Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

দিনহাটা থেকে মেখলিগঞ্জ, রোড শোতে শুধুই মানুষ, চওড়া হল নাড্ডার হাসি

।। প্রথম কলকাতা ।।

ভোট প্রচারের শেষ বেলায় জমজমাট রোড শো করলেন বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা। বৃহস্পতিবার কোচবিহারের দিনহাটা এবং মেখলিগঞ্জে বিজেপি সভাপতির রোড শো ঘিরে গণউন্মাদনা দেখা গেল। দিনহাটায় মিছিলের পর তিনি বলেন, ” এই মানুষের ঢল বলে দিচ্ছে এই বিধানসভা কেন্দ্রে নিশীথ প্রামানিক বিপুল ভোটে জিততে চলেছেন”। এরপর মেখলিগঞ্জে রোড শো করেন তিনি। সেখানে তিনি বলেন, ” বাংলার মানুষ তোলাবাজি, তোষণ, দুর্নীতি, কাটমানির সরকারকে এই নির্বাচনে ছুড়ে ফেলে দেবেন।

পশ্চিমবঙ্গে বেকার সমস্যা অত্যন্ত জটিল আকার ধারণ করেছে। এখানে ছেলেমেয়েদের কাজ নেই, শুধু তোলাবাজি চলছে। আর এটা শুধু বন্ধ করতে পারে বিজেপি। তাই শনিবারের নির্বাচনে পদ্মফুল চিহ্নে ছাপ দিয়ে বিজেপি প্রার্থীদের বিপুল ভোটে জিতিয়ে আনুন”। এর আগে একাধিকবার উত্তরবঙ্গে গিয়েছেন বিজেপি সভাপতি। আগের মতো এদিনও তাঁর কর্মসূচিতে ভিড় উপচে পড়ল।

এদিন দিনহাটায় তৃণমূল প্রার্থী উদয়ন গুহ হুডখোলা গাড়িতে প্রচার করেন। সঙ্গে ছিল মোটরবাইকের মিছিল। তার কিছুক্ষণ পরেই রোড শো শুরু করেন বিজেপি সভাপতি। দিনহাটা সংহতি ময়দান থেকে নাড্ডার রোড শো শুরু হয়। শেষ হয় পাঁচমাথার মোড়ে। সেই মিছিলে হাজার হাজার মানুষ সামিল হয়েছিলেন। একশো জন ঢাক বাজাতে বাজাতে মিছিলে হাঁটেন।

একটা উৎসবের পরিবেশ তৈরি হয় সেখানে। সেই কর্মসূচিকে ঘিরে যাতে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেই কারণে কড়া পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছিল। দিনহাটার বিজেপি প্রার্থী নিশীথ প্রামাণিকের পাশাপাশি ছিলেন বিজেপি নেতা দীপ্তিমান সেনগুপ্তসহ অন্যান্যরা। মেখলিগঞ্জের রোড শোতেও জনজোয়ার দেখা যায়। উল্লেখ্য গত লোকসভা নির্বাচনে কোচবিহারের পাশাপাশি গোটা উত্তরবঙ্গে অভূতপূর্ব ফলাফল করে বিজেপি। মালদা দক্ষিণ কেন্দ্র বাদ দিলে উত্তরবঙ্গের বাকি সাতটি আসনেই জিতেছিল বিজেপি।

অর্থাৎ সেখানে তাদের সংগঠন অত্যন্ত শক্তিশালী। সেই জায়গা ধরে রাখতে মরিয়া বিজেপি নেতৃত্ব। তাই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ও বিজেপি সভাপতি জেপি নাড্ডা বেশ কয়েকবার প্রচার করেছেন উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায়। এদিন নাড্ডা মূলত তৃণমূলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরব হয়েছেন। এদিন তাঁর জোড়া কর্মসূচি যেভাবে সাড়া ফেলেছে এখানকার মানুষদের মধ্যে, তাতে নাড্ডার মুখের হাসি নিঃসন্দেহে অনেকটা চওড়া হয়েছে।