Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

মিসাইল হামলা ঘিরে উত্তপ্ত দুই দেশ, চীন নাকি জাপান! সামরিক শক্তিতে কে এগিয়ে?

1 min read

।।প্রথম কলকাতা।।

বেজিংয়ের টার্গেটে ‘সূর্যোদয়ের দেশ’? তাইওয়ান বিবাদে এন্ট্রি হতে চলেছে জাপানের ? ‘ফরমোসা আইল্যান্ড’-কে ঘিরে চলা চিনের সামরিক মহড়ার জেরে চড়ছে পারদ।মার্কিন কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ ‘হাউস অফ রিপ্রেজেনটেটিভের’ স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি তাইওয়ান সফরের পর থেকেই চড়ছে উত্তেজনার পারদ। এরপরই তাইওয়ানকে ঘিরে যুদ্ধের মহড়া শুরু করে চিন।এর মধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে আরও একটি ছবি।সেখানে দেখা গিয়েছে, সাঁজোয়া গাড়িতে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে পরমাণু অস্ত্র বহনে সক্ষম ‘ডংফেং ৫বি’ সারম্যাট ক্ষেপণাস্ত্র।

আরো পড়ুন : জোকা ইএসআইতে মেডিক্যাল চেকআপে পার্থ-অর্পিতার, আজ পেশ আদালতে

বিশেষজ্ঞদের দাবি, আমেরিকাকে চ্যালেঞ্জ করতেই ‘ওয়ার জোনে’ এই মিসাইল নামাচ্ছে চিন।এখন প্রশ্ন উঠছে যে চীন নাকি জাপান কে বেশি শক্তিশালী? ২০২২ সালে গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের র‍্যাঙ্কিংয়ে ১৪২টি দেশের মধ্যে সামরিক বাহিনীর সক্ষমতার তালিকায় চীনের অবস্থান ৩ নম্বরে। আর তাইওয়ানের অবস্থান ২১ নম্বরে।আবার অন্যদিকে চীনের নৌবাহিনীর জাহাজের সংখ্যা ৮৬টি। তাইওয়ানের ২৬টি। তাইওয়ান স্বশাসিত একটি দ্বীপ তার ফলে কোনো ধরনের সামরিক সংঘাত শুরু হলে সবচেয়ে বেশি লড়াই হবে নৌপথে। সেই তুলনায় তাইওয়ানের চেয়ে অনেকটা এগিয়ে আছে চীনা নৌবাহিনী।

চীনের সামরিক বাহিনীতে এখন সক্রিয় সেনার ২০ লাখ। তাইওয়ানের সেনা সেখানে ১ লাখ ৬৯ হাজারের মতো। বেইজিংয়ের পদাতিক বাহিনীর সেনাসংখ্যা ৯ লাখ ৬৫ হাজার। তাইওয়ানের পদাতিক বাহিনীতে সদস্য আছেন ৯৪ হাজার।এটা স্পষ্ট যে তাইওয়ানের জন্য বড় হুমকি চীনের নৌবাহিনী। চীনের নৌবাহিনীর সদস্য ২ লাখ ৬০ হাজার। এদিকে তাইওয়ানের নৌবাহিনীর সদস্যসংখ্যা মোটে ৪০ হাজার।তাই তাইওয়ানের তুলনায় যে চীন অনেকটাই এগিয়ে আছে তা কিন্তু স্পষ্ট। এখন দেখার বিষয় আবারও কী মিশাইল হামলা হবে? হলে তার কী প্রত্যুত্তর দেওয়া হবে? যুদ্ধের দামামা বাজছে যে তা বোঝা যাচ্ছে বেশ ভালো মত।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories