।। শর্মিলা মিত্র ।। কলকাতা ।।

করোনা অতিমারি আমাদের প্রত্যেককেই শিখিয়েছে, শেখাচ্ছে নতুন করে বাঁচতে। করোনা, কোভিড ১৯ এই শব্দগুলির পাশাপাশি আমাদের জীবনের সঙ্গে জড়িয়ে গিয়েছে লকডাউন, আনলক, নিউ নর্ম্যাল এই শব্দগুলিও। এই শব্দগুলি হয়তো আমরা খুব একটা শুনিনি। কিন্তু এখন এই শব্দগুলিই চালিত করছে আমাদের প্রত্যেকের জীবনকে।

আমাদের প্রত্যেকের জীবনের সঙ্গে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িয়ে গিয়েছে এই শব্দগুলি। প্রত্যেক দিনই যেন আমাদের কাছে নতুন করে বাঁচা। আর এই সবকিছুর সঙ্গে আমরা তরুণ প্রজন্ম খাপ খাইয়ে নিতে পারলেও কোথাও যেন অসহায় হয়ে পড়েছেন আমাদের বাবা-মা, কাকু-কাকিমা, দাদু-ঠাকুমারা। বা এক কথায় বলতে গেলে প্রবীণরা।

আর এই করোনা আবহের মধ্যে প্রবীণদের সাহায্য করার জন্য এগিয়ে এসেছে B2LCARE সংস্থাটি। B2LCARE সংস্থাটির পুরো নাম Back to life অর্থাৎ জীবনে ফেরা। বলা যেতে পারে জীবনের আলোয় ফেরা। আর সত্যিই প্রবীণদের আলোর দিশাই দেখাচ্ছে এই সংস্থা।

এই সংস্থার ডিরেক্টর শুভ্রদীপ গাঙ্গুলি জানান, করোনা আবহের শুরুর পর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় তারা দেখেন যে চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করা থেকে শুরু করে হাসপাতালে যাওয়া বা কোন ওষুধের দরকার পড়লে দোকানে না গিয়ে অনলাইনের মাধ্যমে কিনতে গিয়ে কতটা সমস্যার সম্মুখীন হন প্রবীণ নাগরিকরা।

আর সেখান থেকেই তাদের জন্য তাদের সমস্যা সমাধানের জন্য এগিয়ে আসে B2LCARE সংস্থাটি। প্রবীণ নাগরিক বা যারা ডিজিটালি যোগাযোগ করতে পারেন না তাদের জন্য দুটি helpline number চালু করেন তারা।
নম্বর দুটি হল- ৯৯০৩৭১৩৩৩০/৮৩৩৪৮৩৩৩০৬

এই নম্বরে ফোন করলেই বিনা পয়সায় হাসপাতালের বেডের খবর থেকে শুরু করে ওষুধ এনে দেওয়া থেকে অনলাইনে চিকিৎসকদের সঙ্গে যোগাযোগ করিয়ে দেওয়া হোক বা অ্যম্বুলেন্স ডেকে দেওয়া সব ক্ষেত্রেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয় বি২এলকেয়ার (B2LCARE)।

করোনা রোগীর পাশাপাশি সবরকমের হেল্থকেয়ারের জন্যই সকলের পাশে রয়েছে
বি২এলকেয়ার। বিভিন্ন ক্লাব বা বিভিন্ন আবাসনের পাশাপাশি এই উৎসবের মরশুমে জনসাধারণের সকলের জন্য তাদের সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতে চায় এই সংস্থাটি। শুধুমাত্র করোনা নয় সবরকম শারীরিক প্রতিবন্ধকতার ক্ষেত্রেই সকলের সাহাযার্থে সকলের পাশে থাকতে চায় B2LCARE সংস্থাটি।