ক্রিকেটার, সঞ্চালক,প্রশাসকের পর কী রাজনীতি?জন্মদিনে চর্চায় সৌরভ

1 min read

।। রাজীব ঘোষ।।

সৌরভ গাঙ্গুলী কামব্যাক ম‍্যান। প্রচুর প্রতিকূলতাকে অগ্রাহ্য করে হার না মানা জেদ সঙ্গী করে। স্রোতের বিরুদ্ধে সাঁতার কাটা। সৌরভের জন্মদিনে গুরুত্বপূর্ণ কিছু দিক রয়েছে। 1990 সালের 8 জুলাই 18 বছরের জন্মদিন এসেছিল রঞ্জি চাম্পিয়ন হওয়ার পর। 1996 সালের 8 জুলাই চব্বিশ বছরের জন্মদিন এসেছিল লর্ডসে টেস্ট অভিষেক শতরানে নজর করার পর। 2000 সালের 8 জুলাই ভারতীয় দলের অধিনায়ক হিসেবে 28 বছরের জন্মদিন স্মরণীয় হয়েছিল।

2016 সালের 8 জুলাই প্রথম বার সিএবি প্রেসিডেন্ট হিসেবে 44 বছরের জন্মদিন পালন হয়েছিল2020 সালের 8 জুলাই 48 বছরের জন্মদিন ব্যতিক্রমী সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। বিসিসিআই প্রেসিডেন্টের তাজ। পরের বছর এই দিনে কি 22 গজের দুনিয়া থেকে রাজনীতির অঙ্গনে পা রাখবেন বাঙালির দাদা সৌরভ গাঙ্গুলী কে কি মাথায় অন্য শিরোপা নিয়ে অন্য ময়দানে দেখা যাবে? তিনি কি হয়ে উঠবেন রাজ্যে বিজেপির মুখ?

রাজ্যের প্রধান বিরোধীদল পরের বছরে বিধানসভা নির্বাচনে কি তাকে সামনে রাখতে পারে? রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা চলছে। এরকম পরিস্থিতিতে সৌরভ গাঙ্গুলীর স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলী বললেন, এখনো পর্যন্ত সৌরভ সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা নেই। যদি রাজনীতিতে যোগ দেয় তাহলে আশা করছি হি উইল ফিনিশ দা টপ। যে খেলাই খেলুক না কেন তাতেই সেরা। গ্রেগ চ্যাপেল জমানার কথা মনে করালেন তার স্ত্রী। নেতৃত্ব থেকে যখন অপসারিত জাতীয় দল থেকে বিতাড়িত সৌরভ ফেরার লড়াইয়ে দৌড়ে বেড়িয়েছেন ঘরোয়া ক্রিকেটের মঞ্চে।

পাঁচতারা হোটেলের স্বাচ্ছন্দ্যে অভ্যস্ত মানিয়ে নিয়েছেন ছোট শহরের সাদামাটা হোটেলে। নিয়েছেন ফিটনেসের চ্যালেঞ্জ। সৌরভের নিজের উপর বিশ্বাস রয়েছে বরাবর। এটা সৌরভের ক্ষেত্রে শুধু ক্রিকেটের মধ্যে প্রযোজ্য নয়। জীবনের অন্য ক্ষেত্রেও মানিয়ে নিতে পারে। সৌরভ গাঙ্গুলীর বাড়িতে জন্মদিনের রাজনৈতিক আলোচনার প্রবেশাধিকার নেই। করোনাভাইরাস এবং লকডাউন এর জন্য জন্মদিন একান্তই ঘরোয়া ভাবে পালন হচ্ছে।

তবে তা সত্ত্বেও তার রাজনীতিতে আসার সম্ভাবনা কোথাও-না-কোথাও থেকেই যাচ্ছে। সৌরভ কে কি রাজনীতিতে আসলে শীর্ষপদে দেখা যাবে । তার স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলী বললেন, সৌরভ যে রাজনীতিতে আসছে এটা বলছি না। যদি রাজনীতিতে যোগ দেয় শীর্ষেই থাকবে। জীবনের অন্যান্য ক্ষেত্রে সবসময় শীর্ষে থেকেছে। যে কাজটা করে তাতে নিচের দিকে থাকলেও ঠিক উপরে চলে আসে। কারো পিছনে থাকতে পারে না। তাই আবারও বলছি রাজনীতি নিয়ে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি সৌরভ গাঙ্গুলী।

সৌরভ গাঙ্গুলী অজস্র মনে রাখার মতো ইনিংস উপহার দিয়েছেন। সৌরভের ছবি হয়ে উঠেছিল ব্রিটিশ সাম্রাজ্যবাদের বিরুদ্ধে প্রতীকী। লর্ডসে জার্সি খুলে ওড়ানোর ছবি চোখে ভেসে ওঠে ।ব‍্যাট হাতে সৌরভ গাঙ্গুলির সেটা দাদাগিরি এর সেরা মুহূর্ত ।সৌরভ বলতেন, জাতীয় দলের হয়ে খেলার ক্ষমতা তার রয়েছে। সেই বিশ্বাসেই ফেরার লড়াইয়ে মনের মধ্যে জ্বলন্ত মশাল হয়ে পথ দেখিয়েছিল। ক্রিকেটার, ধারাভাষ্যকার, প্রশাসক, টিভির সঞ্চালক, সৌরভ বিভিন্ন ভূমিকায় এসেছেন।

এবার কি সামনে আইসিসি প্রেসিডেন্ট। ক্রিকেট প্রশাসক হিসেবে পরের স্টেশন। সৌরভ গাঙ্গুলী টিম ইন্ডিয়ার ক্যাপ্টেন ছিলেন ।এখন বোর্ড প্রেসিডেন্ট। তার স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলী সৌরভ গাঙ্গুলীর জন্মদিনে বাইশ গজের দাদাগিরির নেপথ্যের রসায়নের খোঁজ দিলেন। সৌরভ গাঙ্গুলীর জন্মদিনে তার জীবনের প্রত্যেকটি স্তর অতিক্রম করে আসার পর রাজনীতির জল্পনা আরো একবার শুরু হয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।