Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘একবার সুযোগ দিন’, কথা না রাখলে সরিয়ে দিতে বললেন রাজীব

।। প্রথম কলকাতা ।।

বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর দেখা যাচ্ছে রাজ্য জুড়ে প্রচার করছেন শুভেন্দু অধিকারী। প্রথমে পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের মধ্যে আবদ্ধ থাকলেও, শুভেন্দু এখন জেলাওয়ারি সফরে যাচ্ছেন নিয়মিত। একইভাবে দেখা যাচ্ছে গেরুয়া শিবিরে যোগদানের পরদিন থেকেই জেলা সফরে বেরিয়ে পড়েছেন রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়। বুধবার নদিয়ার চাকদায় জনসভা করেন তিনি। সেখান থেকে তিনি বিজেপিকে একবার সরকারে নিয়ে আসার আবেদন করেন মানুষের কাছে। তিনি বলেন,” অনেক আশা এবং স্বপ্ন নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেছি। কিছু কাজ করতে চাই। আপনাদের পাশে চাই। বিজেপিকে একবার অন্তত সুযোগ দিন। পাঁচ বছরে আমরা কি করতে পারি সেটা দেখুন। যদি ভাল না লাগে, প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারি তাহলে আপনাদের হাতে ক্ষমতা আছে, আমাদের সরকার থেকে সরিয়ে দেবেন পরের নির্বাচনে।

কিন্তু এবার আমাদের সুযোগ দিন।” এভাবেই চাকদার মানুষের মন ছোঁয়ার চেষ্টা করেছেন রাজীব। এদিন রাজীবের নদিয়ায় আসা বেশ তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ তৃণমূলে থাকার সময় এই জেলার পর্যবেক্ষক ছিলেন তিনি। অর্থাৎ জেলার রাজনৈতিক খবরাখবরের পাশাপাশি খুঁটিনাটি বিষয় তাঁর একেবারে নখদর্পণে রয়েছে। সেই সূত্রেই তিনি বলেন,” আমি তৃণমূলে থাকার সময় এই জেলার দায়িত্বে ছিলাম। তাই এখানে এসে খুব ভাল লাগছে। নদিয়া জেলাকে আমি খুব ভালবাসি। তাই আপনাদের কাছে আবেদন করছি, একবার আমাদের সুযোগ দিন। মায়ের চোখের জল মুছব, মানুষের আশা পূর্ণ করব। কথা দিচ্ছি আপনারা ঠকবেন না। আরও অনেকবার এখানে আসব। অনেক কিছু বলার আছে। সেগুলি যুক্তি সহযোগে আপনাদের কাছে তুলে ধরব।”

প্রতিটি জনসভাতেই তিনি অত্যন্ত মার্জিত এবং রুচিসম্মত বক্তব্য রাখছেন। রাজীব বারবার বলেছেন তিনি ব্যক্তিগত আক্রমণের রাজনীতি করেন না। সেটা এদিন ফের দেখা গেল চাকদায়। তাঁর বক্তব্যে বারবার উঠে এসেছে স্বপ্ন ফেরির কথা। তাই তিনি এদিন বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির নেতৃত্বে বাংলায় কাজ করব। বাংলা জুড়ে উন্নয়ন করব। সেই স্বপ্ন দেখেই তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে এসেছি। আপনারা আমাদের নিরাশ করবেন না। বিজেপিতে যোগদানের পর শুভেন্দু এবং রাজীব জুটির গ্রহণযোগ্যতা বেড়েছে সর্বত্র। প্রত্যেকটি জেলা থেকে তাঁদের ডাক আসছে জনসভা করার জন্য। সেই সূত্রেই বুধবার চাকদায় গেলেন রাজীব। এদিনের সভায় ব্যাপক ভিড় হয়। তৃণমূলে থাকার সময় নদিয়া জেলায় দল পরিচালনার অভিজ্ঞতা রয়েছে তাঁর। সেটা এবার গেরুয়া শিবিরের পক্ষে কাজে লাগাতে চান তিনি। সে কথাই এদিন ফুটে উঠেছে রাজীবের বক্তব্যে।