Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘বিবেকের ডাকে’ এবার রাজপথে নামবে বিজেপি

1 min read


।।ময়ুখ বসু ।।

একুশের বিধানসভা নির্বাচনের মাঠে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস যেমন একরত্তি জমি বিরোধীদের ছাড়তে নারাজ, তেমনি নির্বাচনের মাঠে রাজ্যের অন্যতম বিরোধী দল বিজেপি রাজ্যের শাসক দলকেও বিন্দুমাত্র জমি ছাড়তে রাজি নয়। প্রতিবছর স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিন উপলক্ষ্যে তৃণমূল রাজ্যজুড়ে নানা কর্মসূচী পালন করে। এমনকী বিবেক মেলা থেকে শুরু করে ওইদিন নানা কর্মসূচী থাকে রাজ্যের শাসক দলের। সেখানে দাঁড়িয়ে এবারে স্বামী বিবেকানন্দের জন্মদিনে কোমর বেঁধে নামতে চলেছে গেরুয়া শিবির। বিবেকানন্দের জন্মদিন পালনের লাইম লাইট যাতে একা তৃণমূল শুষে নিতে না পারে তারজন্য এবারে ময়দানে নামতে চলেছে বিজেপিও (BJP)। উল্লেখ্য, বারবার রাজ্যের শাসক দলের একাধিক নেতা নেত্রীরা বিজেপি নেতৃত্বের বিরুদ্ধে আঙ্গুল তোলেন সেটা হলো বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের অনেকেই বাংলার সংস্কৃতি এবং কৃষ্টি জানেন না।

এমনকী অনেকে নাকি বাংলার বহু মনীষির নামই জানেন না বলেও অভিযোগ তোলেন তারা। সেখানে দাঁড়িয়ে এবার বিবেকানন্দের জন্মদিনে কলকাতার রাজপথে রীতিমতো ধামাকে দেওয়ার পরিকল্পনা নিতে শুরু করেছে রাজ্য বিজেপি। বিজেপি সূত্রে জানা গিয়েছে, বিবেকানন্দের জন্মদিন উপলক্ষ্যে আগামী ১২ জানুয়ারি ‘বিবেকের ডাকে’ কর্মসূচীর আয়োজন করতে চলেছে রাজ্য বিজেপি (BJP)। যে কর্মসূচীর অন্যতম অংশ হিসাবে থাকবে কলকাতার রাজপথে মেগা শো। আর শো-তে অংশ নেবেন কৈলাশ বিজয় বর্গীয়, মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষ এবং শুভেন্দু অধিকারীরা (Subhendu Adhikari) । বঙ্গ বিজেপি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছে বিবেকের ডাকে তারা এবার পথে নামছেন।

আরো পড়ুন : স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সঙ্গে আছে, নির্বাচনে বড় লড়াই দিতে প্রস্তুত তৃণমূল

বিজেপির যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ (Soumitra Khan) জানিয়ে দিয়েছেন, ১২ জানুয়ারি সকালে কলকাতার শ্যামবাজার পাঁচমাথার মোড়ে নেতাজী মূর্তির পাদদেশ থেকে একটি শোভাযাত্রা বের করা হবে, যা শেষ হবে বিবেকানন্দ রোডে স্বামীজির বাড়িতে। পাশাপাশি ওইদিন কলকাতার শ্রমদান কর্মসূচীর সূচনা করা হবে। যা পরে জেলায় জেলায় ছড়িয়ে দেওয়া হবে। এই কর্মসূচীর মাধ্যমে মূলত বিজেপি নেতারা বিভিন্ন ক্লাব, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে যেমন যুক্ত করার পরিকল্পনা রয়েছে তেমনি পরিকল্পনা রয়েছে অনাথ আশ্রম এবং বৃদ্ধাশ্রমে যাওয়ারও। মূলত এই ধরনের কর্মসূচীর মূল লক্ষ্যই হলো একুশের বিধানসভা ভোটের আগে জনসংযোগ বৃদ্ধি করা।

রাজনৈতিক মহল মনে করছেন, এতোদিন ধরে বাংলার বিভিন্ন মনীষিদের জন্মদিন এবং মৃত্যুদিন পালন করার রেওয়াজ শুরু করেছিলেন রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের নেতৃত্বরা। সেখানে দাঁড়িয়ে ভোটবাজারে এবার বাংলার মনীষিদের জন্মদিন পালনে ততপরতা দেখাতে শুরু করেছে রাজ্য বিজেপিও। ২৩ জানুয়ারি নেতাজীর জন্মদিনেও মোদি ভার্চুয়াল সভাতে যোগ দিতে পারেন বলে জানা যাচ্ছে। ফলে এবারে ভোটের বাজারে তৃণমূল যাতে গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে বাংলার কৃষি সংস্কৃতি জানে না বলে অভিযোগ তুলে আসছে সেই অভিযোগের প্রত্যুত্তর দেওয়ার পন্থা নিতে শুরু করেছে রাজ্য বিজেপি। একইসঙ্গে বাংলার মনীষিদের পাথেয় করেই মানুষের কাছে পৌছে যাওয়ার কৌশল নিচ্ছে গেরুয়া শিবির।