Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

রেলের জায়গায় দীর্ঘদিনের বসবাস, বসতি উচ্ছেদ নিয়ে ধুন্ধুমার কাণ্ড দক্ষিণেশ্বরে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

দীর্ঘদিন ধরে এই জায়গাতেই বসবাস , এইখানেই জীবন কাটিয়েছেন মা-বাবারা । বর্তমানে তাঁরাও বংশানুক্রমে সেখানেই বসবাস করছেন । কিন্তু তাদের উচ্ছেদের বিষয়টিকে নিয়ে তৎপর হয়ে উঠেছে রেল কর্তৃপক্ষ । তবে এত সহজে জমি ছাড়তে নারাজ তাঁরা । এমনকি বাড়ি ভাঙতে উদ্যত বুলডোজারের সামনে রাস্তার উপরেই শুয়ে পড়তে দেখা গেল সেই বস্তি এলাকার বহু মহিলাকে। বাড়ি ভাঙতে হলে তাদের ওপর দিয়েই চালাতে হবে বুলডোজার , এমনটাই দাবি । এই ধরনের ছবি বুধবার দেখা যায় দক্ষিণেশ্বরের রেল বস্তিতে। রেলের জায়গা দখল করে বসবাস আর সেই বসবাস তুলতে গিয়ে এইভাবে স্থানীয় বাসিন্দাদের প্রতিবাদের সম্মুখীন হতে হয় পুলিশ প্রশাসন সহ রেল কর্তৃপক্ষকে।

জানা যায়, কামারহাটি পৌরসভার দশ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর অরিন্দম ভৌমিক এদিন স্থানীয় বাসিন্দাদের বিক্ষোভে সামিল হন। ওই এলাকার বাসিন্দাদের দাবি, রেলের জায়গা রেল কর্তৃপক্ষ নিতে এলে তা্রা ছেড়ে দিতে রাজি কিন্তু এইভাবে তাদেরকে উঠিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। সন্তান-সন্ততিদের নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছেন তাঁরা সেখানে । এই এলাকা থেকে উচ্ছেদ করলে তাদের আশ্রয় হবে কোথায় ? অন্তত এলাকার সকল মানুষদের জন্য পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করুক সরকার, তবেই তাঁরা রেলের জায়গা স্বেচ্ছায় ছেড়ে দেবেন বলে জানিয়েছেন।

কিন্তু এখনও পর্যন্ত তাদের পুনর্বাসনের ক্ষেত্রে কোন রকম তৎপরতা দেখা যায়নি সরকারের তরফ থেকে । ওই এলাকারই এক মহিলা জানান, সেখানে প্রায় হাজার মানুষের বসবাস । এইভাবে বারবার তাদের ওপর জায়গা ছেড়ে দেওয়ার জন্য অত্যাচার করা হচ্ছে। বিগত দুটি বছর ধরে করোনা সংক্রমণের কারণে কাজ নেই তাদের হাতে। বাড়িতে পরিচারিকার কাজ করে কিংবা দিনমজুরের কাজ করে কোনমতে সংসার চালাচ্ছেন তাঁরা।

এই মত পরিস্থিতিতে যদি মাথার উপর থেকে ছাদটাও সরে যায় তাহলে অথৈ জলে পড়তে হবে তাদেরকে।এদিন পুলিশ প্রশাসনকে সঙ্গে নিয়ে রেল কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে বাড়ি ভাঙার জন্য আনা হয় বুলডোজার। তবে সেই বুলডোজার বসতি উচ্ছেদ করতে আসলে এলাকার সকল মহিলারা একজোট হয়ে প্রতিবাদ জানান। তাঁরা বুলডোজারের সামনে শুয়ে পড়েন এবং দাবি জানান পুনর্বাসন না পেলে কিছুতেই এই জায়গা ছাড়বেন না তাঁরা।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories