Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

রাজ্যে বাম কংগ্রস জোটের ঢাক পেটানো শুরু হলেও শেষ অবধি তাল কাটবে না তো?

1 min read

।। ময়ুখ বসু ।।


রাজ্যে একুশের বিধানসভা নির্বাচনের আগে বাম-কংগ্রেস জোটের ততপরতা শুরু হয়ে গিয়েছে। কিন্ত এই জোট শেষ পর্যন্ত গড়াবে কি না তা নিয়ে দেখা দিয়েছে সংশয়। কারন, কংগ্রেসের অনেকেই মনে করছেন, বাংলার মাটিতে বামেদের গ্রহনযোগ্যতা এখন একেবারেই তলানীতে। ফলে বামেদের সঙ্গে জোট গড়ে তেমন লাভের লাভ কিছুই হবে না। বরং কংগ্রেস (Congress) যদি তাদের নিজস্ব শক্তি নিয়ে লড়াই করে তাহলে মানুষের কাছে তাদের গ্রহনযোগ্যতা অনেকটাই বাড়বে। এদিকে ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গে কংগ্রেসের তরফে পর্যবেক্ষক হিসাবে নিযুক্ত করা হয়েছে বি কে হরিপ্রসাদ আলমগীর এবং বিজয় ইন্দ্র সিংলাকে। তাঁরা কংগ্রেসের প্রচার এবং সহযোগী দলের সঙ্গে সমস্ত সমঝোতা এবং ব্যাবস্থাপনার দায়িত্ব সামলাবেন।

একইসঙ্গে এআইসিসির তরফে পশ্চিমবঙ্গে জোটের ক্ষেত্রে আসন বন্টন এবং বামফ্রন্টের সঙ্গে আলাপ আলোচনার জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি করে দিয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের দায়িত্বপ্রাপ্ত কংগ্রেস (Congress) নেতা জিতিন প্রসাদ। সেই কমিটির মাথায় রয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর রঞ্জন চৌধুরী (Adhir Ranjan Chowdhury) , রয়েছেন আব্দুল মান্নান। কমিটির সমন্বয় রক্ষা করার জন্য রাখা হয়েছে কংগ্রেস সাংসদ প্রদীপ ভট্টাচার্য এবং পুরুলিয়ার বাঘমুন্ডির বিধায়ক নেপাল মাহাতোকেও। এতোকিছু তোড়জোড়ের পরেও বাম-কংগ্রেস জোট শেষ পর্যন্ত কতোটা সফ্লতা পাবে তা নিয়ে কোথাও যেন একটা ধন্দ থেকেই যাচ্ছে। যেভাবে রাজ্যের কংগ্রেসীরা বামেদের সঙ্গে জোট গড়ার ক্ষেত্রে অনীহা প্রকাশ করতে শুরু করেছেন তাতে এতো কিছুর পরেও বাম কংগ্রেস জোট শেষ পর্যন্ত টিকবে কি না তা নিয়ে থেকে যাচ্ছে বড়োসড়ো প্রশ্নচিহ্ন।

আরো পড়ুন :নেতাই থেকে পেটাই শুরু, শুভেন্দুর মুখোমুখি হয়ে লড়তে চান এই নেতা

তার উপর জোট শেষ অবধি গড়ালেও সেই জোটের আসন সমঝোতা নিয়ে কতোটা কংগ্রেসীরা সুখি হবেন তা নিয়েও সংশয় থাকছে। কারন, ইতিমধ্যেই কংগ্রেসের অন্দরে গুঞ্জন শুরু হয়েছে বামফ্রন্টের সঙ্গে আসন সমঝোতা নিয়ে। স্বাভাবিকভাবেই রাজনৈতিক মহল মনে করছেন, যেভাবে কংগ্রেসীরা এককভাবে লড়াইয়ের পক্ষে সওয়াল করতে শুরু করেছেন, তাতে আসন সমঝোতার সময় তারা বামেদের থেকে অনেক বেশী আসনের দাবি করতেই পারেন।আর তেমন হলে বামেদের তরফে আপত্তি ওঠাও অস্বাভাবিক কিছু নয়। ফলে আসন বন্টনের সময় বাম কংগ্রেস জোটে ফাটল ধরার সমূহ সম্ভাবনা উঁকি দিতে আরম্ভ করেছে। জানা যাচ্ছে, এরমধ্যেই নেপাল মাহাতো নাকি তাঁর ঘনিষ্ঠ মহলে বলেছেন, জোট না করে বাংলার মাটিতে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস যদি এককভাবে লড়াই করে তাহলে ভালো ফল করবে।

কংগ্রেস কর্মীরা কখনই বামফ্রন্টের জোট প্রার্থীদের ভোট দেবে না বলে মনে করেন তিনি। নেপাল মাহাতোর সঙ্গে সুর মিলিয়ে রাজ্যের বহু কংগ্রেসীরাই মনে করেন, বামফ্রন্টের সঙ্গে জোটে না গেলে কংগ্রেস ভালো ফল করবে। এদিকে অধীর চৌধুরীর সঙ্গে আব্দুল মান্নানের মধ্যে রয়েছে ঠান্ডা লড়াই। ফলে জোট রাজনীতিতে আসন বন্টন নিয়ে মতানৈক্যের সম্ভাবনা থাকছে বলে রাজনৈতিক মহলের ধারনা। মনে করা হচ্ছে। আসন সমঝোতার ক্ষেত্রে অধীর চৌধুরীর সিদ্ধান্তকে আব্দুল মান্নান কতোটা মেনে নেবেন কিংবা আব্দুল মান্নানের সিদ্ধান্তকে অশীর চৌধুরী কতোটা মেনে নেবেন তা নিয়েও দ্বন্ধ তৈরির সম্ভাবনা থেকে যাচ্ছে। সব মিলিয়ে রাজনৈতিক মহলের ধারনা, রাজ্যে বাম-কংগ্রেস জোট নিয়ে যতৈ ঢাক পেটানো হোক না কেন শেষ পর্যন্ত কতোটা শেষ রক্ষা হবে সেটাই দেখার বিষয়।