Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘তিনি হ্যাভিচুয়াল অফেন্ডার, বারবার হিন্দু ধর্মকে অপমান’, মহুয়াকে একহাত তরুণজ্যোতির

।।প্রথম কলকাতা।।

সম্প্রতি মা কালীকে নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র। তিনি বলেছেন,”আমার কাছে কালী এমন একজন দেবী, যিনি মাংস ও মদ খান। আপনার স্বাধীনতা রয়েছে নিজের মত করে আপনার ঈশ্বরকে কল্পনা করার।” তাঁর এই মন্তব্যকে ঘিরে সমালোচনার ঝড় শুরু হয়েছে বঙ্গ রাজনীতিতে। বিজেপির পক্ষ থেকে তাঁর গ্রেফতারের দাবি করা হয়েছে। তবে মহুয়া মৈত্রের দাবি, তাঁর বিরুদ্ধে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাতের অভিযোগ উঠেছে, কিন্তু এই ঘটনায় আঘাত পেয়েছেন তিনি নিজেই। তাই কারও যদি ক্ষমা চাইতে হয়, তাহলে অবশ্যই সেটা তিনি নন। বরং তাঁকে নিয়ে এই ধরনের নোংরা রাজনীতি করার জন্য, তাঁর কাছেই ক্ষমা চাওয়া উচিত। এবার এ প্রসঙ্গেই আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারির সঙ্গে কথা বললেন প্রথম কলকাতার প্রতিনিধি মৃত্যুঞ্জয় দাস।

তিনি হ্যাভিচুয়াল অফেন্ডার

আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারি জানান, “ক্রিয়াও তাঁর, প্রতিক্রিয়াও তাঁর, এটা কী করে হয়? তাঁর ক্রিয়া তিনি করে দিয়েছেন। ভারতের হিন্দু সমাজ তার প্রতিক্রিয়া দিচ্ছে। তাঁর বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে। আশা করা যায় পুলিশ তাঁর ব্যবস্থা নেবে। কে তাঁকে বললো, তিনি হিন্দু বলে হিন্দু সম্প্রদায়ের সম্পর্কে যা কিছু বলতে পারবেন। তাঁকে এই অধিকারটা কে দিয়েছে? তাঁর মন্তব্য হিন্দু ধর্মকে বারবার আঘাত দেওয়ার জন্যই। কয়েকদিন আগে শিবলিঙ্গ নিয়ে একটা কটুক্তি করেছেন। তিনি হ্যাভিচুয়াল অফেন্ডার। বারবার করে চলেছেন ইচ্ছাকৃতভাবে। হিন্দু ধর্মকে অপমান করার জন্য।”

প্রমাণ করার সময় এসেছে মুখ্যমন্ত্রী হিন্দুবিরোধী নন

“ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। মুখ্যমন্ত্রীকে অনুরোধ করব, তাঁর প্রমাণ করার সময় এসেছে, আমাদের মুখ্যমন্ত্রী হিন্দু বিরোধী নন। নূপুর শর্মার সময় এতগুলো মন্তব্য ছিল, এ ক্ষেত্রেও মন্তব্য আসুক। পুলিশ ব্যবস্থা নিক। আমরা বাস, ট্রেন জ্বালানোর সংস্কৃতিতে বিশ্বাস করি না। আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। ক্ষমা করা হবে। কিন্তু দ্রুত ক্ষমা চাওয়া উচিত।”

হিন্দু ধর্মকে অপমান করলে এক্সট্রা ডিভিডেন্ট

আইনজীবী তরুণজ্যোতি তিওয়ারি জানান, “বিভিন্ন মতে কালী পুজো বিভিন্ন জায়গায় হয়। শাক্ত মতে যেখানে পূজো হয়, সেখানে কারণ দেওয়া হয়। সেখান থেকে তিনি কিভাবে বলছেন, তাঁর ভগবান মাংস অ্যাকসেপ্ট করেন, তাঁর ভগবান হুইস্কি অ্যাকসেপ্ট করেন? এটা না জানার ফল। ইচ্ছাকৃতভাবে তৃণমূলের একটা নিয়ম আছে, হিন্দু ধর্মকে অপমান করলে এক্সট্রা ডিভিডেন্ট পাওয়া যায়। দলে একটু সাইড লাইন হয়ে আছেন মহুয়া মৈত্র। তাঁকে দলের উপরে উঠতে হবে। তাই হিন্দু ধর্মকে আঘাত করে এই মন্তব্য করেছেন।”

যা দেখছেন, তা তৃণমূলের মুখোশ

“ধর্মীয়ভাবে আঘাত লেগেছে। আমরা তাঁর বিরুদ্ধে লিগালি ব্যবস্থা নিচ্ছি। পশ্চিমবঙ্গ পুলিশ বা কলকাতা পুলিশ যদি ব্যবস্থা না নেয়, তবে আমরা বৃহত্তর আন্দোলনে যাব। তৃণমূলের পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত তাঁর বিরুদ্ধে কোন পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি। শুধু বলা হল, এটা দলের বক্তব্য নয় এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, “তৃণমূল পদক্ষেপ নেবে না। আপনারা যা দেখছেন, তা তৃণমূলের মুখোশ। আসল মুখটা হাসছে। হাসি চওড়া হচ্ছে এই বক্তব্যের পর। তৃণমূল খুব খুশি, মনে প্রাণে খুশি। একটাই কারণ হিন্দু ধর্মকে আক্রমণ করেছেন, তৃণমূল এটাই চায়। এটাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের জেহাদ ঘোষণার একটা পার্ট।”

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories