দশেরাতে অস্ত্রের আরাধনা, কি বোঝাতে চাইলেন দিলীপ ঘোষ?

1 min read

।। স্বর্ণালী তালুকদার ।। কলকাতা ।।

রাম নবমীতে একদা অস্ত্র হাতে দেখা গিয়েছিল বিজেপি রাজ্য সভাপতিকে। তিনি ইঙ্গিত করেছিলেন, মানুষকে রক্ষার স্বার্থে অস্ত্র তুলে নিতে হয়েছিল ভগবানকেও। নির্বাচনের আগের দুর্গাপুজোতে জোর কদমে লেগে পড়েছেন তিনি। প্রচারে যাতে খামতি না থাকে তার জন্য উৎসবের শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন ভগবানের ঐতিহ্যকে সম্মান জানিয়ে।

আগে দশেরাতে বহু রাজারা অস্ত্র পুজো করতে দশেরা তিথিতে। দশেরা মানেই নবরাত্রির শেষ দিন এবং রাবণ বধের পালা। অন্যদিকে দেবী দুর্গা এদিন বধ করেছিলেন মহিষাসুরকে, যিনি স্বর্গ-মর্ত্যে অরাজকতা এবং হিংসার বাতাবরণ তৈরী করে অতিষ্ঠ করে তুলেছিলেন সমাজ জীবন। সমাজকে স্বাভাবিক ছন্দে ফিরিয়ে আনতে, মা দুর্গা এবং শ্রী রাম তুলে নিয়েছিলেন অস্ত্র, পাপের বিনাশ করতে।

আরো পড়ুনঃ “মণীশ শুক্লার হত্য়াকাণ্ড ধামাচাপা দিয়েছে সরকার”: অর্জুন সিং

তিনি ফেসবুকে আরাধনার একটি ভিডিও পোস্ট করেন, সেখানে তিনি লেখেন, অধর্মের উপর ধর্মের বিজয়, অন্যায়ের উপর ন্যায়ের বিজয় – বিজয়া দশমীর আহ্বান তো এটাই। শস্ত্র আমাদের রক্ষা করে, দেশ-সমাজ-ধর্ম রক্ষা করতে শস্ত্রের প্রয়োজন রয়েছে। বাংলায় বিজেপি কর্মীদের উপর লাগাতার আক্রমনের প্রত্যুত্তরেই কি এই পোস্ট দিলীপ বাবুর?

এরপরে তিনি আরও একটি পোস্টে একটি লম্বা চিঠি লেখেন। তিনি জানান, কর্মীদের অফুরান ভালোবাসা এবং কর্তব্যনিষ্ঠার বলেই তিনি আজ এত সম্মান পেয়েছেন, রাজনৈতিক জীবনে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছেন। ২০২১ সালের নির্বাচনই আসল লক্ষ্য হোক সবার, এই বার্তা দিয়েছেন তিনি। পশ্চিমবঙ্গের গণতন্ত্র বিপন্ন, শাসকের দুর্নীতি বঞ্চনা থেকে মুক্ত করতে হবে রাজ্যবাসীদের, এমনটাই তিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

পরিশেষে এও মনে করিয়ে দিয়েছেন, করোনা থেকে মুক্ত কেউ নন। তাই সকলেই সচেতন থাকুন। সাবধানতা অবলম্বন করে চলুন। যারা সচেতন নন, তাদেরকেও সচেতন করুন। দশমীর পুণ্য তিথিতে সকলের সঙ্গে শুভ শক্তির কৃপা প্রার্থনার মাধ্যমেই অশুভ শক্তির সঙ্গে লড়ে যাওয়ার প্রেরনাকে তিনি সশস্ত্র নমন করেছেন।

Categories