Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘শোনো না ১ টা হাত ভাঙলে ১০ টা হাত ভেঙে দেবে’, ভীষণ রুদ্রমূর্তি সুজাতার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

আরামবাগের তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা খাঁ মন্ডলকে রুদ্রমূর্তিতে দেখা গেল মঙ্গলবার। বিজেপি কর্মী সমর্থকদের মেরে হাত ভেঙে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিলেন তিনি। সুজাতার অভিযোগ বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের তৃণমূল ভোটারদের ভোট দিতে দিচ্ছে না। এই অভিযোগে তিনি একটি গ্রামে যান। সেখানে তাঁকে নিজের দলের কর্মী-সমর্থকদের উদ্দেশ্যে বলতে শোনা গিয়েছে, ” একটা হাত ভাঙলে ওদের দশটা হাত মেরে ভেঙে দেবে। মাথায় ফেট্টি বেঁধে নোংরামি হচ্ছে?”

এরপরই কয়েকজন গ্রামবাসীকে উদ্দেশ্য করে তিনি চিৎকার করে বলে ওঠেন, ” এই কি করছিস ওখানে? মেরে ভেঙে দেব। হিম্মত থাকলে বেরিয়ে আয়”। তখন দলীয় সমর্থকরা সুজাতাকে দেখিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন অভিযুক্ত গ্রামবাসীরা কোথায় রয়েছে। এরপর পারুলগ্রামে সুজাতার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখায় গ্রামবাসীরা। গ্রামবাসীদের অভিযোগ, সুজাতা সেখানে অশান্তি ছড়াতে গিয়েছেন। সেখানে প্রচুর মহিলা ছিলেন।

আরামবাগের তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা খাঁ মন্ডলের ওপর হামলার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। মঙ্গলবার আরামবাগ বিধানসভা কেন্দ্রের নির্বাচন মোটের ওপর শান্তিপূর্ণভাবেই হচ্ছিল। কিন্তু বেলা বাড়ার পর তৃণমূল অভিযোগ করতে শুরু করে, বহু জায়গায় তাদের দলের সমর্থকদের ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে বিজেপি। এমনকী বেশ কয়েকটি বুথ এজেন্ট বসতে দেওয়া হচ্ছে না। খবর পেয়ে পারুলগ্রামে যান তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা।

সেখানে তিনি যেতেই অবস্থা অগ্নিগর্ভ হয়ে ওঠে। গ্রামবাসীদের একাংশ হাতে লাঠি, বাঁশ নিয়ে তেড়ে আসে তাঁর দিকে। তখন সুজাতার দেহরক্ষী পিস্তল উঁচিয়ে তাক করেন গ্রামবাসীদের দিকে। তাতে উত্তেজনা আরও বেড়ে যায়। এরপর সুজাতা সেই স্থান থেকে চলে আসেন। পুলিশ তাঁকে সেই জায়গা থেকে বের করে আনে। এরপর সুজাতা সংবাদমাধ্যমের সামনে বিষয়টি নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তিনি বলেন, ” এই হচ্ছে বিজেপি। আমাদের এজেন্টদের বাড়িতে সাদা থান পাঠিয়ে দিচ্ছে ওরা।

ভয় দেখিয়ে মহিলাদের বলছে তোদের স্বামী বুথে বসলেই খুন করে দেব। তোরা বিধবা হয়ে সাদা কাপড় পরবি।” সেই সঙ্গে তিনি বলেন, ” আমার মাথায় মেরেছে। বিজেপি বুথ দখল করছে। আমাদের এজেন্টদের বসতে দেওয়া হচ্ছে না। কেন্দ্রীয় বাহিনী কিছু করছে না।” যদিও সেখানকার গ্রামবাসীদের বক্তব্য, শান্তিপূর্ণভাবে ভোট হচ্ছিল। তৃণমূল প্রার্থী সুজাতা সেখানে গিয়ে উত্তেজনা তৈরির চেষ্টা করেছেন। তাঁকে আঘাত করা হয়নি বলে দাবি করেছেন গ্রামের মহিলারা।

উল্লেখ্য বাম জমানায় একইভাবে বিরোধীদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল আরামবাগ মহকুমার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে তৎকালীন শাসক দল সিপিএমের বিরুদ্ধে। স্বাভাবিকভাবেই এদিনের ঘটনা নিয়ে সোচ্চার হয়েছে জোড়াফুল শিবির। ঘটনার কথা শুনে তৎপর হয়েছে নির্বাচন কমিশন। তৃণমূল যে অভিযোগ করেছে সেই বিষয়টি নিয়ে কমিশন জরুরি ভিত্তিতে রিপোর্ট তলব করেছে হুগলি জেলা প্রশাসনের কাছ থেকে।