আইয়ুব বাচ্চু ছিলেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা

1 min read

।। ফাইজা রাফা, বাংলাদেশ ।।

আইয়ুব বাচ্চু বাংলাদেশের জনপ্রিয় ব্যান্ড তারকা ৷১৯৬২ সালের ১৬ আগস্ট চট্টগ্রামের এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহন করেন নন্দিত ব্যান্ড তারকা ও গিটার লিজেন্ড আইয়ুব বাচ্চুর।

আইয়ুব বাচ্চু নিজেকে পরিচয় দিতে ভালোবাসতেন প্রথমত একজন গিটারিস্ট হিসেবে। তারপর গায়ক।আইয়ুব বাচ্চু একই সাথে গায়ক ও লিড গিটারিস্ট হিসেবে বহু মানুষের প্রিয় শিল্পী।

সংগীতের আঙিনায় আইয়ূব বাচ্চু একাধারে গীতিকার, সুরকার, সংগীত পরিচালক এবং গায়ক হিসেবে ছিলেন। মূলত রক ঘরানার কণ্ঠের অধিকারী হলেও আধুনিক গান, ক্লাসিকাল সংগীত এবং লোকগীতি দিয়েও শ্রোতাদের মুগ্ধ করেছেন তিনি।

আইয়ূব বাচ্চুর কণ্ঠ দেয়া প্রথম গান হারানো বিকেলের গল্প। আইয়ূব বাচ্চুর গাওয়া জনপ্রিয় কিছু গান সেই তুমি কেন অচেনা হলে, রূপালি গিটার, রাত জাগা পাখি হয়ে, আমি বারো মাস তোমায় ভালবাসি ,কষ্ট পেতে ভালবাসি, মাধবী, ফেরারি মন, এখন অনেক রাত, ঘুমন্ত শহরে, বার মাস, হাসতে দেখ, এক আকাশের তারা, উড়াল দেব আকাশে ইত্যাদি।

আইয়ূব বাচ্চুর প্রথম প্রকাশিত একক অ্যালবাম রক্তগোলাপ। আইয়ূব বাচ্চুর সফলতার শুরু দ্বিতীয় অ্যালবাম ময়না’র মাধ্যমে। তিনি বেশ কিছু বাংলা ছবিতে প্লে-ব্যাকও করেছেন। এছাড়া অসংখ্য অ্যালবামেও কণ্ঠ দিয়েছেন আইয়ুব বাচ্চু। এর মধ্যে ময়না, কষ্ট, প্রেম তুমি কষ্ট, দুটি মন, সময়, একা, পথের গান, ভাটির টানে মাটির গানে, জীবন, সাউন্ড অব, সাইলেন্স, রিমঝিম বৃষ্টি অ্যালবামগুলো উল্লেখযোগ্য।

বাংলাদেশে ব্যান্ড সঙ্গীত জনপ্রিয় করে তুলতে যাদের ভূমিকা রয়েছে আইয়ুব বাচ্চু তাদের একজন।১৯৭৮ সালে ফিলিংস ব্যান্ডের মাধ্যমে তার প্রফেশনাল মিউজিক ক্যারিয়ারের শুরু।৯০ এর দশকের শুরুতে তিনি তাঁর নিজের ব্যান্ড এলআরবি প্রতিষ্ঠা করেন।তার আগে তিনি আর এক জনপ্রিয় ব্যান্ড সোলস এর সাথেও দীর্ঘদিন যুক্ত ছিলেন।

২০১৮ সালের ১৮ অক্টোবর সকালে সবাইকে কাঁদিয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছেন তিনি।তার গানের মাঝে তিনি এখনো বেঁচে আছেন , কোটি ভক্তের মনে ৷