Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

এবার পুজোয় রাতভর নিশ্চিন্তে ঘুরবে বর্ধমানবাসী, নিরাপত্তার স্বার্থে নয়া উদ্যোগ জেলা পুলিশের

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

পুজোর হাতে গুনে আর ৩০ দিনও বাকি নেই। বাঙালির কাছে এর থেকে বড় খুশির খবর কিছু হতে পারে না। তবে বর্ধমানবাসীর জন্য আরও একটি সুখবর। পুজোর মরশুমে রাতভর শহর ভ্রমণ করার ইচ্ছে থাকে অনেকেরই । কিন্তু নিরাপত্তার খাতিরে মনের ইচ্ছে মনেই থেকে যায় । তবে এবার নিশ্চিন্তে নিরাপদে শহরের আনাচে-কানাচে ঘুরতে পারবেন শহরবাসীরা । কারণ পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশের তরফ থেকে এক বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে বর্ধমানবাসীর নিরাপত্তাকে মাথায় রেখে। আর এই উদ্যোগে অন্যতম হলেন বর্ধমান দক্ষিণের বিধায়ক খোকন দাস। এছাড়া ব্যবসায়ী সংগঠনের তরফ থেকেও সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এক্ষেত্রে।

জানা গেল, শহরের নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে আরও আঁটো-সাঁটো করার জন্য এবং শহরের প্রত্যেক বড় রাস্তা থেকে শুরু ছোট গলিতে নজরদারি চালানোর জন্য গোটা শহর জুড়ে লাগানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা। বর্তমানে এই ক্যামেরাগুলি লাগানোর কাজ চলছে শহরের বিভিন্ন রাস্তার মোড় থেকে শুরু করে গুরুত্বপূর্ণ জায়গায়। যে সকল জায়গায় জনসমাগম বেশি হয় সেই সমস্ত জায়গায় প্রথমে লাগানো হচ্ছে এই সিসিটিভি ক্যামেরাগুলি। সেই কাজ পুজোর আগেই শেষ করে দেওয়া হবে বলে মনে করা হচ্ছে । আপাতত শহরে ১৬৯ টি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়ে গিয়েছে। কিন্তু শহর জুড়ে আরো সাড়ে ৩০০ টি ক্যামেরা বসবে বলে জানা গিয়েছে বর্ধমান থানার সূত্রে।

জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কল্যান সিংহ রায় এই প্রসঙ্গে জানান, সিসিটিভি ক্যামেরা লাগালেও সে ক্ষেত্রে যদি মনিটরিং ব্যবস্থা ঠিকঠাক না থাকে তাহলে পরিষেবা দেওয়া যায় না । তার জন্য সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানোর কাজ শেষ হওয়া মাত্রই একটি আলাদা কন্ট্রোল রুম খোলা হবে এবং সেই কন্ট্রোলরুমে এই সিসিটিভি ক্যামেরা গুলির মনিটরিং ব্যবস্থা থাকবে। নতুন মনিটরিং সিস্টেম পুজোর আগেই উদ্বোধন হতে চলেছে বলে জানালেন তিনি । পুজোতে যাতে কোনো রকম অসামাজিক কাজ না ঘটে এবং শহরবাসী নিজেদের নিরাপদ মনে করতে পারেন তার জন্যই এই উদ্যোগ।

অন্যদিকে, বর্ধমান দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক খোকন দাস জানান, তিনি শহরের উন্নয়নের ক্ষেত্রে বিধায়ক কোটার উন্নয়ন তহবিল থেকে জেলা পুলিশকে এই উদ্যোগে সাহায্য করেছেন। ফান্ডিং দিয়েছেন প্রায় ১৫ লক্ষ টাকার । একই সঙ্গে তিনি বর্তমান পুরসভাকেও এই উদ্যোগে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য আবেদন জানান । পুজোর আগেই এই সমস্ত কাজ গুলি শেষ হয়ে যাবে বলে আশা করছেন তিনিও । শহরের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের তরফ থেকেও সোনাপট্টি, সিং দরজা, বড়বাজার, চাঁদনি চক , মিঠাপুকুর সহ বিসি রোড এলাকার নিরাপত্তাকে আরও উন্নত করতে সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। জানা গিয়েছে জেলা পুলিশের নজরদারির বাইরেও বর্ধমান পুরসভার অধীনে আরও বেশ কিছু ক্যামেরা শহরের বিভিন্ন জায়গায় লাগানো হয়েছে পূর্বেই। অর্থাৎ এক কথায় এবার পুজোর চার দিন সারারাত শহর ভ্রমনেও বাধা সৃষ্টি করবে না নিরাপত্তাহীনতা।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories