Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

স্বয়ং জগন্নাথ থাকেন ১৪ দিনের ‘হোম আইসোলেশনে’ ! জানুন অবাক করা প্রাচীন রীতি

।। প্রথম কলকাতা ।।

গত দু’বছরে করোনা আমাদের মাথার মধ্যে রীতিমত গেঁথে দিয়েছে ১৪ দিনের হোম আইসোলেশনের ধারণা। তবে জানেন কি , এই ১৪ দিন হোম আইসোলেশনে স্বয়ং জগন্নাথদেবও থাকেন। আর এই নিয়ম যুগ যুগ ধরে পুরীর মন্দিরে পালন করা হয়ে আসছে। এই ১৪ দিন মন্দিরের দরজা বন্ধ থাকে, এই সময় জগন্নাথ , বলরাম এবং সুভদ্রাকে অন্যান্য দিনের মত আরাধনা করা হয় না। এই বিশেষ প্রথা বলা হয় আনাসারা।

জুলাই মাসের ১ তারিখে পড়েছে রথযাত্রা। কিন্তু তার আগেই প্রতিবছর জুন মাসে নিয়ম করে হয় স্নানযাত্রা অনুষ্ঠান । যেহেতু প্রচুর পরিমাণে গরম থাকে তাই এই সময় গরম থেকে আরাম দিতে জগন্নাথ বলরাম এবং সুভদ্রাকে প্রায় ১০৮ কলসি জল দিয়ে স্নান করানো হয়। মনে করা হয় , এই স্নানের পরেই তাঁরা রীতিমত জ্বরে কাবু হয়ে পড়েন। তাই তাঁদের ১৪ দিন সবার চোখের আড়ালে রাখা হয়। এটি একটি অত্যন্ত প্রাচীন প্রথা, যা প্রতিবছর নিয়ম নিষ্ঠা সহকারে পালন করা হয়ে আসছে। এই ১৪ দিন ধরে একদম আলাদা রকম ভাবে জগন্নাথ, বলরাম এবং সুভদ্রার সেবা করা হয় , আর এই রীতিকে বলা হয় ফুলুরী তেলা।

রথযাত্রার সনাতন ধর্ম অবলম্বীদের কাছে অত্যন্ত বড় একটি উৎসব । প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, রথে ভগবান জগন্নাথ, বলরাম এবং সুভদ্রার দর্শন পাওয়া অত্যন্ত পুণ্য লাভের কাজ। এই রথ উৎসবে ভগবানকে দর্শনের জন্য মন্দিরে যেতে হয় না, ভগবান নিজেই দর্শন দেওয়ার জন্য আসেন রাজপথে।

প্রতিবছর নিয়ম মেনে জৈষ্ঠ্য মাসের প্রথম পূর্ণিমাতে স্নানযাত্রার আয়োজন করা হয় । এই সময়ে স্নান মণ্ডপে গর্ভগৃহ থেকে জগন্নাথ, সুভদ্রা এবং বলরামকে নিয়ে এসে প্রায় ১০৮ ঘোড়া সুগন্ধি জল দিয়ে স্নান করানো হয়। স্নানের পর খুব সুন্দর ভাবে সাজিয়ে তোলা হয় মূর্তি গুলিকে। প্রচলিত বিশ্বাস অনুযায়ী, যেহেতু ১০৮ ভরা জলে তাঁদেরকে স্নান করানো হয় তাই তাঁরা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাই বিশ্রাম করার জন্য গৃহবন্ধি অবস্থায় থাকেন। এই সময় ভক্তদের ভগবান দর্শনের অনুমতি থাকে না। এছাড়াও একই দিন অন্যান্য দিনের মত রীতি মেনে পুজো করা হয় না। তারপর আষাঢ় মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে রথযাত্রার সময় রথে করে খুব সুন্দর করে সাজিয়ে তাঁদেরকে নিয়ে যাওয়া হয় মাসির বাড়ি অর্থাৎ গুন্ডিচার মন্দিরে। তারপর সাতদিন পর আবার সমস্ত নিয়ম মেনে তাঁরা মাসির বাড়ি থেকে উল্টো রথে আসেন মন্দিরে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories