Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পৃথিবীর আশ্চর্য সব টয়লেট, ব্যবহার করতে লজ্জা পাবেন!

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

সকালে ঘুম থেকে উঠে কিংবা রাত্রে ঘুমানোর আগে মানুষের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ জিনিস হল টয়লেট। সেক্ষেত্রে অনেকেই আশা করেন টয়লেট পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হলেই হবে। আবার অনেকে বিলাসী নানান ধরনের ব্যবস্থা করেন। নতুনত্ব স্টাইলে সাজিয়ে তোলেন টয়লেটকে। আজকের এই প্রতিবেদনে এমন কয়েকটি আশ্চর্য কিংবা অদ্ভুত টয়লেটের কথা জানবেন যা শুনে আপনি হতবাক হতে বাধ্য। সারা বিশ্বজুড়ে এই ধরনের আশ্চর্য টয়লেট গুলি বহু মানুষের কল্পনারও বাইরে।আচ্ছা ভাবুন তো? যদি কেউ খুব বিলাসী হয় তাহলে ১০ থেকে ১৫ লক্ষ টাকা খরচ করে বাথরুম বানাতে পারেন।

আবার অনেকে কোটি কোটি টাকার মালিক হলে তার থেকেও বেশি খরচ করেন। কিন্তু দুনিয়ার সবথেকে ব্যয়বহুল বাথরুম বানানো হয়েছে প্রায় ২২ কোটি টাকায়। শুধু তাই নয়, স্বপ্নের জগতের মত বিলাসী এই স্নানঘর জায়গা করে নিয়েছে গিনেস রেকর্ডে। এটি রয়েছে হংকংয়ে। এটি বানিয়েছেন হংকংয়ের গয়না ব্যবসায়ীর লাম সাং-উংই। সম্পূর্ণ সোনা দিয়ে মোড়া বাথরুম, এমনকি কমোড পর্যন্ত সোনা দিয়ে তৈরি। পাশাপাশি রয়েছে মনি মুক্ত রত্ন খচিত। এটি তৈরি করা হয় ২০০১ সালে। এছাড়াও হংকংয়ে একটি হোটেলের প্রোমোশনে তৈরি করা হয়েছে খাঁটি ২৪ ক্যারেট সোনার কমোড। এটি বানাতে খরচ হয়েছে ৩৯ মিলিয়ন ইউএস ডলার। এই হোটেলের বাথরুম মানুষ ব্যবহার করুক আর না করুক অন্তত এই সোনার কোমোড দেখতে অনেকে এখানে ছুটে আসেন।

জাপানে এমন এক টয়লেট রয়েছে যেখানে আপনি হাজার হাজার সঙ্গী পাবেন। যদিও এই সঙ্গীর তালিকায় কোন মানুষ নেই। আপনার সঙ্গী হবে সমুদ্রে বিচরণকারী হাজার হাজার মাছ। আসলে জাপানের এই টয়লেটটি তৈরি করা হয়েছে সমুদ্রের গভীরে। এটিকে বলা হয় অ্যাকুরিয়াম টয়লেট। এখানে মানুষ থাকবে অ্যাকুরিয়াম টয়লেটের মধ্যে। তার বাইরে রেয়েছে সমুদ্রের নীল জল, যেখানে খেলে বেড়াচ্ছে অজস্র রঙিন মাছ। চীনে এক জায়গায় প্রায় একশর বেশি রকমের ডিজাইনের টয়লেট রয়েছে। মানুষ কোনটি ব্যবহার করবে এটি ভাবতে ভাবতেই সময় চলে যায়। এছাড়াও পৃথিবীতে রয়েছে বুলেট প্রুফ কমোড।আরেকটি টয়লেটের কথা জানলে মাথা ঘুরে যাবে। সেটি হলো মিরর টয়লেট, এখানে ব্যবহারকারীরা পাবেন একটু অন্য রকমের অনুভূতি। কারণ এই টয়লেটটি পুরো মাঝ রাস্তায় বসানো। যিনি টয়লেটটি ব্যবহার করবেন তিনি ভিতর থেকে বাইরের সবাইকে দেখতে পাবেন।

সব দৃশ্য তার কাছে পরিষ্কার থাকবে। অথচ বাইরে যারা থাকবেন তাদের কাছে বাথরুমের চারিদিক আয়নার সমান।পাশাপাশি ইউরোপে বেশ জনপ্রিয় পপ-আপ টয়লেট। দেখলে মনে হবে রাস্তার উপর কিছুই নেই কিন্তু এখানে লুকিয়ে রয়েছে একটি সুইচ। যদি কোন পথচারীর টয়লেট ব্যবহারের প্রয়োজন পড়ে তাহলে তিনি এই সুইচ প্রেস করলেই মাটির নিচ থেকে উঠে আসবে আস্ত একটি টয়লেট। তারপর সেই টয়লেট ব্যবহার করা হয়ে গেলে আবার সুইচ প্রেস করতে হবে। তখন টয়লেটটি পুনরায় মাটির নিচে প্রবেশ করবে।কেউ যদি সমুদ্রে ভাসমান অবস্থায় টয়লেট ব্যবহার করতে চান, সেই ব্যবস্থা করে রেখেছে আমেরিকা। এই ধরনের টয়লেটকে বলা হয় ফ্লোটিং টয়লেট। এটি ব্যবহার করতে এক বারে খরচ হয় প্রায় ৫০০ ডলার।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories