Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

শুধু মহিষাসুর বধ নয়, আরও একাধিক বিজয়ের স্বাক্ষী হল বিজয়া দশমী

।। প্রথম কলকাতা।।

বিজয়া দশমী মানেই দূর্গা পুজোর পরিসমাপ্তি। আবার এক বছরের জন্য অপেক্ষা। তাই বিজয়া দশমীর দিনে সকলেরই মন খারাপ থাকে। কিন্তু শাস্ত্রে এই দিনটিকে মোটেই বিষাদের দিন হিসেবে কিন্তু ব্যাখ্যা করা হয়নি। এই দিনটি বিজয় লাভের দিন। সেজন্য দিনটির নাম হল বিজয়া দশমী। এই দিনে মহিষাসুরের সঙ্গে যুদ্ধে বিজয় লাভ করেন মা দুর্গা। কিন্তু এই দিন শুধু মা দুর্গাই বিজয় লাভ করেছেন তা নয়, এই দিনে রাবণের বিরুদ্ধে যুদ্ধে জয়লাভ করেছেন শ্রী রামচন্দ্র। আবার এই দিনেই শেষ হয় পান্ডবদের অজ্ঞাতবাসের। তাই তো শাস্ত্রে এই দিনটির গুরুত্ব এতটা ব্যাপক।

আশ্বিন মাসের শুক্লা দশমী তিথিতে মহিষাসুরকে বধ করেছিলেন মা দুর্গা। এই দিনেই তিনি বিজয় লাভ করেছেন। আর সেই বিজয়কে চিহ্নিত করতে দশমী শব্দের আগে বিজয়া শব্দটির ব্যবহার। আবার, এই দিনেই রাবনকে বধ করেছেন শ্রী রামচন্দ্র। রামচন্দ্রের পত্নী সীতা মাতাকে হরণ করেছিল লঙ্কার রাজা রাবণ। রাবণের সঙ্গে যুদ্ধ অবতীর্ণ হয়েছিলেন শ্রী রামচন্দ্র। আশ্বিন মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী, অষ্টমী, নবমী ও দশমী – এই চার দিন ধরে চলে রাবণের সঙ্গে রামচন্দ্রের যুদ্ধ। দশমী তিথিতে রাবনকে বধ করে যুদ্ধে জয়লাভ করেন শ্রী রামচন্দ্র।

সেই ঘটনাকে স্মরণ করে এই দিনে উত্তর ও মধ্য ভারতের বিভিন্ন স্থানে দশেরা উৎসব পালন করা হয়। দশেরা শব্দের উৎপত্তি সংস্কৃত শব্দ দশহর থেকে। এই শব্দ দশানন রাবণের মৃত্যুকেই চিহ্নিত করে। এই দিনের রাবণকে বধ করেছিলেন রামচন্দ্র। এরপর অযোধ্যা প্রত্যাবর্তন করেন রামচন্দ্র, মাতা সীতা ও লক্ষণ। তাঁদের প্রত্যাবর্তন উপলক্ষে দীপাবলি উৎসব পালন করা হয়ে থাকে।

আবার, বিজয়া দশমীর দিনটির মহাভারতেও বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। কৌরবদের কাছে পাশা খেলায় পরাজিত হয়ে পান্ডবেরা ১২ বছর বনবাস ও ১ বছর অজ্ঞাতবাস গ্রহণ করেছিলেন। অজ্ঞাতবাস শুরু করার আগে বিরাট রাজ্যের সামনে একটি শমীবৃক্ষের কোটরে তাঁদের সমস্ত অস্ত্র তাঁরা লুকিয়ে রেখে যান। এই বিজয়া দশমীর দিনেই তাঁরা গাছের কোটর থেকে অস্ত্র বের করেন ও নিজেদের আসল পরিচয় দেন।

যে কারণে ভারতের বিভিন্ন স্থানে এই দিনে অস্রের পূজো প্রচলিত আছে। আর শমীবৃক্ষের কোটর থেকে অস্ত্র তুলে নেবার অর্থই হল অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে বিজয়ের প্রথম ধাপ। কারণ এরপরই ঘটনাক্রমে কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ। আর কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধ মানেই তো অশুভ শক্তির নাশ। অর্থাৎ, বিজয়া দশমীর দিনটি একটি নয় একাধিক বিজয়কে চিহ্নিত করছে। এজন্যই এর নামের আগে বিজয়া শব্দটির ব্যবহার।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories