Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

জীবনের সব সমস্যা দূর করবে অষ্টমীর অঞ্জলি! জানুন এই দিনের গুরুত্ব

।। প্রথম কলকাতা ।।

মা দুর্গা হলেন শক্তির দেবী। অসুরদের হাত থেকে স্বর্গকে রক্ষা করেছিলেন তিনি। অনায়াসে হারিয়ে দিয়েছিলেন অসুরাজ মহিষাসুরকে। এমনি থেকেই প্রতিমাসের শুক্লপক্ষের অষ্টমী তিথিতে দুর্গাষ্টমী ব্রত পালন করা হয়। সেখানে শারদীয়া দুর্গাপুজোয় অষ্টমী তিথির একটু বেশি গুরুত্ব থাকবে, এটাই স্বাভাবিক। মহিলা পুরুষ উভয়ই উপবাস রেখে দেবীর সামনে অঞ্জলি দেন। অনেকেই অষ্টমী তিথিতে আমিষ খাবার থেকে শত হস্তে দূরে থাকেন। বাঙালি সংস্কৃতি এবং মননে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে রয়েছে এই অষ্টমী তিথির গুরুত্ব। এই তিথির সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে বিভিন্ন প্রচলিত বিশ্বাস। মনে করা হয়, অষ্টমী তিথিতে ভক্তি ভরে দেবী দুর্গার পুজো করলে জীবনের সমস্ত ঝামেলা থেকে অনায়াসে রেহাই পাওয়া যায়।

পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, অসুরদের অত্যাচার দিনের পর দিন বৃদ্ধি পেতে থাকে। পাশাপাশি অসুরারা নিজেদেরকে একসময় এতটাই শক্তিশালী ভাবতে শুরু করে যে তারা সিদ্ধান্ত নেয় স্বর্গ দখল করবে। অসুর রাজ মহিষাসুরের নির্দেশনায় অসুর সেনাবাহিনী স্বর্গ আক্রমণ করে। সেই সময় বিড়াম্বনায় পড়েন বহু দেবতা। অসহায় দেবতাগণ সাহায্য চাইতে ছুটে যান ত্রিদেবের কাছে। তখন শক্তিরূপে সৃষ্টি হয় দেবী দুর্গার। প্রত্যেক দেবতা বিশেষ বিশেষ অস্ত্র দিয়ে সাজিয়েছিলেন দেবীকে, যিনি অসুরদের বধ করেন। দেবীকে অস্ত্রে সাজানোর এই দিনকে অষ্টমী হিসেবে পালন করা হয়।

অষ্টমী তিথির গুরুত্ব

মনে করা হয়, এই দিন নিষ্ঠা ভরে দেবীর সামনে অঞ্জলি দিলে জীবনের সমস্ত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়াও যারা অর্থকষ্টে ভুগছেন কিংবা শত্রুদের জ্বালাতনে বিরক্ত তারা এই দিন উপবাস পালন করলে সুফল পান। দুর্গাপুজোর অষ্টমীর দিন খুব সকালে ঘুম থেকে উঠে শুদ্ধ বস্ত্রের মণ্ডপে যাবেন। সেখানে অঞ্জলীর আগে একটি ডালায় অবশ্যই মা দুর্গার উদ্দেশ্যে ফুল, মিষ্টি এবং ফল নিবেদন করবেন। দেবী দুর্গার চরণে সাধ্যমত নতুন বস্ত্র এবং সাজসজ্জা দ্রব্য অর্পণ করতে পারেন। মন্ত্র উচ্চারণের মাধ্যমে মায়ের অঞ্জলি দেওয়ার পর নিজের মনের কথা মায়ের উদ্দেশ্যে জানাতে ভুলবেন না।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories