মুকুলের গড়ে বিজেপিতে ফাটল!


।। প্রথম কলকাতা ডেস্ক ।।


২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে রাজ্যে নিজেদের ঘর গোছানোর কোনও খামতি রাখতে চাইছে না বিজেপি। সবদিক থেকে বাংলার মাটিতে রাজনৈতিক আক্রমণের ঘুঁটি তারা সাজাতে আরম্ভ করে দিয়েছে। কিন্ত বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের এতো পরিকল্পনা এবং বাংলা দখলের ছকের মাঝেই বাংলায় মাঝে মধ্যেই প্রকাশ্যে ফুটে উঠছে বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্ধ। মাত্র একদিন আগে উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বসিরহাটে প্রকাশে আসে বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দল।

বসিরহাট মহাকুমার বসিরহাট সাংগঠনিক জেলার সভাপতি তারক ঘোষের বিরুদ্ধে প্রকাশ্য গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব দেখাতে শুরু করেন যুব মোর্চা সাধারণ সম্পাদক ও নেতাকর্মীরা। অভিযোগ ওঠে যুব মোর্চার নেতা কর্মীরা কর্মীসভায় হেনস্থা, ভাঙ্গচুর, মারধোর এবং অফিসে তালা ঝুলিয়ে দেয়।এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই ফের একই জেলায় বিজেপির গোষ্ঠী কোন্দল প্রকাশ্যে এলো বিজেপির ব্যারাকপুর জেলা কমিটিতে।

এই ব্যারাকপুরে কিছুদিন আগে বিজেপির নয়া কমিটি তৈরি হয়েছিলো। যে কমিটি ২০২১ সালের বিধানসভা নির্বাচনের আগে কাজ শুরু করে দেয়। কিন্ত সেই কাজে গতি নেওয়ার আগেই ওই কমিটির বিরুদ্ধে পোষ্টার পড়লো কাচরাপাড়া স্টেশন চত্বরে। সোমবার সকালে স্টেশন চত্বরের বিভিন্ন দেওয়ালে পোষ্টার সেটে ওই কমিটিতে স্থান পাওয়া নেতাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে বলা হয়, ওই কমিটির বিজেপি নেতারা কেউ লিগ্যাল ইল লিগ্যাল মিলিয়ে চারটি পরিবার পুষছেন, কেউ চিট ফান্ড কান্ডে জেল খাটা আসামী, কেউ বালি মাফিয়া,

আরো পড়ুন : মমতার পতনের রাস্তা কোথায়, জানালেন লকেট

কেউ এলাকার নামি গুন্ডা, আবার কেউ মার্ডার কেসের আসামী। যদিও এই পোষ্টার কে বা কারা মেরেছেন সেই বিষয়ে কিছু উল্লেখ করা হয়নি। তবে এই বিষয়ে স্থানীয় বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, শাসক দলের নেতা কর্মীরাই অভিসন্ধিমূলকভাবে বিজেপির বদনাম করার জন্য এই পোষ্টার লাগিয়েছে। তবে মজার বিষয় হলো, এই কাচরাপাড়া মুলত বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের গড় বলে পরিচিত।

সেক্ষেত্রে কে বা কারা এই সাহস দেখালো তা নিয়ে ধন্দে গেরিয়া শিবিরের একাংশই। অন্যদিকে, এই ঘটনায় এলাকাত শাসক শিবির অর্থাৎ তৃণমূলের স্থানীয় নেতৃত্ব সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, এই ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের কোনও যোগসাজস নেই। তাঁদের অভিযোগ, বিজেপির নিজেদের গোষ্ঠীদ্বন্ধ দিকে দিকে ফুটে উঠছে, এখানেও তারই একটা প্রকাশ মাত্র। তৃণমূল নেতাদের সাফ জবাব, তৃণমূলের কোনও নেতা কর্মীরা বিজেপি নিয়ে মাথা ঘামায় না।