Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পুলিশি হেফাজতেই মৃত্যু বিজেপি কর্মীর, থানার সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখবে আদালত

।। প্রথম কলকাতা।।

আজাদগড় এলাকার বাসিন্দা দীপঙ্কর সাহা নামে এক যুবককে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে আসে পুলিশ । আর তারপর তাকে থানায় এনে বেধড়ক মারধর করার অভিযোগ ওঠে পুলিশের বিরুদ্ধেই। জানা যায়, দীপঙ্কর এলাকায় বিজেপির সক্রিয় কর্মী হিসেবেই পরিচিত ছিল। এই মারধরের ঘটনার পর অসুস্থ হয়ে পড়ে সে। অবশেষে মৃত্যু হয় দীপঙ্করের। পুলিশের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে দীপঙ্করের পরিবার দ্বারস্থ হয় কলকাতা হাইকোর্টের। আর আজ ওই গল্ফগ্রিন কাণ্ডের শুনানি ছিল কলকাতা হাইকোর্টে। সেখানেই আদালতের তরফ থেকে গল্ফগ্রিন থানার সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ তলব করা হয়।

ঘটনায় নাম জড়িয়েছে গল্ফগ্রিন থানার তিন পুলিশ কর্মীর । যদিও তাদের ক্লোজ করা হয়েছিল । মঙ্গলবার বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার এজলাসে শুনানি চলাকালীন তিনি ওই থানার সমস্ত সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ রেজিস্টারের কাছে জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন। সেখানেই খতিয়ে দেখা হবে যে থানার ভেতরে আসলে সেদিন কী ঘটেছিল ? কেন থানা থেকে বাড়ি আসার পর অসুস্থ হয়ে পড়ল দীপক? তাকে কি সত্যিই মারধর করা হয়েছিল বিনা কারণে ? সম্ভবত চলতি সপ্তাহেই ফের এই মামলার শুনানি হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সমস্ত থানাতেই সিসিটিভি ক্যামেরা রাখতেই হয়। সে ক্ষেত্রে ওই থানাতেও সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজ থাকবে এবং সেই ক্যামেরার ফুটেজ খতিয়ে দেখলেই আসল বিষয়টি সকলের সামনে আসবে এমনটাই দাবি করেছিলেন মৃতের দাদা । উল্লেখ্য, গত ৩১ শে জুলাই দীপঙ্করকে দুই পুলিশ কর্মী বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে যায় থানায়। লালবাজার সূত্রে জানা যায়, ওই থানার সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে দেখা যায় যে দীপঙ্কর ওই দিন রাত ১০.২৬ নাগাদ থানায় ঢোকেন আর তারপর ১০.৫৬ মিনিট নাগাদ বেরিয়ে যান তিনি। তাঁর সঙ্গে আরও কয়েকজন ছিল বলেও জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে তাঁর পরিবারের দাবি ছিল, দীপঙ্কর বাড়িতে এসে জানায় পুলিশ কর্মীরা তাকে মারধর করেছে। এমনকি তাঁর গোটা শরীরে আঘাতের চিহ্ন পর্যন্ত দেখতে পেয়েছিলেন পরিবারের সদস্যরা । পরবর্তীতে দীপঙ্করের পরিবার অভিযোগ জানায় যে, পুলিশের অতি সক্রিয়তার কারণেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর । আর এবার থানার ভেতরে সেদিন কী ঘটেছিল তা জানার জন্য সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ জমা দেওয়ার নির্দেশ দিল আদালত।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories