Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

মেসেজিং অ্যাপগুলিকে নিতে হবে লাইসেন্স, নয়া টেলিকম বিলে প্রস্তাব সরকারের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

ইন্টারনেট কলিং ও মেসেজিং পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থাগুলিকে টেলিকম লাইসেন্সের আওতায় আনার প্রস্তাব দিল সরকার। সম্প্রতি নতুন টেলিকম বিল (Telecom Bill) ২০২২ এর খসড়া জারি করেছে কেন্দ্র। তাতেই এমন সিদ্ধান্তের ইঙ্গিত পাওয়া গিয়েছে। বর্তমানে যে সব ওভার দ্য টপ (OTT) প্ল্যাটফর্ম রয়েছে যেমন Whatsapp, Google Duo এবং Zoom – এই সংস্থাগুলি কোনও লাইসেন্স ছাড়াই মেসেজিং ও ইন্টারনেট কলিং পরিষেবা দিয়ে থাকে। যা নিয়ে আপত্তি তুলেছিল ভারতের টেলিকম সংস্থাগুলি।

তাদের দাবি ছিল, উক্ত সংস্থাগুলিকেও তাদের মতো লাইসেন্স ও ফি কাঠামোর অধীনে আনা হোক। বিষয়টি বিবেচনা করে কেন্দ্রীয় সরকার। এই খসড়ায় বলা হয়, টেলিযোগাযোগ পরিষেবা এবং টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্কগুলির জন্য সেই সত্তাকে একটি লাইসেন্স নিতে হবে। পাশাপাশি এও বলা হয়, সরকার মনে করলে টেলিকম ও ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারীগুলির জরিমানা মুকুবও করতে পারে।

যদি কোনও টেলিকম বা ইন্টারনেট পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থা তার লাইসেন্স সমর্পণ করে তাহলে মন্ত্রকের তরফে ফি ফেরত দেওয়ারও প্রস্তাব রাখা হয়েছে। ২০ অক্টোবর মধ্যে সংশ্লিষ্ট অংশীদারদের থেকে এই বিষয়ে পরামর্শ চেয়েছে কেন্দ্র।

বর্তমানে টেলিকম বাজারে Jio, Airtel এবং Vi এর একচেটিয়া আধিপত্য। কিন্তু এই প্রত্যেকটি সংস্থাকেই পরিষেবা দেওয়ার আগে নির্দিষ্ট লাইসেন্স ও ফি জমা দিতে হয় সরকারকে। যেখানে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপগুলিকে তা করতে হয় না। টেলিকম সংস্থাগুলির অভিযোগ, এর ফলে তারা আর্থিক ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন। এই বোঝা কমাতেই সরকারের কাছে এই আবেদন রাখে তারা।

নতুন টেলিকম বিলের খসড়ায় আরও বলা হয়েছে, সংবাদদাতাদের কিছু কিছু ক্ষেত্রে এই বিল থেকে ছাড় দেওয়া হলেও সব জায়গায় পাওয়া যাবে না। জরুরি অবস্থার ক্ষেত্রে বা ভারতের জননিরাপত্তা, সার্বভৌমত্ব, অখণ্ডতা, নিরাপত্তার স্বার্থে, বিদেশী রাষ্ট্রের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক, জনশৃঙ্খলা বা অপরাধের প্ররোচনা রোধ করার জন্য এই বিলে কোনও ছাড় দেওয়া হবে না।

Categories