Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

বঙ্গ বিজেপির ফুলটাইম পর্যবেক্ষকের পদে মঙ্গল পান্ডেই কেন? শাহের গোপন কৌশল জানুন

1 min read

৷৷সুচিত্রা রায় চৌধুরী৷৷

নবান্ন অভিযান তো অনেকটাই লক্ষ্যপূরণ হল বঙ্গবিজেপির৷ এবার নেক্সট পরিকল্পনা কি? অবশ্য একটা অভিযানেই বঙ্গ রাজনীতিতে কার্যত শোরগোল যে বিজেপি ফেলে দিতে পেরেছে সেটা অস্বীকার করা যাচ্ছে না৷ বর্তমানে সব রাজনৈতিক খবরকেই ছাপিয়ে যাচ্ছে নবান্ন অভিযান ঘিরে বিজেপি বনাম তৃণমূলের তরজা৷ কখনও মুখ খুলছে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়৷ তো ধরে ধরে তার জবাব দিতে আসরে নেমে পড়েছে বিজেপির পুরো টিম৷ সুকান্ত মজুমদার, দিলীপ ঘোষ, শুভেন্দু অধিকারী৷ এমনকি শুধু তাই নয়৷ এসএসকেএমে দাঁড়িয়ে তৃণমূল সাংসদের বক্তব্যের পর সাংবাদিক বৈঠক করতে বসে যান বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বও৷ বিশ্লেষকেরা বলছেন, এই অ্যাকশন থেকে একটা বিষয় ধারণা করাই যাচ্ছে৷ যে টিম সুনীল বনশল তৈরি করে দিয়েছেন বাংলা বিজেপিতে৷ সেই টিমের একটা কোনও নেতারকে নিশানা করা হলে বাকিরা কিন্তু ছেড়ে কথা বলবেন না৷ ঠিক সেটাই হয়েছে৷ টার্গেট করা হয়েছিল শুভেন্দু অধিকারীকে, বিজেপির কর্মীদের৷ ঝাঁঝালো স্বরে কিন্তু তার পাল্টা দিলেন বাকি নেতারাও৷

রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন এই তরজা এখন কিছুদিন চলবে৷ কিন্তু তারপর? পঞ্চায়েত ভোটের আগে ঘুঁটি কিভাবে সাজাচ্ছে পদ্মশিবির৷ সূত্রের খবর, পরবর্তী অভিযানের প্ল্যান ইতিমধ্যেই হয়ে গিয়েছে৷ যা খোলসা করেছেন সুকান্ত মজুমদার৷ কি সেই কর্মসূচী? কিভাবে তৈরি হচ্ছে তার নীলনকশা? সে প্রসঙ্গে পরে আসছি তবে আগে একটা বিষয়ে নজর দেওয়াটা দরকার৷ বাংলায় পূর্ণ পর্যবেক্ষক করে দক্ষ অভিজ্ঞ, পোড় খাওয়া রাজনৈতিক নেতা মঙ্গল পান্ডেকে৷ কেন বেছে বেছে পান্ডেকেই পাঠালেন নাড্ডা৷ এক্ষেত্রে কোন স্ট্র্যাটেজি কাজ করছে দিল্লির?

তথ্য বলছে এক্ষেত্রে একটু ফ্ল্যাসব্যাকে যাওয়ার প্রয়োজন৷ বিহার রাজনীতিতে এক সময়ে সুশীল মোদীর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ছিলেন মঙ্গল পান্ডে। পরবর্তী সময়ে সুশীল বিহার বিজেপিতে শক্তিহীন হলে শিবির বদলান পান্ডে। সূত্র বলছে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভূপেন্দ্র যাদবের অতি ঘনিষ্ঠ পাণ্ডে। আর বিজেপির কেন্দ্রীয় রাজনীতিতে ভূপেন্দ্র যাদব আবার অমিত শাহের আস্থাভাজন বলেই পরিচিত। রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা বলছেন, এখানেই আসল কৌশল৷ বহু দিন ধরেই মোদী-অমিত শাহরা পশ্চিমবঙ্গ দখলে মরিয়া। সূত্রের মতে, সেই কাজ কতটা এগোচ্ছে, তা একেবারে খাস লোকের মাধ্যমে নজরদারি চালাতেই মঙ্গলকে পূর্ণ দায়িত্ব দিয়ে পাঠানো হয়েছে। যাতে ভালো মন্দ সব খবরাখবরে কোনও ফিল্টার না লাগিয়ে তা একেবারে পৌঁছে যায় শাহের কাছে , কোন বিশ্লেষকেরা বলছেন, কৈলাস বিজয়বর্গীয়র কাঁধে যখন এই দায়িত্বটা ছিল তখন কিন্তু অনেক ভুল তথ্য দিল্লির কাছে যেত যার ফলে দিল্লি বিজেপি ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে ভেবেছিল এক কিন্তু হয়েছিল আরেক৷

উত্তরপ্রদেশ, হিমাচলপ্রদেশ, কর্ণাটক, ঝাড়খন্ডে এসব রাজ্যে সংগঠনের শক্তি বাড়িয়ে খেলা ঘুরিয়ে দেওয়ার ক্রেডিট রয়েছে মঙ্গল পান্ডের৷ এদিকে বিশ্লেষকেরা বলছেন, বঙ্গ বিজেপি নেতারা খুব ভালোভাবে বুঝতে পারছেন, তৃণমূলের মতো ক্যাডারভিত্তিক দলের সঙ্গে মোকাবিলা করতে প্রয়োজন পাল্টা শক্তিশালী সংগঠন। যা গড়ে তোলার প্রয়োজন রয়েছে একেবারে বুথ স্তর থেকে। এদিকে মঙ্গল পাণ্ডেও নীতিগত ভাবে শক্তিশালী বুথভিত্তিক সংগঠন গড়ায় বিশ্বাসী। আর সংগঠন শক্তিশালী করার এই সবথেকে সঠিক সময়৷ এই মুহূর্তে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগে চাপে রয়েছে রাজ্যের শাসকদল। এই সময়ে দলের আক্রমণের ধার বাড়াতেই পূর্ণ সময়ের জন্য মঙ্গল পাণ্ডেকে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে দল। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের রীতিমত এলোমেলো হয়েছে যাওয়া রাজ্য বিজেপিকে একজোট করে তৃণমূলের বিরুদ্ধে আক্রমণ বাড়াতে পান্ডেই সফল হবেন বলেই আশা করছেন শাহ-নাড্ডা৷ অবশ্য বাকিটা তো বোঝা যাবে ধীরে ধীরেই৷

এবার আশা যাক বিজেপি পরবর্তী কর্মসূচীর কথায়৷ বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বলে দিয়েছেন, এখনও পর্যন্ত যা পরিকল্পনা৷ তাতে কালীপুজোর পর আবারও রাস্তায় নামতে চলেছে বিজেপি৷ সুকান্ত মজুমদারের কথায়, ‘সামনেই বিশ্বকর্মা পুজো। তারপর দুর্গাপুজো, লক্ষ্মী পুজো, কালীপুজো ও দীপাবলি। তাই এই উৎসবের দিনে পথে নেমে শাসক দলের বিরুদ্ধে এখনই আর কোনও রাজনৈতিক কর্মসূচি নেওয়া না হলেও শাসক দলের দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিজেপির প্রচার জারি থাকবে। কালী পুজো মিটলেই কলকাতা সহ জেলায় জেলায় পথে নেমে ‘জেল ভরো’ অভিযানের দিনক্ষণ চূড়ান্ত করা হবে৷ কিন্তু প্রশ্ন উঠছে ততদিনে এই উদ্যমে ভাটা পড়বে না তো৷ ঝিমিয়ে পড়বেন না তো বিজেপির জেলাস্তরের নেতা কর্মীরা৷ অবশ্য ওয়াকিবহাল মহলের দাবি, সেটা সম্ভবত আর হতে দেবে না গেরুয়া শিবিরের মাথারা৷ ভোকাল টনিকে তারা অবশ্যই চাঙ্গা রাখবে কর্মীদের৷ কারণ তারাই দলের আসল সম্পদ৷ অবশ্যই এখনই বোঝা যাচ্ছে না জেলায় জেলায় নবান্ন অভিযানের আফটার এফেক্ট কিছু হতে পারে কিনা৷

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories