Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বিজেপির বাংলা জয়ের ক্ষেত্রে ওয়েইসিকে ঈশ্বরের আর্শিবাদ, বললেন সাক্ষী মহারাজ


।। ময়ুখ বসু ।।


২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে পশ্চিমবাংলা দখল করাই লক্ষ্য বিজেপির। অন্যদিকে, একুশের নির্বাচনে বাংলায় মসনদ ধরে রাখা অন্যতম চ্যালেঞ্জ রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের। সেই লক্ষ্যে বিভিন্ন ধরনের রাজনৈতিক সমীকরণ শুরু হয়ে গিয়েছে বাংলার মাটিতে। তবে সমস্ত সমীকরণকে টেক্কা দিয়ে এখন বঙ্গ রাজনীতিতে অন্যতম চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে মিম। কারন, মিম বাংলার মাটিতে ভোটে লড়াই করলে সবথেকে বেশী ওলট পালট হয়ে যেতে পারে বঙ্গ রাজনীতির সমীকরণ। মিমকে নিয়ে যখন রাজ্য রাজনীতিতে কাটাকুটির হিসেব আর জল্পনা তুঙ্গে সেই সময় বিজেপির পশ্চিমবাংলা জয়ের অন্যতম হাতিয়ার আসাদুদ্দিন ওয়েইসির দল মিম, একথা অকপটে স্বীকার করে নিলেন বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ।

তিনি বলেন, পশ্চিমবাংলায় ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনে ওয়েইসি আমাদের সাহায্য করবেন। এর আগে আসাদুদ্দিন ওয়েইসির দল এআইএমআইএম বা মিম ভারতের বিহার রাজ্যে সাফল্য পাওয়ার পর ২০২১ সালে পশ্চিমবাংলার বিধানসভা নির্বাচনে লড়াই করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, বিহারে এনডিএ জোটের জয়ের অন্যতম কারণ ছিলো মিম। মিম বিহারের মাটিতে মুসলিম সম্প্রদায়ের ভোট কেটে নেওয়ায় সুবিধা হয়ে গিয়েছিলো বিজেপির। একই রণকৌশলে ২০২১ সালে বাংলায় এবং ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা ভোটে মিম ভোটে লড়াই করলে বিজেপির যে সুবিধাই হবে তা স্বীকার করে নিয়েছেন বিজেপি সাংসদ সাক্ষী মহারাজ।

সাক্ষী ওয়েইসিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, বাংলা জয়ের লক্ষ্যে ও তো ঈশ্বরের আর্শিবাদ। ঈশ্বর ওকে আরও শক্তি দিন। ও আমাদের বিহারে সাহায্য করেছে, এরপর পশ্চিমবাংলায় এবং উত্তরপ্রদেশেও সাহায্য করবে। এদিকে পশ্চিমবাংলার ক্ষমতাসীন দল তৃণমূল কংগ্রেস, জাতীয় কংগ্রেস এবং বামপন্থী দলগুলি মিমকে বিজেপির বি টিম বলে কটাক্ষ করতে শুরু করে দিয়েছে। যা এবারে সাক্ষী মহারাজের মন্তব্যে কার্যত সিলমোহর পড়ে গেলো বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। এদিকে পশ্চিমবাংলায় মিম বিধানসভা ভোটে লড়াই করবে এটা জেনে পশ্চিমবঙ্গ ইমাম অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান মহম্মদ ইয়াহা তীব্র ক্ষোভ জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, মিম এর প্রধান আসাদুদ্দিন ওয়েইসি কোনও গড ফাদার নন। আর বাংলার মানুষ ধর্মের ভিত্তিতে ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন না। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচনে ধর্মের ভিত্তিতে লড়াই করা হয় না। ওয়েইসির বাংলায় আগমন খুব বেশী প্রভাব ফেলতে পারবে না। কারণ, বাংলার মানুষ উন্নয়নে বিশ্বাস করে। তিনি বলেন, ওয়েইসি কোন ও গড ফাদার নন যে তিনি যা বলবেন মানুষ তাই শুনে চলবেন। ইয়াহা তোপ দেগে আরও বলেন, ওয়েইসি বাংলায় ধর্মের তাস খেলার চেষ্টা করছে। তার সঙ্গে জুড়েছে বিজেপি। বিজেপি এবং মিম বাংলার মাটিতে ধর্মীয় বিভাজন তৈরি করার চেষ্টা চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।