Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

এবার কি কংগ্রেস ছাড়তে চলেছেন এই বর্ষীয়ান নেতা? আচমকা নাড্ডার সঙ্গে সাক্ষাতে বাড়ছে জল্পনা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা ।।

দল বদলের জল্পনা শুরু হলো বর্ষীয়ান কংগ্রেস নেতা আনন্দ শর্মাকে নিয়ে। রাজ্য সভার টিকিট না পেয়ে দলের উপরে তিনি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ। যে কোন সময় তিনি দল ছাড়তে পারেন, এমন একটা জল্পনা শুরু হয়েছে। আর এই পরিস্থিতিতে আচমকা তিনি সাক্ষাৎ করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গে। নাড্ডার সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়ে তিনি স্পষ্ট জানিয়ে দিলেন, মতাদর্শগত পার্থক্য থাকার অর্থ কখনোই ব্যক্তিগত শত্রুতা নয়। নাড্ডার সঙ্গে দেখা করতে হলে সকলের সামনে তিনি দেখা করবেন।

তাঁর এই বক্তব্যই জল্পনা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। সম্প্রতি দলের দলের সংগঠনে আমূল পরিবর্তনের পক্ষে সওয়াল করেছিলেন কংগ্রেস নেতা আনন্দ শর্মা। দলের বেশ কিছু সিদ্ধান্তেরও তিনি সমালোচনা করেছিলেন। তেমনি কিছুদিন আগে রাহুল গান্ধীকে যখন জিজ্ঞাসাবাদ করেছিল ইডি, সেসময় দলের প্রায় সমস্ত নেতারা প্রতিবাদে সামিল হলেও, প্রতিবাদ করতে দেখা যায়নি আনন্দ শর্মাকে। তার উপর সদ্য শেষ হওয়া রাজ্যসভা নির্বাচনে দলের পক্ষ থেকে তাঁকে টিকিট দেওয়া হয়নি।

যেখানে গান্ধী পরিবারের ঘনিষ্ঠরা স্থান পেয়েছেন। যে কারণে তিনি অত্যন্ত ক্ষুব্ধ। যদিও এখনো তিনি বলছেন যে, তিনি কংগ্রেসের সঙ্গেই যুক্ত আছেন। এবার আনন্দ শর্মা জানালেন, জেপি নাড্ডার সঙ্গে তাঁর পুরনো সামাজিক ও পারিবারিক সম্পর্ক আছে। তিনি খুশি যে তাঁর রাজ্য ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আসা কেউ শাসক দলের সভাপতি। তাঁর কথায়, “মতাদর্শগত পার্থক্য মানে ব্যক্তিগত শত্রুতা নয়। আমাকে যদি জেপি নাড্ডার সঙ্গে দেখা করতে হয়, তবে আমি সকলের সামনে দেখা করব। এটা আমার অধিকার। আমি কোনও জল্পনা-কল্পনায় ইন্ধন দেব না।”

জানা যাচ্ছে, যেকোন সময় তিনি দল ছাড়তে পারেন। আর তিনি যদি বিজেপিতে যোগদান করেন সেটা কংগ্রেসের জন্য একটা বড়সড় ধাক্কা হবে বলেই, রাজনৈতিক মহলের দাবি। সামনেই হিমাচল প্রদেশের বিধানসভা নির্বাচন। তিনি সে রাজ্যেরই বাসিন্দা। সেকারণেই সমস্যা আরও বাড়বে হাত শিবিরের।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories