Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Bogtui Case: ‘সময় এলে নাম বলব’, বগটুইয়ের ঘটনায় যোগ অস্বীকার আনারুল হোসেনের

।। প্রথম কলকাতা।।

বগটুইইকাণ্ডকে ঘিরে একসময় তোলপাড় হয়েছিল রাজ্য। বড়শাল গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান ভাদু শেখের খুনের ঘটনার প্রতিশোধ নিতেই একই পরিবারের সদস্যদেরকে ঘরে বন্ধ করে জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল। গ্রামে ঢুকতে দেওয়া হয়নি কোনো পুলিশ। এই ঘটনার তদন্তভার গ্রহণ করেছে সিবিআই আধিকারিকরা । তাঁরা তদন্তের পর যে চার্জশিট আদালতে জমা দেয় সেখানে নাম উল্লেখ করা হয় এই কাণ্ডের অন্যতম মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেন সহ আরও ১৩ জনের। তবে আনারুল হোসেন স্পষ্ট এই ঘটনায় নিজের যোগ স্বীকার করলেন বরং তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে এমনটাই দাবি করলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার রামপুরহাটের বগটুই গণহত্যাকাণ্ডের মূল অভিযুক্ত আনারুল হোসেন সহ ১৩ জনকে রামপুরহাট মহকুমা সংশোধনাগার থেকে সিউড়ি জেলা সংশোধনাগরের স্থানান্তরিত করা হয়। আর তখনই তিনি সাংবাদিকদের সামনে নিজেকে নির্দোষ দাবি করেন তিনি বলেন, এই ঘটনার সঙ্গে তিনি কোনোভাবেই যুক্ত নন । ঘটনাস্থল থেকে তাঁর বাড়ি প্রায় পাঁচ কিলোমিটার দূরে এবং তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করা হয়েছে। তাকে ফাঁসানো হয়েছে নিজেদের বাঁচানোর জন্য। তবে এই ঘটনায় জড়িত সকলের নামই তিনি বলবেন কিন্তু তা সময়ের অপেক্ষা।

এর আগেও তিনি বেশ কয়েকবার জানিয়েছিলেন যে, এই ঘটনায় তাকে সম্পূর্ণ পরিকল্পনা করে ফাঁসানো হয়েছে। আর আবারও একই দাবি আনারুলের। চলতি বছরের ২১ শে মার্চ রামপুরহাটের তৃণমূল নেতা ভাদু শেখকে খুন করা হয় । ঘটনার দিন তিনি বাড়ির বাইরে ছিলেন। সেই সময় তাকে লক্ষ্য করে বোমা মারে বেশ কিছু দুষ্কৃতী। মৃত্যু হয় তাঁর । সেদিন রাতেই ভাদু শেখের খুনের প্রতিশোধে বগটুই গ্রামে একের পর এক বাড়িতে জ্বলে আগুন। পুড়িয়ে মারা হয় একই পরিবারের সদস্যদের। ওই নারকীয় ঘটনায় রীতিমত শিউরে উঠেছিল গোটা রাজ্য। আর তারপরেই তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে গ্রেফতার করা হয় তৃণমূল নেতা আনারুল হোসেনকে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories