Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Dakshin Dinajpur: ভরা সভায় ভাষণ, মমতা-অভিষেক ঘনিষ্ঠ বলে দাবি, গ্রেফতার ‘ভুয়ো’ তৃণমূল নেতা

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

ভুয়ো আইপিএস, ভুয়ো চিকিৎসক, ভুয়ো সিবিআইয়ের পর এবার ভুয়ো তৃণমূল নেতা! যা স্বাভাবিকভাবেই অত্যন্ত আশ্চর্যজনক । একজন ব্যক্তি যিনি একপ্রকার স্বঘোষিত তৃণমূল নেতা , তিনি ভরা সভায় ভাষণ দিলেন, নিজেকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বলে দাবি করলেন কিন্তু পরবর্তীতে জানা গেল আদৌ তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের কোন পদেই নেই। তৃণমূল কর্মী সদস্যদের বিভ্রান্ত করার অভিযোগে এবং নিজেকে তৃণমূল নেতা হিসেবে দাবি করার অপরাধে তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানালো জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব । ঘটনাটি দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার । আপাতত পুলিশের হাতে গ্রেফতার ‘ভুয়ো’ তৃণমূলের নেতা।

জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের বক্তব্য একুশে জুলাই উপলক্ষে তার প্রস্তুতি নিয়ে মঙ্গলবার দক্ষিণ দিনাজপুরের তপনের রবীন্দ্রভবনে তৃণমূলের একটি সভার আয়োজন করা হয়। ওই একই সময়ে কয়েকশো মিটার দূরে আরও একটি সভার আয়োজন করা হয়েছিল। রবীন্দ্র ভবনেরঅদূরের যে সভার আয়োজন করা হয়েছিল সেই সভাতেই বক্তব্য রাখেন ভুয়ো তৃণমূল নেতা স্বপন মুখোপাধ্যায়। তিনি সভায় থেকে বলেন, ” বিগত ৩২ বছর আমার সৌভাগ্য হয়েছে আজকের মুখ্যমন্ত্রী তথা আমাদের জননেত্রীর সঙ্গে থাকার । উনি যতবার কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হয়েছেন প্রতিবারই আমি ওনার সঙ্গে দিল্লিতে ছিলাম। পরবর্তীকালে আপনাদের সকলের নয়নের মনি আমাদের যুব সমাজের আইকন অভিষেক বাবু , তাঁর সঙ্গেও সমান ভাবে জড়িয়ে আছি”।

তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ , তিনি নিজেকে কলকাতার তৃণমূল নেতা হিসেবে পরিচয় দিয়েছেন ,আবার কখনও তিনি নিজেকে রাজ্যস্তরের যুবসাধারণ সম্পাদক হিসেবেও পরিচয় দিয়েছেন। তবে জেলা নেতৃত্বের তরফ থেকে এই বিষয়ে বার্তা পাঠানো হয় এবং সেখান থেকে জানা যায় যে ওই ব্যক্তি তৃণমূলের কোনো পদেই নেই। দক্ষিণ দিনাজপুরের তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি উজ্জ্বল বসাক জানান ,রাজ্য থেকে কোনরকম পর্যবেক্ষক পাঠানো হয়নি। তিনি অসত্য কথা বলেছেন এবং তার জন্য দলীয় কর্মীরা বিভ্রান্ত হয়েছেন। পুলিশের কাছে এই বিষয়ে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

অবশেষে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই ভুয়ো তৃণমূল নেতাকে। তবে তাঁর দাবি, তিনি নির্দোষ। তিনি তৃণমূল কংগ্রেসের একনিষ্ঠ কর্মী। তাঁর বিরুদ্ধে যে সমস্ত অভিযোগ গুলি করা হয়েছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা। পুলিশ সূত্রে খবর, তৃণমূল নেতাকে চারদিনের পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত ।অন্যদিকে এই ভুয়ো তৃণমূল নেতার পর্দা ফাঁসের বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার বিজেপি সভাপতি স্বরূপ চৌধুরী। তিনি বলেন, এই জেলার সর্বত্রই তৃণমূলের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব । দলটি পুরোপুরি জর্জরিত গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে । দলের মধ্যে কে আসল নেতা এবং কে ভুয়ো নেতা তা খুঁজে বের করতেই তাঁরা ব্যস্ত। যার কারনে সাধারণ মানুষের তাদের কাছ থেকে যে আশা- আকাঙ্ক্ষা তা পূরণ হবার নয়।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories