চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধে ফের ভাঙন, আতঙ্কে স্থানীয় বাসিন্দারা

1 min read

।। চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ ।।

চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ পুরাবাজার হরিসভা এলাকায় ফের মেঘনা নদীর ভয়াবহ ভাঙন দেখা দিয়েছে। বুধবার রাতে ওই এলাকার ২০ মিটার ভাঙন ও ২৫ মিটার এলাকায় ফাঁটল দেখা দেয়। এতে সড়কের বেশ কিছু অংশ ও বৈদ্যুতিক খুটিসহ ভেঙে নদী গর্ভে চলে যায়।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) সকালেও দেখা যায় ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। নতুন করে ২৫ মিটারের সঙ্গে বাঁধের আরও ৬০-৭০ মিটার ফাটল দেখা দিয়েছে। যার ফলে স্থানীয় বাসিন্দারা খুবই আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন।

বর্তমানে এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছন্ন রয়েছে। স্থানীয়রা জানায়, বুধবার রাতে হঠাৎ করে পুরানবাজারের হরিসভা এলাকায় ভয়াবহ ফাঁটল দেখা যায়। এ সময় শহর রক্ষা বাঁধের বেশ কিছু সিসি ব্লক নদীতে বিলীন হয়ে যায়। তাৎক্ষনিকভাবে ওই এলাকার বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হয়। এছাড়া সকাল থেকে ওই এলাকায় গ্যাস সংযোগও বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

বার বার ভাঙনের ফলে পুরানবাজার ব্যবসায়িক এলাকাটি ঝুঁকিতে রয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দা বিমল চৌধুরী বলেন, গত বছর থেকে ভাঙন এলাকাটি খুবই ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। ওই সময় মন্ত্রীসহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অনেক কর্মকর্তা ভাঙন স্থান পরিদর্শন করেছেন। ১১শ’ কোটি টাকার প্রকল্পের মাধ্যমে এখানে স্থায়ী বাঁধ হবে বলে আশ্বাস দিলেও এখনো তা করা হচ্ছে না। যখন ভাঙন দেখা দেয় তখন কিছু বালু ভর্তি ব্যাগ ফেলানো হয়, ভাঙন কিছুটা কমলে আর কোনো কাজ হয় না।

চাঁদপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী আশরাফ উদ্দিন বলেন, ভাঙন প্রতিরোধে আমাদের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। রাত থেকেই শ্রমিক কাজ করতে শুরু করেছেন। তবে এখানে পানির গভীরতা প্রায় ৪৫ ফুট। তারপরেও কাজ বন্ধ নেই।

চাঁদপুর জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মদ বাবুল আখতার বলেন, মেঘনা নদীর পানি প্রবল বেগে প্রবাহিত হওয়ার পাশাপাশি সৃষ্ট ঘূর্ণিপাকে হরিসভা এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়। শহররক্ষা বাঁধের ২৫ মিটার এলাকায় ভাঙনের তীব্রতা বেশি। আমরা খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ভাঙন রোধে কাজ শুরু করে দিয়েছি। ভাঙনকবলিত এলাকায় বালিভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে।

পরিদর্শনে এসে কুমিল্লা পাউবো বিভাগের প্রকৌশলী জহির উদ্দিন আহমেদ বলেন, চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধ পুরানবাজার হরিসভার ২৫ মিটার এলাকায় ফাঁটল এবং ২০ মিটার ভাঙন দেখা দেয়। এতে কিছুস্থানের ব্লক নদীতে দেবে গেছে। ভাঙন স্থানে ৫ হাজার জিইও ব্যাগ ফেলা হবে।

উল্লেখ, চাঁদপুর শহর রক্ষা বাঁধের হরিসভা এলাকায় কয়েক মাস আগেও ভাঙন দেখা দেয়। ওই সময় ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের পক্ষ থেকে বালিভর্তি বস্তা ফেলা হয়।