Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

নন্দীগ্রামে পুনঃগণনা নয়, জানিয়ে দিল নির্বাচন কমিশন

1 min read

||শর্মিলা মিত্র||

২০২১ বিধানসভা নির্বাচনের সবচেয়ে হেভিওয়েট কেন্দ্র হিসেবে উঠে এসেছিল নন্দীগ্রামের নাম।  একদিকে স্বয়ং তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অন্যদিকে তাঁরই বিপরীতে তাঁরই একসময়ের সঙ্গী শুভেন্দু অধিকারীর লড়াইয়ের স্বাক্ষী থেকেছে নন্দীগ্রামবাসী সহ গোটা বাংলা।

রবিবার ভোটগণনা শুরু হওয়ার পর থেকেই প্রত্যেকের নজর ছিল নন্দীগ্রামের দিকে। সকাল থেকেই বলা যায় রীতিমতো সাপ-লুডো খেলা চলে। কখনও এগিয়ে যান শুভেন্দু অধিকারী, তো কখনও আবার এগিয়ে যান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিকেল সাড়ে পাঁচটা নাগাদ এএনআই সূত্রে জানা যায়, ১২০০ ভোটে নন্দীগ্রাম আসনে জয়লাভ করেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কিন্তু কিছুক্ষণের মধ্যেই বদলে যায় সেই ছবি। জানানো হয়, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন, নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে জয়ী হয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।  এরপরই পুনর্গণনার দাবি জানানো হয় তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে। পাশাপাশি প্রথমে তৃণমূল নেত্রীকে জয়ী ঘোষণা হওয়ার পরও ফলাফল কীভাবে উল্টে গেল, সেটা নিয়ে যেমন প্রশ্ন তুলতে শুরু করে তৃণমূল নেতৃত্ব। তেমনই এই ফলাফলে কারচুপির আশঙ্কায় আদালতে যাওয়ার কথা জানান স্বয়ং মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এরই মধ্যে এবার ভোটের ফল প্রকাশ পাওয়ার প্রায় ৪৮ ঘণ্টার মাথায় কমিশনের পক্ষ থেকে বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানানো হল, নন্দীগ্রামে পুনর্গণনা আপাতত কোনওভাবেই সম্ভব নয়। কারণস্বরূপ ব্যাখ্যা করে জানানো হয়েছে যে, রিটার্নিং অফিসারের সিদ্ধান্তই এক্ষেত্রে চূড়ান্ত। সংবিধানের সংশ্লিষ্ট ধারার কথা উল্লেখ করে এমনটা করা সম্ভব না বলেও ওই বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

তবে এর পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেস যদি চায়, তাহলে হাইকোর্টে আবেদন করতে পারে বলেও নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়। এসবের পাশাপাশি বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয় যে, সোমবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামের রিটার্নিং অফিসারের যে প্রাণ সংশয়ের আশঙ্কার কথা জানিয়েছিলেন। কমিশনের পক্ষ থেকে সেই অভিযোগও খারিজ করে দেওয়া হয়।
পাশাপাশি মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিককে নির্দেশ দেওয়া হয় যে, গণনার পর আগামী ৪৫ দিন যেন ইভিএম এবং ভিভিপ্যাট পর্যাপ্ত সুরক্ষা বলয়ে রাখা হয়।

প্রসঙ্গত, সোমবার কালীঘাটে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক বৈঠক থেকে নন্দীগ্রামের বিষয় তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নন্দীগ্রামে চক্রান্ত হয়েছে বলে দাবি করার পাশাপাশি প্রকাশ্যে আনেন রিটার্নিং অফিসারের একটি মেসেজ।  সেই মেসেজে জানা যায়, পুনর্গণনা প্রসঙ্গে রিটানিং অফিসার লিখেছেন, ‘প্লিজ ক্ষমা করে দিন। আমি যদি রিকাউন্টিংয়ের নির্দেশ দিই তবে আমাকে খুন করা হবে। রীতিমতো হুমকি দেওয়া হচ্ছে। আমার পরিবার ধ্বংস করা হবে।’ আর তারপরই এই মেসেজকে কেন্দ্র করে রীতিমতো তোলপাড় শুরু হয় রাজ্যে। বিজেপি, নির্বাচন কমিশন ও শুভেন্দু অধিকারীকে কার্যত তুলোধোনা করেন সকলে।