Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

দশমীতে মায়ের বিসর্জনের পর করে নিন এই সহজ কাজটি, অর্থলাভে বাধা দূর হবে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

বিজয়া দশমীর দিনটি মন খারাপের দিন হলেও, তিথি হিসেবে এই দিনটির গুরুত্ব ব্যাপক। আর শাস্ত্রে কিন্তু এই দিনটি মোটেই দুঃখের দিন নয়। এই দিনে মহিষাসুরকে বধ করে অশুভ শক্তির বিনাশ ঘটিয়েছেন মা দুর্গা। আবার এই দিনেই লঙ্কেশ্বর রাবণের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়লাভ করেছেন শ্রী রামচন্দ্র। আর এই দিনেই শেষ হয়েছিল পাণ্ডবদের অজ্ঞাতবাস। তাই তিথি হিসেবে এই দিনটির গুরুত্ব ব্যাপক। খুব সহজ কাজ আছে, যা এই দিনে আপনি যদি করে নিতে পারেন, তবে আপনার ভাগ্যকেও আপনি বদলে ফেলতে পারবেন।

অত্যন্ত সহজ উপায়ের দ্বারা এই দিনে নিজের ভাগ্যের উন্নতি আপনি নিজেই করতে পারবেন। খুব সহজ টোটকা বা পদ্ধতি অবলম্বন করলেই আপনার জীবনের দীর্ঘদিন ধরে আটকে থাকা কোন কাজ আপনি সুসম্পন্ন করে ফেলতে পারবেন। ভাগ্যকে বদলে ফেলতে পারবেন। সর্বোপরি মা দুর্গার কৃপা, সারা বছরের জন্য আপনি লাভ করতে পারবেন। তাহলে দেরি না করে এবার জেনে নিন এই সহজ কাজটির কথা।

বিজয়া দশমীর দিনে মায়ের বিসর্জন হয়ে যাবার পর একটি পাত্রে কিছুটা চন্দন, অল্প পরিমাণে সিঁদুর, অল্প কর্পূর, একটি পান ও অল্প গো চোনা নিয়ে ভালো করে বেটে নিয়ে একটি মিশ্রণ তৈরি করুন। এই মিশ্রণটিকে ঠাকুরের আসনের পাশে রেখে সারারাত একটি প্রদীপ জ্বালিয়ে রাখুন। ঘরের ভেতরের কোন পবিত্র স্থানেও এই মিশ্রণটিকে পাত্র সমেত আপনি রেখে দিতে পারেন। তবে, মনে রাখবেন এই প্রদীপটি কিন্তু সারারাত আপনাকে জ্বালিয়ে রাখতে হবে। পরদিন সকালে উঠে স্নান করার পর এই মিশ্রণটির টিকা আপনি কপালে ছোঁয়ান । এরকম পরপর ৭ দিন ধরে স্নানের পর এই টিকা আপনি কপালে স্পর্শ করান। এতে আপনার অর্থভাগ্য ভালো হবে। অর্থভাগের বাধা দ্রুত কেটে যাবে।

আরেকটি কাজও আপনি করতে পারেন। যা হলো দশমী পূজোর পর মায়ের ঘর থেকে একটি পদ্মফুল তুলে বাড়িতে আনুন। মায়ের বিসর্জন হয়ে যাবার পর এই ফুলটি একটি হলুদ কাপড়ে মুড়ে বাড়ির দক্ষিণ-পূর্ব কোনে ঝুলিয়ে রেখে দেবেন। এতেও আপনার ভাগ্যের বাধা কেটে যাবে। তবে এক্ষেত্রে একটি বিষয় মনে রাখতে হবে। যা হল, যে মন্দির বা পূজো মণ্ডপ থেকে আপনি এই ফুল সংগ্রহ করবেন, সেখানে যেন সমস্ত নিয়ম মেনে পুজো হয়। নতুবা এতে তেমন ফল পাবেন না।

এই দিনে একটি কালো কুকুরকে বেশনের লাড্ডু খাওয়ালেও ভাগ্যের বাধা কেটে যায়। এক্ষেত্রে বেশনের লাড্ডু যদি আপনি নিজে বানিয়ে খাওয়াতে পারেন, তাহলে বেশি ভালো। আর যদি নিজের বানানো সম্ভব না হয়, তবে তা দোকান থেকে কিনে আনুন। কিন্তু লক্ষ্য রাখতে হবে সেটি যেন শুদ্ধ থাকে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories