Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ঘূর্ণিঝড় নিভার আঘাত হানতে পারে বুধবার

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

বুধবার সন্ধেয় বঙ্গোপসাগরের দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলে ঘূর্ণিঝড় নিভার তামিলনাড়ু ও পুদুচ্চেরি পেরিয়ে যেতে পারে, পূর্বাভাস দিল আবহাওয়া দফতর। সতর্কবার্তায় বললো, গভীর নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী টুইট করে তামিলনাড়ু ও পুদুচ্চেরিকে আশ্বাস দিয়েছে কেন্দ্র সবরকম সহায়তা করবে। এই ঘূর্ণিঝড়ে বাতাসের গতিবেগ থাকবে ঘণ্টায় ১২০ কিমি।

মোদী তামিলনাড়ুর মুখ্যমন্ত্রীর ই পালানিস্বামী ও পুদুচ্চেরির মুখ্যমন্ত্রী ভি নারায়ণস্বামীকে আশ্বাস দিয়েছেন কেন্দ্রের সবরকম সহায়তার। তিনি টুইট করেছেন, আক্রান্ত এলাকায় সকল বাসিন্দাদের নিরাপত্তা ও সুস্থতার কামনা করেছেন।

পুদুচ্চেরিতে বড় জমায়েত নিষিদ্ধ করা হয়েছে, ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়ার আগে। মানুষের গতিবিধিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে মঙ্গলবার রাত ৯টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত। দুধের বুথ, হাসপাতাল ও ওষুধের দোকানগুলিকে খুলে রাখার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে অন্য সমস্ত দোকান খোলা থাকবে।

চেন্নাই, পুদুচ্চেরি সহ তামিলনাড়ুর বিভিন্ন তটবর্তী জেলায় রাত থেকে ভারি বৃষ্টি হচ্ছে। আবহাওয়া দফতর বলেছে, ঝড় বুধবার বিকেল ৫টায় করাইকাল ও মামল্লপুরমের মধ্যে দিয়ে পেরিয়ে যাবে।

নিভার চেন্নাইয়ের ৪৫০ কিমি দক্ষিণ পূর্বে ঘনীভূত হয়েছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় তা তীব্র ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হতে পারে। ভারতের আবহাওয়া দফতর টুইট করেছে, গভীর নিম্নচাপ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হয়েছে – নিভার দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। তামিলনাড়ু ও পুদুচ্চেরি উপকূলে ঘূর্ণিঝড়ের সতর্কবার্তা – হলুদ সঙ্কেত।

সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি যেমন গাছ উপড়ে পড়া, বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হওয়া, যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়া ও ছাদ উড়ে যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন আধিকারিকরা।

জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর ৬টি দল কুড্ডালোর জেলায় পৌঁছে গেছে। চেন্নাইয়ে ২টি দলকে রাখা হয়েছে।

রাজস্ব মন্ত্রী আরবি উদয়াকুমার, যিনি রাজ্য বিপর্যয় ব্যবস্থাপণা দফতরের দায়িত্বে আছেন, তিনি বলেছেন. ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা করা হচ্ছে। এলাকায় নজরদারি আধিকারিকরা সতর্ক রয়েছেন। তারা জলের মসৃণ প্রবাহের জন্য ও নিরাপদে বড় হ্রদগুলিতে জমা হওয়ার জন্য ব্যবস্থা করছেন।

৭টি জেলায় দুপুর ১টা থেকে বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে পুদুকোট্টাল, তাঞ্জাভুর, নাগাপট্টিনম, মাইলাধুতুরাই ও থিরুভারুর।

মুখ্যমন্ত্রী ইপিএস জনসাধারণকে আবেদন জানিয়েছেন, ঘরে থাকতে ও খুব প্রয়োজনে বেরোতে হলে ব্যক্তিগত যানবাহন ব্যবহার করার। রাজ্য বিপর্যয় ব্যবস্থাপণা দফতর জনগণকে খাদ্য, পাণীয় জল ও ব্যাটারি মজুত রাখতে বলেছে।

কুড্ডালোরের কালেক্টর চন্দ্র শেখর শাখামুড়ি বলেছেন, তারা কোভিড বিধি মেনে চলছেন। তারা ৪০০ বড় লৌকা ও ১৫০০ ক্যাটামারান নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে গেছেন। নীচু এলাকা থেকে ইতিমধ্যেই প্রায় ৫০০ মানুষকে ত্রাণ কেন্দ্রে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।