বর্ষার পরেই রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তর চায় বাংলাদেশ

1 min read

।। চট্টগ্রাম ব্যুরো, বাংলাদেশ।।

বর্ষা মৌসুমের পর রোহিঙ্গাদের প্রাথমিকভাবে ভাসানচর দ্বীপে স্থানান্তর শুরু করার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেছেন পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন।ভাসানচরে এক লাখ রোহিঙ্গা থাকার ব্যবস্থা করতে সরকার সেখানে অবকাঠামো উন্নয়নে প্রচুর বিনিয়োগ করেছে বলেও জানান তিনি ।

সোমবার(২৪ আগস্ট) ‘রোহিঙ্গা সমস্যা: পশ্চিমা বিশ্ব, এশিয়ান ও দ্বিপক্ষীয় পটভূমি’ বিষয়ক এক ওয়েবিনারে পররাষ্ট্র সচিব আরও বলেন, সম্প্রতি বঙ্গোপসাগরে থেকে উদ্ধার হওয়া ৩০৬ জন রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে আশ্রয়ে দেয়া হয়েছে এবং তারা সেখানে ভালোভাবেই আছেন।জাতিসংঘের দল, মানবাধিকারকর্মী ও গণমাধ্যমের লোকদের জন্য সরকার পরিদর্শনের ব্যবস্থা করবে।

মায়ানমারে অনুকূল পরিবেশের অভাব এবং দুটি ব্যর্থ প্রত্যাবাসন প্রচেষ্টার কথা তুলে ধরে মাসুদ বিন মোমেন বলেন,রোহিঙ্গারা রাখাইনের পরিবেশ নিয়ে এখনো স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করছে না।সেখানের পরিবেশের পরিবর্তন আনতে এবং রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসন বাস্তবায়নে মায়ানমারকে বোঝানোর জন্য বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এ ওয়েবিনারের আয়োজন করে কানাডিয়ান হাইকমিশন ও নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের সাউথ-এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব পলিসি অ্যান্ড গভর্নেন্সের (সিআইপিজি) সেন্টার ফর পিস স্টাডিজ (সিআইপিজি)।

এতে আরও বক্তব্য রাখেন- মালয়েশিয়ার সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. সৈয়দ হামিদ আলবার, বাংলাদেশে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত আর্ল আর মিলার, নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটি, বাংলাদেশের সাউথ এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব পলিসি অ্যান্ড গভর্নেন্সের (এসআইপিজি) সিনিয়র ফেলো মো. শহিদুল হক, বাংলাদেশে নিযুক্ত কানাডার হাইকমিশনার বেনোই প্রেফনটে