঙ্গাজল দিয়ে ধুয়ে মাল্যদানের আগে ‘শুদ্ধিকরণ’ করা হয় শহিদ বেদী। শহিদ বেদীতে মাল্যদানের পর লালগড়ের সভামঞ্চ থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে একহাত নেন দুজনেই। তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee) বলেন, ‘জঙ্গল মহলের কী অবস্থা ছিল আদিবাসীদের কী অবস্থা ছিল জঙ্গলমহলের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) নেতৃত্বে যে পরিবর্তন হয়েছে জঙ্গলমহলে বিনা পয়সার চাল যুবদের চাকরি দেওয়ার ব্যবস্থা স্কুল কলেজ তৈরি হওয়া বিশ্ব বিদ্যালয় তৈরি হওয়া মেডিকেল কলেজ তৈরি হওয়া এই সবকিছু ও দেখতে পাচ্ছেনা। কোন হাসপাতালে ছানি কাটার ব্যবস্থা কর।

ও এখন দেখতে পাচ্ছেনা ওর ছানি কাটানোর ব্যবস্থা করুক তাহলে ও সব দেখতে পাবে। এখন ও কিছু দেখতে পাচ্ছেনা।’ এইভাবেই প্রথমেই মন্চে উঠেই নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) কটাক্ষ করেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, ‘আনুগত্য ও বিশ্বাসযোগ্যতা শুধু রাজনীতিতে নয় সর্বত্র এর একটা মূল্য আছে।’ শুভেন্দু অধিকারীকে নাম না করে পার্থ চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘উনি বললেন নেতাইয়ে নাকি উনি সবকিছু করেছেন তাহলে কলকাতা থেকে মরদেহ নিয়ে আমাদের আসতে হল কেন’ প্রশ্ন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। তার আরও প্রশ্ন, ‘কেন ঘটনা ঘটার সময় আমরা দৌড়ে এলাম, সেদিন তার সঙ্গে অরূপ বিশ্বাস ছিলেন’ বলেও জানান তৃণমূল কংগ্রেসের মহাসচিব। তার আরও প্রশ্ন ‘নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সময় ওনার গাড়িতে কোন গুলি না লেগে গুলি কেন আমাদের গাড়িতে লাগল ?

ওনাকেতো কোনদিন কেউ তাড়া করল না। যারা লড়ল মরল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সামনে রেখে সেই ইতিহাসকে তিনি বদল করবেন কীভাবে ? নেতাইয়ের ইতিহাসকে তিনি বদল করবেন কীভাবে’ প্রশ্ন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে তার মন্তব্য, ‘তিনি যেটুকু করেছেন সেতো মা মাটি মানুষ সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে করেছেন, তৃণমূল কংগ্রেসের প্রতিনিধি হিসেবে করেছেন।’ পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee) আরও বলেন, ‘আপনি যান, যেখানে ইচ্ছে যান, যেতে পারেন, গণতন্ত্র আপনাকে অধিকার দিয়েছে।’ তার মন্তব্য, ‘এটাতো কোন ফুটবল প্লেয়ার নয় ক্রিকেট প্লেয়ার নয় সই করলাম চলে গেলাম, সই করলাম ফিরে এলাম, একটা কিছুর বিনিময়। পদ চাইনা জুট কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান হয়ে বসে থাকি। বলতে পারতেন তো আমি তো পদ চাইনা’ ‘আসলে আমার সব চাই’। এইভাবেই নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীকে কটাক্ষ করতে ছাড়লেন না পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

আরো পড়ুন :মুখ্যমন্ত্রীর রাজ্যপালের এক ঘন্টা ধরে বৈঠক? তীব্র কটাক্ষ অধীরের

নেতাইয়ের সভা থেকে তিনি আরও বলেন, ‘আদিবাসীদের জন্য জঙ্গলমহলের জন্য যে সুদীর্ঘ দিনের লড়াই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় করেছেন, জমি রক্ষার যে আন্দোলন, কৃষকের পাশে দাঁড়িয়ে লড়াই করে তাদের জমি রক্ষা করেছেন, ২৬ দিনের অনশন করেছেন, ১৫ দিনের ধরনা দিয়েছেন, কই তিনি তো এগুলো বললেন না, তিনি তো সে কথা জানালেন না। পার্থ চট্টোপাধ্যায় আরও বলেন, ‘আপনি বদল করুন কিন্তু এরকম বিকৃত তথ্য তুলে ধরবার চেষ্টা করছেন কেন’ ? নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীকে (Suvendu Adhikari) কটাক্ষ করেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। তিনি আরও বলেন, ‘আরতি মন্ডলের মরদেহ নিয়ে কলকাতা থেকে যখন এসেছিলাম সারারাত ধরে ওই নদীর পাড়ে তার শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছিল হেরিকেন জ্বালিয়ে, উনি ভুলে গেলেন।

প্রশ্ন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের। তার প্রশ্ন, ‘ইতিহাসকে ভুলছেন কেন,’ তার কটাক্ষ ‘যেমন বিজেপি ইতিহাসকে নতুনভাবে ভারতবর্ষের সংস্কৃতিকে তছনছ করে দিতে চাইছে, রবীন্দ্রনাথকে ভুলিয়ে দিতে চাইছে, বাংলাকে তার সংস্কৃতিকে তার গরিমাকে তার ঐতিহ্যকে নষ্ট করে দিতে চাইছে আপনিও সেই পথে হাঁটছেন ? পাশাপাশি কটাক্ষ করে বলেন, ‘সতীশ সামন্ত, বিদ্যাসাগরের নাম করেন এরাতো কেঁপে উঠছেন ভয়।’ পাশাপাশি অখন্ড মেদিনীপুরের ৩৫ টা আসনের জয়ের বিষয় শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করেও পার্থ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ‘২০১৯ তো তিনি পূর্ব মেদিনীপুরে উনি ছিলেন সবকটা আসনে জয়লাভ করতে পেরেছিলেন’। তার মন্তব্য, ‘আসল কথা অহঙ্কার দম্ভ, আমি একা থাকবো অন্যেরা থাকবেনা চাকরবাকর হবে।

সেই রাজনীতি করবার জায়গাটা তৃণমূল কংগ্রেসে নেই। পাশাপাশি তার মন্তব্য, ‘ওতো চারটে আসন চেয়েছে ও গোল্লা পাবে। ও যাদেরকে বলছে তাদেরকে গোল্লা দেবে, যেরকমভাবে যোগাযোগ ছিল ১৪ সালে অন্য দলের সঙ্গে সেরকমভাবে যোগাযোগ রাখছে অন্যদেরও সঙ্গে। মুখে শুধু মারিতং জগত।’ ‘সমস্ত আদিবাসী সমাজকে ঐক্যবদ্ধভাবে এই অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করার অনুরোধ জানান’ তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)। পাশাপাশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা আবার আসছি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই (Mamata Banerjee) তৃতীয় বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হবেন’। ‘সামনে আছেন মমতা, সঙ্গে আছেন জনতা রেখে দেবে মানুষের ক্ষমতা’ নেতাই থেকে এইভাবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আগাম জয়ের ঘোষণা করেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় (Partha Chatterjee)।