Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

‘মমতা কদিন হাওয়াই চটি পরে ঘুরতে পারেন দেখুন, পামসু পরে ঘুরতে হবে’, কেন একথা বললেন কৌস্তুভ?

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মা সারদার সঙ্গে তুলনা করেছেন তৃণমূল বিধায়ক তথা চিকিৎসক নির্মল মাজি (Nirmal Majhi)। তিনি দাবি করেছেন, মা সারদা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রূপে জন্মগ্রহণ করেছেন। নির্মল মাজির এই বক্তব্য সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়েছে। যাকে ঘিরে ঝড় উঠেছে বঙ্গ রাজনীতিতে। এবার এ বিষয়ে বিশিষ্ট আইনজীবী কৌস্তুভ বাগচীর সঙ্গে কথা বললেন প্রথম কলকাতার প্রতিনিধি মৃত্যুঞ্জয় দাস।

সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল হওয়া এক ভিডিওতে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে মা সারদার সঙ্গে তুলনা করে নির্মল মাজিকে বলতে শোনা গেছে, “মা সারদার মৃত্যুর কিছুদিন আগে বিবেকানন্দের সতীর্থ সন্ন্যাসীদের বলেছিলেন আমি কালীঘাট মন্দিরে যাই। তিনি বলেছিলেন মৃত্যুর পর আমি একদিন কালীঘাটের কালী ক্ষেত্রে মানুষ রূপে জন্ম নেব। ত্যাগ, তিতিক্ষা, রাজনৈতিক সামাজিক, কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িয়ে যাব।”

মমতা বন্দোপাধ্যায়কে মা সারদার সঙ্গে তুলনা প্রসঙ্গে আইনজীবী কৌস্তুভ বাগচী জানান, ” গোটা নেশাড়ু সমাজ খুঁজছে নির্মল মাজিকে, কোন নেশা করলে এই কথা বলা যায়। গোটা নেশাড়ু সমাজ খুঁজে বেড়াচ্ছে। এই সমস্ত লোকদের বেশি কিছু নেই। কেউ তাকে কোনদিন গলায় স্টেথোস্কোপ পরতে দেখেননি। আজ পর্যন্ত একটা লোক খুঁজে পাওয়া যায়নি, যে তাঁর ওষুধ খেয়ে সুস্থ হয়েছেন। এই ধরনের মানুষকে রাজনৈতিক ভাবে বেঁচে থাকতে গেলে তো তেলের বাটি নিয়ে সবসময় ঘুরতেই হবে। সেটাই তিনি করছেন। তাই এই ধরনের কথাবার্তা। চটিচাটার ব্যাপার এখন নেই, এখন চটি কামড়াকামড়ির ব্যাপার চলছে।”

তাঁর কটাক্ষ, “মমতা ব্যানার্জি আর কদিন হাওয়াই চটি পড়ে ঘুরতে পারেন দেখুন? তাঁকে পামসু পরে ঘুরতে হবে। তাবেদারী কোন পর্যায়ে চলে গেছে? এগুলো হাস্যস্পদ কথা, কোন মানে হয় না। যখন বলছেন তখন তাঁর মানসিক অবস্থা ঠিক ছিল কিনা? এই লোকেদের তাবেদারী করা ছাড়া অন্য কোন অস্তিত্ব থাকে না। তাঁরাই এই ধরনের কাজ করছে। এদের আর কিছু করার নেই। তৈলমর্দন কোন জায়গাই হবে না তাই করে যাচ্ছে।”

আইনজীবী কৌস্তুভ বাগচী জানান, ” ধর্মীয় বিষয়কে রাজনীতির সঙ্গে গুলিয়ে ফেললে কি ভয়ানক একটা বিষয় হয়, সেটা ভারতবর্ষে এখন দেখা যাচ্ছে। আখলাকের মৃত্যুতে আমরা যতই শোকস্তব্ধ ছিলাম, কানহাইয়ালালের মৃত্যুতেও আমরা শোকস্তব্ধ। রাজস্থান পুলিশ চেষ্টা করছে যাতে সঠিক বিচার পায় ক্ষতিগ্রস্তর পরিবার।”

একুশে জুলাই শহীদ দিবসকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন জেহাদ দিবস। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, “এই ধরনের অবিবেচক মন্তব্য একজন মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে কোনদিন জ্যোতি বসু, বিধান রায় বলেন নি। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করেননি। পশ্চিমবঙ্গে দুর্গাপুজো, কালীপুজো তো আগেও হয়েছে। এই ধরনের কথাবার্তা বলে যারা বিদ্বেষের রাজনীতি করতে চায়, তাদের উস্কানি দেওয়া, তাদের সুবিধা করে দেওয়া হচ্ছে।”

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories