Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

টাকা নিয়ে দরদাম করবেন, যারা যে ভাষা বোঝে তাই করতে হবে, দাওয়াই অভিষেকের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

যারা যে ভাষা বোঝে, তাদের সঙ্গে সেটাই করতে হবে। এভাবেই বিজেপিকে শিক্ষা দিতে হবে। বৃহস্পতিবার আলিপুরদুয়ার জেলার কুমারগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে প্রচারে গিয়ে দলের কর্মী-সমর্থকদের এমন দাওয়াই দিলেন তৃণমূল যুব সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, ” বিজেপি সব কিছু টাকা দিয়ে কিনতে চায়। কোটি কোটি টাকা খরচ করে। আপনাদের টাকা দিতে আসবে। ৫০০ দিতে এলে ১০০০ টাকা চাইবেন। আর ১০০০ দিতে এলে ৫০০০ টাকা চাইবেন। দরদাম করে নেবেন। তারপর ভোটের বাক্সে ওদের ছুঁড়ে ফেলে দেবেন।

২ মে যখন ফলপ্রকাশ হবে তখন বিজেপি সর্ষেফুল দেখবে। ওরা যে ভাষা বোঝে, সেই ব্যবহারটাই করতে হবে”। সেইসঙ্গে অভিষেক অভিযোগ করে বলেন, ” বিজেপি মানুষের আপদ বিপদে পাশে থাকে না। আপনারা বিজেপিকে ভোট দিয়ে জিতিয়ে এখান থেকে সাংসদ করেছেন। কিন্তু কোনও দিন শুনেছেন সংসদে গিয়ে আলিপুরদুয়ার বা কুমারগ্রামের কথা বলছেন? ওরা আপনাদের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। বিজেপি একটিও প্রতিশ্রুতি পালন করেনি। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যা যা বলেছেন সব করে দেখিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর মন কি বাত শুধু শোনা যায়, চোখে দেখা যায় না। এই নির্বাচনে তাই জবাব দিতে হবে ওদের”।

চা- বলয়ে জনসভা করতে গিয়ে সেখানকার শ্রমিকদের কথা তুলে ধরেছেন অভিষেক। তিনি বলেন, ” চা শ্রমিকদের মজুরি বাড়িয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁদের জন্য বাড়ি তৈরি করে দিয়েছেন। বিজেপি লোকসভা নির্বাচনের আগে বলেছিল চা বাগান ওরা অধিগ্রহণ করবে। কিন্তু করেনি। ওরা সবাই জুমলাবাজ নেতা। লক্ষ লক্ষ টাকা দামের পাজামা পাঞ্জাবি পরেন। কিন্তু মানুষের কাজ করেন না। সেটা শুধু করে আপনাদের দিদি। সাধারণ ভাবে জীবন যাপন করেন। তাই আপনারা সিদ্ধান্ত নিন কাদের ভোট দেবেন”। এর পাশাপাশি ফের এদিন স্বাস্থ্যসাথী কার্ডের উপকারিতার কথা তুলে ধরেন অভিষেক। তিনি বলেন, ” বিজেপি যে আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের কথা বলছে সেটা সবাই পাবেন না।

কিন্তু স্বাস্থ্যসাথী কার্ড সবাই পাবেন। ধনী-দরিদ্র কেউ বাদ পড়বেন না। এছাড়া বিনামূল্যে রেশন আপনারা পাচ্ছেন। আগামীদিনে দুয়ারে রেশন পাবেন। বিজেপি রেশন নয়, খালি ভাষণ দেয়। এগুলি মনে রেখে আপনারা ভোট দেবেন”। গত লোকসভা নির্বাচনে আলিপুরদুয়ার জেলায় ভরাডুবি হয়েছিল তৃণমূলের। তাই হারানো জায়গা পুনরুদ্ধার করতে চেষ্টার ত্রুটি করছে না তৃণমূল। তাই কুমারগ্রামে গিয়ে প্রচারে অভিষেক সবচেয়ে বেশি জোর দিয়েছেন পরিষেবা প্রদানের ওপর।