করোনার কথা ভেবে অ্যাডমিশনে সুবিধা কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিতে

।। প্রথম কলকাতা ।।

কোভিড ১৯ এভাবে মানুষের জীবন বদলে দেবে, দু’দিন আগেও বোধহয় ভাবা সম্ভব ছিল না।
এই অস্থির অন্ধকার সময়ে একেকজনের জীবনে একেকভাবে প্রভাবিত করেছে। সাধারণ চাকুরিজীবি, ব্যবসায়ীদের জীবনে একরকম সমস্যা। আবার যদি ছাত্র ছাত্রীদের অবস্থা বিশ্লেষণ করতে হয়, তাহলে তা ভয়াবহ।

মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিকের ফলাফল প্রকাশিত হওয়ার পরেই মধ্য কিংবা নিম্ন মেধার ছাত্র ছাত্রীরা জীবনে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর জন্য কারিগরি প্রশিক্ষন নিতে আগ্রহী হয়ে পড়েন। কিন্তু করোনার প্রভাবে সব কিছু ওলট পালট হয়ে গিয়ে ছাত্র ছাত্রীরাও বুঝতে পারছেন না, কী করবেন।

অন্যান্যবার অনেক আগেই মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিকের ফল প্রকাশ হয়ে যাওয়ায় বিভিন্ন কারিগরি প্রশিক্ষন কলেজগুলি তাদের কোর্স অনেক আগেই শুরু করে দেয়। এবার সব কিছুই ওলট পালট হয়ে গিয়েছে।

যেমন, দ্য জর্জ টেলিগ্রাফ ট্রেনিং ইনস্টিটিউট। লকডাউন সমস্যায় যেহেতু সব কিছু পিছিয়ে গিয়েছে, এদের তাই এপ্রিল–মে’র সেশনটাও পিছিয়েছে। এখন লক্ষ্য নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে নতুন সেশনের পঠন পাঠন শুরু করা। অর্থাৎ এই মুহূর্তে যাঁরা মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক পাশ করেছে, তারা গিয়ে ভর্তি হতে পারবে জর্জ টেলিগ্রাফের নতুন এই সেশনে।

লকডাউনের দোহাই দিয়ে দ্য জর্জ টেলিগ্রাফ কিংবা অন্য সংস্থাগুলি বসে থাকেনি কেউই। শুরুতে পরিস্থিতি নিয়ে যে টেনশনটা শুরু হয়েছিল, ধীরে ধীরে অনলাইনে ক্লাস করিয়ে পুরো ব্যাপারটা আয়ত্ব করে নিয়েছে সবাই। তবে এখন নতুন কোর্সের অ্যাডমিশনের জন্য অবশ্য সরাসরি সেন্টারে গিয়ে অ্যাডমিশনের পাশাপাশি অনলাইন অ্যাডমিশনের সুবিধাও খোলা রাখা হয়েছে।

এরসঙ্গে দ্য জর্জ টেলিগ্রাফ ট্রেনিং ইনস্টিটিউট অন্য একটি গুরুত্বপূর্ন সিদ্ধান্তও নিয়েছে। একে তো সংস্থার একশো বছর। তার উপর করোনা আক্রান্ত দেশ। ফলে নতুন অ্যাডমিশন নিতে আসা ছাত্র ছাত্রীদের অসুবিধার দিকটাও ভাবছেন সংস্থার আধিকারিকরা। অ্যাডমিশনের সময় সারা বছরের ফিস একবারে দিয়ে দিলে এমনিতেই একটা ছাড় পাওয়া যায়। কিন্তু এবার সংস্থার শতবর্ষ। তারপর করোনা নামক মহামারি তো আছেই। তাই চালু হয়েছে দ্য জর্জ টেলিগ্রাফ শতবর্ষ স্কলারশিপ।

মানে কোনও ছাত্র যদি অ্যাডমিশনের সময় পুরো কোর্স ফিস জমা দেয়, সেক্ষেত্রে স্কলারশিপ বাবদ আরও ২০ শতাংশ ছাড় দেবে জর্জ টেলিগ্রাফ ট্রেনিং ইনস্টিটিউট। শুধু ভাবনা নয়, ইতিমধ্যেই এই বিপুল ছাড় দিয়ে অ্যাডমিশন শুরু করে দিয়েছে।