দিল্লি গিয়ে মমতা-প্রশাসনকে তীব্র তোপ রাজ্যপালের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

বহুদিন ধরেই রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়ের সঙ্গে রাজ্য প্রশাসনের বিরোধ তুঙ্গে। বহুবার তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ প্রশাসনিক কর্তা-ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেছেন। কখনও নাম করে,  কখনও বা নাম না করে তিনি নিশানা করেছেন রাজ্য সরকারকে। পাল্টা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় থেকে শুরু করে বেশ কয়েকজন মন্ত্রী ও তৃণমূলের একাধিক নেতানেত্রীরা দ্ব্যর্থহীন ভাষায় পাল্টা নিশানা করেছেন রাজ্যপালকে। সেই দ্বৈরথ যে আরও বাড়বে তা বোঝা গেল বৃহস্পতিবার রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় এর দিল্লি সফরে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রাজ্যপালকে ডেকেছেন বৈঠকের জন্য। বৈঠকে রাজ্যপাল তাঁর বক্তব্য জানিয়েছেন। কিন্তু বাইরে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের সামনে তিনি একরাশ ক্ষোভ উজাড় করে দিয়েছেন রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে।  তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে নৈরাজ্য চলছে। আইনশৃঙ্খলা বলতে কিছু নেই। বিধানসভা নির্বাচনর আগে রাজ্যপালের এই আচরণে নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল রাজ্য রাজনীতি।

দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যপালের সঙ্গে রাজ্য প্রশাসনের দ্বৈরথ চলছে। এদিন দিল্লিতে গিয়ে রাজ্যপাল সরাসরি মমতা- প্রশাসনকে নিশানা করে বলেন, ‘পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি অত্যন্ত খারাপ। এখানে নৈরাজ্য চলছে। আমলাদের একাংশ রাজনীতিকের মতো কাজ করছেন। রাজ্যে আল-কায়দা জঙ্গির হদিশ পাওয়া গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচন কীভাবে হবে তা নিয়ে আমি খুবই উদ্বিগ্ন। পুলিশ প্রশাসনের একটা বড় অংশ যেন রাজনৈতিক আদেশ পালন করতে ব্যস্ত। এই পরিস্থিতিতে কীভাবে সুষ্ঠু নির্বাচন হবে’?  এখানেই থেমে থাকেননি তিনি। নবান্নকে নিশানা করে তিনি আরও বলেন, ‘প্রশাসনকে চিঠি দিলেও উত্তর পাওয়া যায় না, কারণ একশ্রেণির আমলা রাজনীতিকের মতো আচরণ করছেন। রাজ্যে বোমা তৈরি কারখানার হদিশ মিলেছে।। অথচ প্রশ্ন করলে কোনও উত্তর পাওয়া যায় না’। এরপরই সাংবাদিকরা তাঁকে প্রশ্ন করেন, তবে কি রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হতে পারে? এ প্রসঙ্গে অবশ্য রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় কোনও সুনির্দিষ্ট উত্তর দেননি। তিনি এ সম্পর্কে বলেন,’আমি আমার বক্তব্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জানিয়েছি। তাঁর সঙ্গে রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে কথা হয়েছে’ ।

স্বাভাবিকভাবেই রাজ্যপালের এই বক্তব্যে তীব্র প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে তৃণমূলের অন্দরে। তৃণমূলের মহাসচিব তথা রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় বিষয়টি নিয়ে বিজেপিকে তোপ দেগে বলেছেন,  রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড় পুরোপুরি রাজনৈতিক মুখপাত্রের মতো আচরণ করছেন। অর তৃণমূল সাংসদ তথা বিশিষ্ট আইনজীবী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন,  কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ তাঁর দলের নেতার সঙ্গে দেখা করে বৈঠক করলেন। এভাবেই তিনি রাজ্যপাল তথা বিজেপিকে নিশানা করেছেন। এদিন রাজ্যপাল যেভাবে মন্তব্য করেছেন তাতে সুর চড়িয়েছেন তৃনমূলের অন্যান্য নেতারাও। তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় বলেন, ‘উত্তরপ্রদেশের মতো এখানে গণহত্যা হয় না। আর জঙ্গি থাকলে তা খুঁজে বের করুক এনআইএ। উত্তরপ্রদেশে গণধর্ষণ হয়, কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ মহিলাদের জন্য সবচেয়ে বেশি নিরাপদ। এইসব কথা রাজ্যপালকে মাথায় রাখতে হবে। তিনি পুরোপুরি বিজেপির হয়ে কথা বলছেন,  যা একেবারেই অনভিপ্রেত’।

Categories