Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ঈদে কেন পশু কোরবানি করা হয় ? কাহিনীটা পড়ে দেখুন

।। প্রথম কলকাতা ।।

১০ই জুলাই রবিবার উদযাপিত হবে পবিত্র ঈদুল আজহা। বাংলাদেশে বেশ কয়েকদিন ধরেই রমরমিয়ে ঈদুল আজহার প্রস্তুতি চলছে । বাজারে জামা কাপড়ের দোকান কিংবা বিভিন্ন শুকনো খাবারের দোকান থেকে শুরু করে মিষ্টির দোকানে ভিড় ছিল চোখে দেখার মত। সৌদি আরবসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলিতে ঈদুল আজহা উদযাপিত হয়েছে ৯ জুলাই। রবিবার বাংলাদেশসহ ভারতে ইদুজ্জোহা উদযাপিত হবে। এই উৎসাহ হল ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের কাছে একটি ত্যাগের উৎসব। ইসলাম ধর্মের সব থেকে বড় দুটি ধর্মীয় উৎসবের মধ্যে এটি হল দ্বিতীয় । এটি কোরবানি ঈদ নামেও পরিচিত।

এই উৎসবের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় হয়ে ওঠে ত্যাগ। এই দিন কুরবানির মাধ্যমে মানুষ নিজেদের মনের মধ্যে থাকা খারাপ চিন্তা, হিংসা, কলুষতা সবকিছুকে ত্যাগ করেন । এই ঈদে আল্লাহকে কিছু উৎসর্গ বা কোরবান করতে হয়। এইদিন ত্যাগ বা বিসর্জনের মাধ্যমে আল্লাহের সান্নিধ্য অর্জন করার চেষ্টা করা হয়। এই বিশেষ ঈদ হল আল্লাহের প্রতি আনুগত্য এবং বিশ্বাস প্রদর্শন করে নিজের প্রিয় কিছু উৎসর্গ করা। এই বিশেষ ঈদের সঙ্গে কথিত আছে এক অসামান্য কাহিনী।

শোনা যায় মহান আল্লাহ হযরত ইব্রাহিমকে স্বপ্নযোগে তাঁর প্রিয় বস্তু কুরবানি দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। স্বপ্নে আদেশ পেয়ে তিনি প্রায় ১০টি উট কোরবানি দেন । কিন্তু তিনি আবার স্বপ্ন দেখেন । তখন তিনি কোরবানি দেন প্রায় ১০০টি উট। পুনরায় আবার স্বপ্ন দেখায় তিনি বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত হয়ে পড়েন। তখন ভাবতে থাকেন তাঁর কাছে সব থেকে প্রিয় বস্তু হল তাঁর প্রিয় পুত্র ইসমাইল। তখন তিনি নিজের পুত্রকে কোরবানির জন্য আরাফাত পর্বতের উপর নিয়ে যান।

সেখানে ধারালো ছুরি দিয়ে ছেলের গলদেশে আঘাত করার চেষ্টা করলে অবাক হয়ে দেখেন তাঁর ছেলের পরিবর্তে একটি প্রাণীর কোরবানি হয়েছে। তাঁর সন্তান একেবারে অক্ষত রয়েছে। তারপর থেকেই মুসলিম ধর্মাবলম্বীরা এই ঈদের দিন নিজেদের সামর্থ্য অনুযায়ী ছাগল, উট, গরু প্রভৃতি কিনে আল্লাহর নামে উৎসর্গ করে কোরবানি দেন। এই দিন প্রত্যেক বাড়িতে নানান সুস্বাদু খাবার রান্না হয়। কোরবানির মাংস তিন ভাগ করে আত্মীয়, এলাকার মানুষ এবং দরিদ্রদের দেওয়া হয় ।

ইদুজ্জোহা ঘোষণা করার আগে চাঁদ দেখা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করা হয় । ইসলামী বিধান অনুযায়ী ঈদের ঘোষণা বা পালন তখনই হয় যখন ঈদের চাঁদ স্বচক্ষে দেখা যায়। যদি চাঁদ না দেখা যায় তাহলে ওই এলাকার কোন জ্ঞানী বা বিশ্বস্ত ব্যক্তি চাঁদ দেখেছেন কিনা সেই বিষয়ে তার কাছ থেকে জেনে নিতে হয়। শুধুমাত্র এই চাঁদ দেখার বিষয়টি নিয়ে বাংলাদেশে আছে জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটি।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories