Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভয়ঙ্কর দুই অসুর বধ করেছিলেন দেবী! সন্ধি পুজোতেই রয়েছে গা ছমছমে কাহিনী

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

দুর্গাপুজোর প্রত্যেক দিনই বিশেষ বিশেষ নিয়ম থাকে, যা বাঙালির সংস্কৃতির সঙ্গে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে রয়েছে। যার মধ্যে অন্যতম হল সন্ধি পুজো এবং কুমারী পুজো। অষ্টমী এবং নবমীর সন্ধিক্ষণে জাঁকজমক ভাবে সন্ধি পুজোর আয়োজন করা হয়। সন্ধি পুজোর বিশেষ একটি তিথি থাকে। পঞ্জিকা অনুযায়ী সময় মেনে দেবীর উদ্দেশ্যে সন্ধি পুজো করা হয়। এক্ষেত্রে দেখা হয় চান্দ্রমাস ক্যালেন্ডার। যদিও প্রতিবছর সময়ের পরিবর্তন হয়। সন্ধি পুজো হল সন্ধ্যার প্রতীক। যে সময় সন্ধি পুজো করা হয় সেই সময় নাকি দেবী বধ করেছিলেন চণ্ড এবং মুণ্ড নামক দুই অসুরকে।

মা দুর্গা মহিষাসুরকে বধ করেছিলেন মহিষাসুরমর্দিনী হিসেবে। কিন্তু দেবী দুর্গার আরাধনের পিছনে রয়ে গিয়েছে আরেকটি অসুর বধের কাহিনী। অষ্টমী তিথির শেষ আর নবমী তিথির শুরু, এই সন্ধিক্ষণে দেবীর উদ্দেশ্যে আয়োজন করা হয় সন্ধি পুজোর। পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, এই সময়েই দেবী দুর্গা চণ্ড এবং মুণ্ড নামে দুই ভয়ঙ্কর অসুরকে বধ করেন। অষ্টমী তিথি শেষ হয়ে যাওয়ার ২৪ মিনিট এবং নবমী তিথি শুরু হওয়ার প্রথম ২৪ মিনিটকে বলা হয় সন্ধিক্ষণ। দেবী যে রূপে এই দুই অসুরকে হত্যা করেছিলেন সেই রূপে গায়ের রং ছিল সোনালী। তিনি সেই সময় হলুদ শাড়ি পরেছিলেন। দশ হাতে ছিল দশটি অস্ত্র।

মহিষাসুরের সঙ্গে যখন দেবী যুদ্ধে ব্যস্ত, তখন পিছন থেকে তাঁকে আক্রমণ করেন মহিষাসুরের দুই সাকরেদ চণ্ড এবং মুণ্ড। এক্ষেত্রে যুদ্ধনীতির নিয়ম মানা হয়নি। তাই দেবী অত্যন্ত রেগে যান এবং রাগে তাঁর মুখের রং নীল হয়ে গিয়েছিল। তারপরেই তিনি ধারণ করেন চামুণ্ডা রূপ। এইরূপে তিনি হাতের খড়গ্ দিয়ে চণ্ড এবং মুণ্ডের মাথা কেটে ফেলেছিলেন। প্রতিবছর নিয়ম করে সন্ধি পুজোর সময় দেবীর চামুণ্ডা রূপের পুজো করা হয়।

এই সন্ধি পুজোর নৈবেদ্যের সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে বিশেষ কয়েকটি নিয়ম। এই সময় দেবীর সামনে জ্বালানো হয় ১০৮টি মাটির প্রদীপ এবং অর্পণ করা হয় ১০৮টি পদ্ম। পাশাপাশি থাকে লাল রংয়ের গোটা ফল। এছাড়াও অনেকে মায়ের সামনে শাড়ি এবং গহনা অর্পণ করেন। বারোয়ারী পুজো কিংবা পারিবারিক পুজোতে যে যার সামর্থ্য মত দেবীর সামনে নানান সাজ-সজ্জার আয়োজন করেন। তবে ১০৮ টি পদ্ম আর ১০৮টি প্রদীপ জ্বালানো, এটি একটি চিরাচরিত নিয়ম। এর কোনো ব্যতিক্রম হয় না।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories