Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

প্রয়াত কর্নাটকের খাদ্যমন্ত্রী উমেশ কাট্টি, বন্ধুর মৃত্যুতে শোকাহত বোম্মাই

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে প্রয়াত কর্নাটকের খাদ্যমন্ত্রী উমেশ কাট্টি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬১। মন্ত্রীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাসবরাজ বোম্মাই। টুইট করে মন্ত্রীর পরিবারকে সমবেদনা জানিয়েছেন তিনি। সেইসঙ্গে শোক প্রকাশ করেছেন বিরোধী দলনেতা সিদ্দারামাইয়াও। কর্নাটক সরকার সূত্রে, মঙ্গলবার গভীর রাতে হঠাৎই অসুস্থ বোধ করেন উমেশ কাট্টি। তারপর তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি।

চিকিৎসকদের সমস্ত চেষ্টা বিফলে গিয়েছে। হাসপাতালেই মৃত্যু হয় তাঁর। উল্লেখ্য, মন্ত্রীর বাবা বিশ্বনাথ কাট্টিও হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছিলেন। এদিন খাদ্যমন্ত্রীর মৃত্যুর খবর জানাজানি হতেই শোকের ছায়া নেমে আসে রাজনৈতিক মহলে। সহকর্মীর প্রয়াণে টুইট করে বাসবরাজ বোম্মাই লেখেন, ‘কাট্টি ছিলেন অজাতশত্রু। সবার সঙ্গে তাঁর সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক ছিল’। পাশাপাশি তিনি বলেছেন, তাঁর সঙ্গে খাদ্যমন্ত্রীর বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। জানিয়েছেন, বোম্মাই এবং কাট্টি পরিবারের মধ্যেকার সম্পর্ক ৪০ বছরের।

উমেশ বিশ্বনাথ কাট্টির মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করে সিদ্দারামাইয়া বলেছেন, “বন ও খাদ্য সরবরাহ মন্ত্রী উমেশ কাট্টির মৃত্যুর কথা শুনে খুবই দুঃখিত আমি। মন্ত্রীর পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি”। এদিন প্রয়াত মন্ত্রীর দেহ প্রথমে নিয়ে যাওয়া হয় তাঁর নির্বাচনী কেন্দ্রে‌। জনসাধারণের শেষ শ্রদ্ধার জন্য রাখা হয় সেখানে। এরপর তাঁর মৃতদেহ নিয়ে যাওয়া হয়েছে জন্মস্থান বাগেওয়াড়িতে। সেখানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে।

মাত্র ২৫ বছর বয়সে রাজনীতিতে পা রেখেছিলেন উমেশ কাট্টি। ১৯৮৫-তে বাবা বিশ্বনাথ কাট্টির মৃত্যুর পরে রাজনীতির ময়দানে পা বাড়িয়েছিলেন তিনি। এরপর তাঁকে কখনও পিছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। জনতা দলের সদস্য হিসেবে কর্ণাটক বিধানসভায় প্রবেশ করেন। যোগ দেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে। বেলগাভি বিধানসভা কেন্দ্র থেকে ৮ বার বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত হয়ে রেকর্ড তৈরি করেছেন। এদিন তাঁর মৃত্যুতে শোকাহত কর্নাটকের রাজনৈতিক মহল।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories