দেশে স্কুল বন্ধ থাকার খেসারত ৪০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি

1 min read

।। সুদীপ মান্না ।।

বিশ্ব ব্যাঙ্কের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী কোভিড-১৯ অতিমারীতে দীর্ঘ দিন স্কুল বন্ধ থাকায় ভারতের ভবিষ্যতের আয়ের ক্ষেত্রে ৪০০ বিলিয়ন ডলারের বেশি ক্ষতি হয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলিতে স্কুল বন্ধ থাকার কুপ্রভাব পড়েছে ছাত্রদের ওপর। এর ফলে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক শিক্ষায় ৩৯১ মিলিয়ন ছাত্রকে স্কুলের বাইরে রাখা হয়েছে। শিক্ষার সংকটের সমাধান আরও কঠিন হয়ে পড়েছে।

রিপোর্টে আরও বলা হয়েছে, অতিমারীর কারণে ৫.৫ মিলিয়ন পড়ুয়া শিক্ষা ব্যবস্থা থেকে ছিটকে পড়েছে। শিক্ষার ক্ষতির কারণে শিক্ষার্থীদের একটি প্রজন্মের উৎপাদনশীলতার ওপর তা আজীবন প্রভাব ফেলবে।

বেশিরভাগ স্কুলই মার্চে বন্ধ হয়ে গেছে। শিশুরা ৫ মাস ধরে স্কুলের বাইরে আছে। এতদিন ধরে স্কুলের বাইরে থাকায় তারা নতুন জিনিসও শিখছে না আর আগে যা শিখেছিল তাও ভুলে যাচ্ছে।

এতে ক্ষতির হিসাব করে দেখা যাচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ার গড়পড়তা শিশু জীবনভর আয়ের ৪৪০০ ডলার হারাচ্ছে, যখন তারা শ্রমের বাজারে ঢুকছে, যা তার মোট আয়ের ৫ শতাংশ।

আরও পড়ুন: গোবরের “চিপ” মোবাইলের বিকিরণ কমাবে, দাবি আধিকারিকের!

ভারতে দেশজুড়ে নোভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রুখতে ১৬ই মার্চ থেকে স্কুল বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। ২৫শে মার্চ কেন্দ্র দেশ জুড়ে লকডাউনের ঘোষণা করেছিল। জুন ৮ থেকে আনলকে আস্তে আস্তে নিষেধাজ্ঞা উঠলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি বন্ধ আছে।

যদিও সাম্প্রতিকতম আনলক নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, কোভিড-১৯ কনটেনমেন্ট জোনের বাইরে স্কুল, কলেজ ও অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলি ১৫ই অক্টোবর থেকে খুলতে পারে। প্রতিষ্ঠানগুলি পুনরায় খোলার ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলি।

Categories