Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভারত সফরে আওয়ামি লিগের লাভ হল না ক্ষতি? হাসিনার সঙ্গে দেখা না হওয়ায় আবেগঘন মমতা

1 min read

।। রিমিতা রায়।।

ভারত সফরে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা হলো না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের।”বোন” মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে আবেগঘন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী । মমতা -হাসিনার সাক্ষাৎ হলে, প্রভাব পড়ত আওয়ামি লিগের ভোট ব্যাঙ্কে?ঘরোয়া রাজনীতিতে একধাপ এগিয়ে থাকতেনআওয়ামি লিগ নেত্রী ?কী বলছে দুই বাংলার রাজনৈতিক মহল?

চার দিনের সফরে ভারতে পা রাখেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ভারতে এসেই প্রথম বক্তব্যে এই দেশের সঙ্গে বাংলাদেশের আন্তরিকতার প্রসঙ্গ তুলেছিলেন শেখ হাসিনা। ভারতকে বন্ধু বলেই সম্মান জানিয়েছেন হাসিনা। বলেছিলেন, ভারত বাংলাদেশের বন্ধু। বন্ধুত্ব দিয়ে সব সমস্যার সমাধান হয়, সফরের প্রথম দিন থেকেই একদম কনফিডেন্ট ছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনার আশা বিফলে যায়নি, এমনটাই বলছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। হাসিনার সফরে ভারত বাংলাদেশের ৭টি মৌ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। এই মৌ-চুক্তির মধ্যে রয়েছে কুশিয়াড়া নদীর জলবণ্টন সমস্যার সমাধান, রয়েছে রেলচুক্তিও। যাতে আগামী দিনে ভারতের প্রতিষ্ঠানে বাংলাদেশের রেলকর্মীরা ট্রেনিং নেওয়ার সুবিধা পান। ভারতের তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রের সুবিধা যাতে বাংলাদেশও পায় সেটার ক্ষেত্রেও আলোচনা হয়েছে।

এই সফরে টানটান কর্মসূচির মধ্যেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ভুলে যাননি শেখ হাসিনা। সোমবার দিল্লিতে নৈশভোজে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকদের মুখোমুখি হতেই তুললেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রসঙ্গ। শেখ হাসিনা বললেন, “মমতা আমার বোনের মতো। ভেবেছিলাম দিল্লি এলে দেখা হবে। কোনও কারণে এ বার সেটা হল না। তবে তাঁর সাথে তো যে কোনও সময়েই আমার দেখা হতে পারে!”

দিল্লিতে দেখা করার আশা জানিয়ে এর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চি‌ঠিও দিয়েছিলেন শেখ হাসিনা। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীকে ওই চিঠিতে তিনি পদ্মা সেতু দেখার আমন্ত্রণও জানিয়েছেন। ওপার বাংলার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা না হওয়ায় আবেগঘন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। বৃহস্পতিবার দলীয় সভায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, হাসিনাজি দিল্লিতে এসেছেন। আমার সঙ্গে ওনার ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুবই ভালো। পুজোর সময় আমি ওনাকে চিঠি দি। উনি আমাকে শাড়ি পাঠান, আম পাঠান ,ইলিশ পাঠান”।

এ বছরও শেখ হাসিনার সফরের সঙ্গে ভারতে এসেছে পদ্মার ইলিশ। পশ্চিমবঙ্গের বাজারেও ছেয়ে গেছে রূপলি শস্যে। শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা না হওয়ায় তাই দুঃখ প্রকাশ করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা না হওয়ার জন্য, কেন্দ্রের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ উগরে দিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। “আমি শুনেছি উনি আমার সঙ্গে দেখা করার জন্য ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু দিল্লি তা শোনেনি। এই প্রথম দেখলাম বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী দিল্লিতে এসেছেন, অথচ বাংলাকে বাদ দেওয়া হল।” শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা না হওয়ার জন্য কেন্দ্রকেই দায়ী করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পশ্চিমবঙ্গের থেকে বাংলাদেশের প্রত্যাশা রয়েছে। ঢাকা চায় তিস্তা জলবন্টন চুক্তিতে সই করুক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এহেন পরিস্থিতিতে মমতা-হাসিনা বৈঠক হলে তিস্তা জল বন্টন চুক্তি নিয়ে কথা হওয়ার সম্ভাবনা থাকতো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও শেখ হাসিনার। নির্বাচনের আগে বাংলাদেশের ঘরোয়া রাজনীতিতে আওয়ামি লিগ নেত্রী অনেকটাই এগিয়ে যেতেন বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

২০০৯ সাল থেকে এখনও পর্যন্ত টানা সরকার চালাচ্ছেন শেখ হাসিনা। বাংলাদেশের ইতিহাসে আর কোন দল এতো সময় ধরে একটানা দেশ পরিচালনার দায়িত্ব পালন করতে পারেনি। বাংলাদেশে আওয়ামি লিগের এই জয়জয়কারের পেছনে কিন্তু অবদান রয়েছে সেদেশের হিন্দু সম্প্রদায়েরও। বাংলাদেশে হিন্দুদের বলা হয় আওয়ামি লিগের ভোট ব্যাঙ্ক। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাৎ হলে, ওপার বাংলার হিন্দুদের আবেগ আওয়ামি লিগ নেত্রী হাসিনার উপর অনেকটাই বেড়ে যেতে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। যার প্রভাব পড়ত আগামী নির্বাচনের ভোট ব্যাংক এ। এমনটাই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories