খিদে চাঙ্গা হবে পেটে, গলৌটি কবাব থাকলে প্লেটে

1 min read

।। স্বর্ণালী তালুকদার ।। কলকাতা ।। 

কাবাবকে রাজকীয় খাবারের তকমা দেওয়া হলেও আজ থেকে প্রায় খ্রিস্টীয় ত্রয়োদশ শতাব্দীতে পিছিয়ে গেলে সাধারণ মানুষের বাড়িতে প্রাতঃরাশের মতো উপভোগ করা হত। ঐতিহ্যবাহী এই খাবারের রেসিপিতে রয়েছে প্রচুর মশলা। শোনা যায়,  তৎকালীন লক্ষ্মৌর নবাব বৃদ্ধাবস্তায় তাঁর বেশিরভাগ দাঁত হারিয়েছিলেন, তবে কাবাবের জন্য তিনি বড়ই উৎসাহী থাকতেন। 

তাই নবাবের উৎসাহের কথা মাথায় রেখে পাকা খানসামা কাবাবের মধ্যে  আনেন নতুন মোড়, যাতে কাবাবের স্বাদও বজায় থাকবে এবং নবাবের মন ও ভরবে। ভাগ্যিস নবাবের মন ভরেছিল সেই নতুন কাবাব খেয়ে, না হলে আমাদেরও জানা হত না রাজমহলের অন্দরের খানাপিনার রহস্য। আজকে জেনে নিন, সেই গলৌটি কাবাব কিভাবে বানাতে হয়? সামনে আসছে পুজো, যেখানে লা জবাব রেসিপি দিয়ে আপনার ছেলেমেয়েদের যদি ঘরমুখো করতে হয়, তবে চটপট শিখে নিতে হবে এই বিশেষ রেসিপিটি।  

কিভাবে বানাবেন গলৌটি কাবাব?

উপকরণ

১. খাসীর মাংস- ২ কাপ (কিমা করা)

২. দেশি ঘি- ১ কাপ

৩. লঙ্কার গুড়ো – ১  চা চামচ

৪. হলুদ গুড়ো– ২ চা চামচ

৫. আদা বাটা- ২ চা চামচ

৬. রসুন বাটা- ২ চা চামচ

৭. নুন- পরিমাণ মতো

৮. গরম মসলা- ২ চা চামচ

৯. পেঁয়াজ কুচি- ১ কাপ

প্রণালী

প্রথমে একটি বাটিতে মাটনের কিমাগুলিকে নিয়ে, তাতে এক এক করে লঙ্কার গুড়ো, হলুদ গুড়ো, নুন, আদা বাটা, রসুন বাটা, গরম মসলা ও পেঁয়াজ কুচি মিশিয়ে ভালো করে মেখে নিতে হবে। এরপর হাত দিয়েই ওই মিশ্রন থেকে একটু একটু মন্ড নিয়ে সেটিকে কাবাবের আকারে গড়ে নিতে হবে।

একটি ফ্রাইং প্যানে ঘি গরম করতে দিয়ে দিতে হবে। ঘি গরম হয়ে এলে, একটা করে কাবাব ছেড়ে দিতে হবে প্যানে। তবে হ্যাঁ, আঁচ যেন অল্প থাকে। যতক্ষণ না বাদামি রঙ ধরছে, ততক্ষণ ভেজে যেতে হবে। এরপর রঙ ধরে এলে গরম সস কিংবা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন গলৌটি কাবাব।