Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

পৌষমেলার আয়োজনে ইচ্ছুক বিশ্বভারতীর উপাচার্য, সাহায্যের আবেদন রাজ্য সরকারকে

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

বিগত দুই বছর করোনা সংক্রমণের কারণে বোলপুরের ঐতিহ্যবাহী দুটি উৎসব বন্ধ রাখা হয়েছিল ।বসন্ত উৎসব এবং পৌষ মেলার আয়োজন করা হয়নি। তবে এবার পৌষ মেলার আয়োজনে ইচ্ছা প্রকাশ করে রাজ্য সরকারকে চিঠি লিখলেন বিশ্বভারতীর উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী । স্থানীয় হস্তশিল্পী এবং ব্যবসায়ীরা বিগত বছরে পৌষ মেলা করার আবেদন জানিয়েছিলেন কিন্তু করোনাকে কারণ হিসেবে দেখিয়ে এই আয়োজন করা থেকে বিরত থেকেছে বিশ্বভারতী। তবে এবার খোদ সেই মেলার আয়োজন করতে ইচ্ছুক উপাচার্য।

জানা গিয়েছে, গত ২৯ শে জুন তিনি রাজ্যের মুখ্য সচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে চিঠি লেখেন, যাতে ঐতিহ্যবাহী পৌষ মেলার ফের আয়োজন করার জন্য সাহায্য পাওয়া যায় রাজ্য সরকারের তরফ থেকে। বিশ্বভারতীর এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন বোলপুরের হস্তশিল্পী সহ বিভিন্ন ব্যবসায়ী সংগঠন। বোলপুর শান্তিনিকেতনের নাম শুনলেই প্রথম যে বিষয়গুলি চোখের সামনে ভেসে ওঠে তাদের মধ্যে অন্যতম হল এই পৌষমেলা এবং বসন্ত উৎসব। রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে বহু মানুষের সমাগম ঘটে বোলপুরে এই দুটি উৎসবকে কেন্দ্র করে।

যার ফলে ব্যবসার জন্য এই দুটি উৎসবের অপেক্ষা করে বসে থাকেন হস্তশিল্পী এবং ব্যবসায়ীরা। কিন্তু করোনা সংক্রমণের পর থেকে দু-দুটি বছর সমস্ত আয়োজন অনুষ্ঠান বন্ধ ছিল বোলপুরের। বাধ্য হয়ে তাই বোলপুর ব্যবসায়ী সমিতি এবং বাংলা সংস্কৃতি মঞ্চ বোলপুরের জেলা পরিষদের ডাকবাংলা ময়দানে বিকল্প পৌষ মেলার আয়োজন করেছিলেন । কিন্তু সেই পৌষ মেলা আর ঐতিহ্যবাহী পৌষমেলার মধ্যে বিস্তর ফারাক ছিল। চলতি বছরে করোনার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রিত হওয়ায় মেলার আয়োজন করতে ইচ্ছুক বিশ্বভারতী।

সেই মর্মে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে শান্তিনিকেতন ট্রাস্টকেও চিঠি লিখে পৌষমেলা আয়োজন করার আর্জি জানানো হয়েছে । আর অন্যদিকে, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য বিদ্যুৎ চক্রবর্তী নিজে এই আয়োজনে রাজ্যের সাহায্য চেয়ে চিঠি লিখেছেন মুখ্য সচিবকে। তিনি জানিয়েছেন যে, বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ শান্তিনিকেতনের মেলার মাঠে এই বছর পৌষমেলা করতে আগ্রহী হলেও রাজ্য সরকারের আর্থিক এবং প্রশাসনিক সহায়তা ছাড়া তা সম্ভব নয়।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories