Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

যখন সময় থমকে দাঁড়ায়… মোবাইল স্ক্রিনে বন্দিজীবন!

1 min read

।। ফাইজা রাফা, বাংলাদেশ ।।

ঘরবন্দি বাংলাদেশের লাখ লাখ শিশু। করোনা ভাইরাসের কারনে , বিদ্যালয়ের পড়া, প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে পড়া, বিকেলে খেলা, আবার সুযোগ পেলেই দুরন্তপনায় মেতে ওঠা সব কিছুই এখন ঘরবন্দি। স্কুল বন্ধ, প্রাইভেট শিক্ষকও আসেন না, দুরন্তপনায় মেতে ওঠা হয় না গত প্রায় ৪ মাস যাবত। সবুজ ঘাসের উপর খেলার সুযোগও নেই তার। দিনের অধিকাংশ সময় কাটে মোবাইলে কিংবা কম্পিউটারে গেমস খেলে।

শিশু শিক্ষার্থীর সবাই এখন ঘরবন্দি। বড়রা যখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রয়োজনে বাইরে বের হতে পারছেন, তখন করোনা মহামারির হাত থেকে নিজের শিশুকে নিরাপদে রাখতে তাদের ঘরের বাইরে বের হতে দিচ্ছেন না অভিভাবকরা। এমনকি পাড়ার অন্য সহপাঠীদের সাথেও মেশা হচ্ছে না শিশুদের। একসময় এসব শিশুরা দিনে প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষার পাশাপাশি সহপাঠীদের সাথে সময় কাটাত। কেউ কেউ ব্যক্তিগত শিক্ষকের কাছেও পড়ত। বিকেলে খেলাধুলা কিংবা সৃজনশীল কাজ হিসেবে ছবি আঁকা, গান শেখাসহ নানা কাজে লিপ্ত থাকলেও তারা এখন অলস সময় যাচ্ছে। তাই দিনের অধিকাংশ সময়ই তারা পড়ে থাকে ভার্চুয়াল জগতে। এ থেকে শিশুর বিকাশ বাধাগ্রস্ত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এ অবস্থায় শিশুদের মানসিক স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন বিশেষজ্ঞরা। বিশেষজ্ঞদের মতে, মুক্ত আকাশের নিচে দুরন্তপনায় মেতে ওঠা শিশুটি চার দেয়ালের ভেতর বন্দি থাকতে থাকতে মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। দেখা দিতে পারে মানসিক অশান্তি, উদ্বিগ্নতা ও দুশ্চিন্তা। যেটাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় ‘পোস্ট ট্রমাটিক স্ট্রেস ডিজঅর্ডার বলে।’ এমন অবস্তায় শিশুরা মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে যেতে পারে বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন , এই সময়টায় শিশুরা যাতে মানসিক চাপে না ভোগে সেটা লক্ষ্য রাখতে হবে। তাদের ছোটখাটো আবদার পূরণ করা দরকার এই সময়ে । এই সময়টা মা-বাবাকে তাদের প্রতি একটু বেশি মনোযোগ দিতে হবে। দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকার কারণে শিশুরা বাড়ি থেকে বের হতে পারছে না। এ সময় তারা কিছুটা মানসিক চাপে ভুগতে পারে। যদি এক সপ্তাহ স্কুল বন্ধ থাকে তবে সেটা আনন্দের। তবে এখনকার এ সময় বাড়িতে থেকে নানান হাতের কাজ শেখা যেতে পারে ৷

করোনাকালে স্কুল বন্ধ থাকায় শিশুরা বাড়ির বাইরে বের হতে পারছে না। বন্ধুদের সাথে মিশতে পারছে না। সব ধরণের বিনোদন কেন্দ্র বন্ধ। তারা বর্তমানে ঘরবন্দি। এসময় অভিভাবকদের উচিত তাদের সাথে সবসময় ভালো ব্যবহার করা তাদের কে বেশি করে সময় দেয়া l