Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Dilip Ghosh : ‘কে কখন ভেতরে যাবে ঠিক নেই, চোর নিয়ে দল চলছে’, ফের তীব্র কটাক্ষ দিলীপের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

রাজ্য জুড়ে বর্তমানে একাধিক দুর্নীতির পর্দা ফাঁস হয়েছে । সেই কাণ্ডে নাম উঠে এসেছে তাবড় তাবড় সব নেতা মন্ত্রীদের । যার ফলে ইতিমধ্যে রাজ্যে সিবিআই এবং ইডির অতি সক্রিয়তা নজরে এসেছে। যা নিয়ে প্রথম থেকেই বেজায় আপত্তি লক্ষ্য করা গিয়েছিল শাসকদলের। তাদের দাবি ছিল, বিজেপি নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য ই ডি- সি বি আই এর মত কেন্দ্রীয় এজেন্সি গুলিকে কাজে লাগাচ্ছে। আর এবার অতি সক্রিয় ই ডি-সি বি আইকে নিয়ে বিধানসভায় সরকারি প্রস্তাব আনতে তৎপর রাজ্য সরকার। এই প্রসঙ্গে নিজের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ।

ED-CBI এর বাড়বাড়ন্ত, প্রতিবাদ তৃণমূলের

রাজ্যে ইডি- সিবিআই সহ কেন্দ্রীয় যে তদন্তকারী এজেন্সিগুলি রয়েছে তাদের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার বিধানসভায় আনতে চলেছে নিন্দাপ্রস্তাব। আজ অর্থাৎ ১৯ সেপ্টেম্বর সেই প্রস্তাব আনবে তৃণমূল এমনটাই জানা গিয়েছে। এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, ” তৃণমূলের দাদাগিরি সমস্ত শেষ হয়ে গিয়েছে। এখন গোয়ালে ঢুকে গিয়েছে। রাস্তায় নেমে আন্দোলন করা এইসব হল , এখন আর রাস্তায় আন্দোলন নেই। কারণ কে কখন ভেতরে যাবেন ঠিক নেই । চোর নিয়ে দল চলছে । সেই জন্য মেজরিটি রয়েছে। তাই বিধানসভায় একটি প্রস্তাব দেবে । তাতে কী যায় আসে ? গণতন্ত্রের অপমান হচ্ছে”।

নন্দীগ্রাম সমবায় সমিতির ভোটে জয়ী বিজেপি

গতকাল অর্থাৎ রবিবার নন্দীগ্রামে সমবায় কৃষি উন্নয়ন সমিতির নির্বাচন ছিল সেখানে সকাল থেকেই পরিস্থিতি উত্তপ্ত থাকলেও ফলাফল ঘোষণার পর ছবিটাই বদলে যায়। যে সমবায় সমিতির দখল তৃণমূলের হাতে ছিল তা এগারোটি আসনে জয়লাভ করার পর চলে আসে বিজেপির হাতে। মাত্র একটি আসন তৃণমূলের। এই বিপুল জয় নিয়ে দিলীপের বক্তব্য, ” আমরা ২০১৯ এর পর জিততে শুরু করেছিলাম । তারপর শুরু হল গা-জোয়ারি এবং একচেটিয়া ভোট । আবার সাধারণ মানুষ সাহস ফিরে পাচ্ছেন । মালদায় হাই মাদ্রাসা ভোটে ব্যাপক হিংসা হয়েছে। এরা শান্তিতে ভোট করতে পারে না । শান্তিতে ভোট হলে জিততে পারে না”।

মদনের দাওয়াইয়ের পাল্টা

তৃণমূল বিধায়ক মদন মিত্র সভামঞ্চ থেকে বিজেপিকে উদ্দেশ্য করে বলেছিলেন , এবার বিজেপিকে দাওয়াই দেওয়ার সময় এসে গিয়েছে। তা্ঁর এই মন্তব্য প্রসঙ্গে পাল্টা জবাব দিতে শোনা গেল দিলীপ ঘোষকে। তিনি বলেন, ” এরকম অনেক ডায়লগ শুনেছি। যে নিজে সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারেন না তিনি কি দাওয়াই দেবেন? আমাদেরও হাত আছে। মানুষ এখন বুঝে গেছেন। ১৩ তারিখে সমস্ত শক্তি লাগিয়েও বিজেপিকে আটকাতে পারেননি। বাংলার মুড এখন অন্য। মানুষ তাদের জিতিয়ে পাঠিয়েছে তাই দায়িত্ব পালন করুন নইলে কান ধরে টেনে ওখান থেকে নামিয়ে দেবে”।

দিলীপকে নিয়ে চিন্তায় ফিরহাদ-কুণাল

মন্ত্রীর ফিরহাদ হাকিম থেকে শুরু করে কুণাল ঘোষ শাসক শিবিরের হলেও তাদের কথায় বারবার বিরোধী দলের দিলীপ ঘোষের কথা উঠে এসেছে। তাকে নিয়ে বলা যায় চিন্তার সুরই শোনা গিয়েছে তাদের কথায়। এই নিয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, “যতদিন দিলীপ ঘোষ সেখানে নেতা ছিল ততদিন তাদের ঘুম হতো না । আর এটা ঠিক ববি হাকিমের কোন প্রোমোশন হচ্ছে না, মেয়র আছেন মন্ত্রী আছেন। কিন্তু দিলীপ ঘোষের প্রমোশন হয়েছে । আর দিলীপ ঘোষ লড়াই করে নিজের জায়গা বানাতে জানে। বানিয়ে নিয়েছে বলেই আজ চর্চা হচ্ছে । তাই দিলীপ ঘোষকে নিয়ে ভাবার দরকার নেই। দলকে নিয়ে ভাবুন”।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories