Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ফেসবুকের দুর্দান্ত ৫ বিকল্প

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

Facebook Alternatives : সোশ্যাল মিডিয়ায় জগতে এক অনন্য সৃষ্টি ফেসবুক (Facebook)। ২০০৪ সালে মার্ক জুকারবার্গ বিশ্ববাসীর সাথে পরিচয় করান এই প্রযুক্তিভিত্তিক যোগাযোগ মাধ্যমের সাথে। ওই দিন থেকে আজ পর্যন্ত এই অ্যাপের যোগ্য বিকল্প এখনও খুঁজে উঠতে পারেনি ব্যবহারকারীরা। শুধুমাত্র সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসাবে নয়, শিক্ষা, চাকরি, ব্যবসা, সংগঠন ইত্যাদি একাধিক ক্ষেত্রে অবদান রয়েছে ফেসবুকের।

তবে কি সত্যি এই অ্যাপের কোনও বিকল্প নেই? আসলে সাম্প্রতিক সময়ে অজস্র সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ তৈরি হলেও ফেসবুকের মতো জনপ্রিয়তা লাভ করতে উঠতে পারেনি কেউই। একাধিক বৈশিষ্ট্য এক ছাতার তলায় নিয়ে এসেছে ফেসবুক। যার ফলস্বরূপ বিশ্বজুড়ে বয়স, শ্রেণী, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে মানুষ এই অ্যাপটি গ্রহণ করেছেন। কিন্তু ওই যে কথায় আছে, কোনও কিছুই চিরস্থায়ী নয়।

যোগ্য বিকল্প না থাকলেও বর্তমানে ফেসবুককে কড়া চ্যালেঞ্জ জানাতে শুরু করেছে একাধিক অ্যাপ্লিকেশন। ফেসবুকের বিকল্প হিসাবে অনেকেই বেছে নিচ্ছেন এই প্ল্যাটফর্মগুলি। ধীরে ধীরে ফেসবুকের উপর নির্ভরশীলতা ক্রমশ কমতে শুরু করেছে ব্যবহারকারীদের। কি সেই ৫ বিকল্প? জানুন।

ফেসবুক মেসেজিংয়ের ক্ষেত্রে বিকল্প টেলিগ্রাম

এই মুহূর্তে সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল মেসেজিং অ্যাপগুলির মধ্যে একটি হল টেলিগ্রাম (Telegram)। প্রায় ৫০০ মিলিয়নেরও বেশি অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছে এই প্ল্যাটফর্মে। অনেকেই মনে করেন, টেলিগ্রামের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির অন্যতম প্রধান কারণ হল এটির গোপনীয়তা নীতি। তাছাড়া ফেসবুকের মতো এখানেও টেক্সট মেসেজ, ভয়েস কল, গ্রূপ কল, স্টিকার, মিডিয়া ফাইল ট্রান্সফার, বিভিন্ন চ্যানেলের অ্যাক্সেস এবং প্রোফাইল ক্রিয়েট করা যায়। আইওএস, অ্যান্ড্রয়েড এবং উইন্ডোজ তিনটি সফটওয়্যারেই এটি ব্যবহার করার অনুমতি দেয় টেলিগ্রাম।

ফেসবুক গ্রূপের ক্ষেত্রে বিকল্প রেডিট

যারা ফেসবুকের গ্রুপ ফিচারের বিকল্প খুঁজছেন তাঁদের কাছে রেডিট (Reddit) অন্যতম বিকল্প হয়ে উঠতে পারে। এই প্ল্যাটফর্মে অজস্র কমিউনিটি রয়েছে। ভিডিও গেম থেকে শুরু করে রান্নার রেসিপি, ভ্রমণ, খেলা ইত্যাদি। এখানে একটি ডিসকাশান ফোরাম থেকে যেখানে যোগ দেওয়া বা পোস্ট করা দুটোই সহজ। এই অ্যাপে বর্তমানে ৪৩০ মিলিয়নের বেশি অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছে।

ফেসবুক নিউজের ক্ষেত্রে বিকল্প ট্যুইটার

এই অ্যাপের সঙ্গে অনেকেরই পরিচয় রয়েছে, হয়তো ব্যবহারও করেন অনেকে। নিউজ প্ল্যাটফর্ম তথা মাইক্রোব্লগিং প্ল্যাটফর্ম হিসাবে কাজ করে ট্যুইটার। বিশ্বব্যাপী ৩০০ মিলিয়নেরও বেশি মাসিক অ্যাক্টিভ ইউজার রয়েছে ট্যুইটারে। পৃথিবীর কোন প্রান্তে কি ঘটছে সব খবরাখবর ফেসবুকের আগে পাওয়া যায় ট্যুইটারে। এ ছাড়া সংশ্লিষ্ট প্রশাসন, বিশিষ্ট ব্যক্তি (সেলিব্রিটি) এবং সাংবাদিকদের সাথে সরাসরি যোগাযোগ করার সুযোগ প্রদান করে এটি। কারণ এদের মধ্যে প্রত্যেকেই ট্যুইটারে অনেক বেশি অ্যাক্টিভ থাকেন।

ফেসবুক জবের ক্ষেত্রে বিকল্প লিঙ্কডিন

অনেকেই আছেন যারা কর্মসন্ধানের জন্য ফেসবুক ব্যবহার করেন। তাঁদের ক্ষেত্রে দারুণ বিকল্প মাইক্রোসফট নির্মিত প্ল্যাটফর্ম লিঙ্কডিন (LinkedIn)। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা, তাদের সংস্কৃতি সহ একাধিক পেশাদার বিষয় সম্পর্কে অবগত থাকার জন্য আদর্শ প্ল্যাটফর্ম লিঙ্কডিন। ফেসবুকের তুলনায় এই অ্যাপে সংশ্লিষ্ট শূন্যপদ বিষয়ে স্বচ্ছ ধারণা পাওয়া যায়। এর কারণ হল এই অ্যাপটি এমনভাবে ডিজাইন করা হয়েছে যাতে চাকরিপ্রার্থী এবং চাকরিদাতা নিজেদের অগ্রাধিকার অনুযায়ী একের অপরকে খুঁজে পেতে পারে।

ফেসবুক সোশ্যাল নেটওয়ার্কের ক্ষেত্রে বিকল্প ভিরো

ফেসবুক সোশ্যাল নেটওয়ার্কের ক্ষেত্রে দুর্দান্ত বিকল্প ভিরো (Vero)। এই অ্যাপটি বেশ সুন্দরভাবে ডিজাইন করা এবং ব্যবহার করাও খুব সহজ। এটিতে রয়েছে কালানুক্রমিক টাইমলাইন যা আপনার ফিডের সমস্ত পোস্ট কখন প্রকাশিত হয়েছিল তার ক্রমানুসারে দেখায়। বিগত দিনে একাধিক সেলিব্রিটিদেরও আকৃষ্ট করেছে এই প্ল্যাটফর্ম যা ব্যবহারকারীদের উৎসাহ যোগায়। সম্পূর্ণ অ্যাড ফ্রি এই অ্যাপটি বর্তমান অ্যাক্টিভ ইউজারের সংখ্যা ৩২৬ মিলিয়ন।

উপরোক্ত প্রত্যেকটি অ্যাপই নতুন এবং নিজ নিজ ক্ষেত্রে বেশ জনপ্রিয়। তবে এগুলি প্রথম প্রথম ব্যবহার করতে অসুবিধা হতে পারে। মনে রাখবেন ফেসবুকও যখন প্রথম এসেছিলো তখন অনেকেই এটি ব্যবহার করতে গিয়ে সমস্যায় পড়েছিলেন। সময়ের সাথে যা কেটে গিয়েছে।

Categories