Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Birbhum: নিরাপত্তার চাদরে ঢাকল সিউড়ি, চালু হল সেন্ট্রালাইজড সার্ভিলেন্স অ্যান্ড মনিটরিং সিস্টেম

1 min read

।। প্রথম কলকাতা।।

সিউড়ি শহরের নিরাপত্তা নিয়ে যথেষ্ট সচেতন বীরভূম জেলা পুলিশ। যার কারণে আগেই এই শহরের চারিদিক সিসিটিভি ক্যামেরায় ঢেকে ফেলা হয়েছে। আর এবার শহরের নিরাপত্তাকে সামনে রেখে আরও উন্নত ব্যবস্থা গ্রহণ করল বীরভূম জেলা পুলিশ। শহরে চালু হল সেন্ট্রালাইজড সার্ভিলেস অ্যান্ড মনিটরিং সিস্টেম। যার মাধ্যমে নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে আরও কড়া করা যাবে এবং নজরদারি থাকবে আরও ভালোভাবে। পাশাপাশি শহরের যেকোন রকম পরিস্থিতিতে তৎক্ষণাৎ পদক্ষেপ গ্রহণ করার মতন ব্যবস্থাপনা চালু করা হয়েছে। অর্থাৎ এককথায় এবার সিউড়িবাসীর জন্য নিরাপত্তাকে বহুগুন বাড়িয়ে দিয়েছে জেলা পুলিশ।

তবে কী এই সেন্ট্রালাইজড সার্ভিলেন্স অ্যান্ড মনিটরিং সিস্টেম? বীরভূম জেলার পুলিশ সুপার নগেন্দ্র ত্রিপাঠী জানান, বর্তমানে শহরে ১৩৬ টি সিসিটিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে। সেই সিসিটিভি ক্যামেরা গুলি শহরের অলিতে গলিতে রয়েছে। যার মাধ্যমে এক প্রকারে গোটা শহরের উপরে নজরদারি রাখা যাবে । আর এই সমস্ত সিসিটিভি ক্যামেরার মনিটর থাকবে সিউড়ি থানায়। সেখান থেকে এই পুরো শহরকে কন্ট্রোল করার মতো ব্যবস্থা তৈরি করেছে জেলার পুলিশ প্রশাসন। এর মাধ্যমে ২৪ ঘন্টায় কোথায় কী হচ্ছে তার উপরে পুলিশের সম্পূর্ণ নজরদারি থাকবে।

এছাড়াও সিসিটিভি ক্যামেরার পাশাপাশি যে সাউন্ড সিস্টেমগুলি লাগানো হয়েছে শহরের বিভিন্ন জায়গায় তার মাধ্যমে উৎসবের দিন কিংবা বিশেষ কোন দিনে পথ চলতি মানুষকে বিনোদন করার মতন সুযোগও থাকছে । কারণ ওই সাউন্ড সিস্টেমের মাধ্যমে সেই বিশেষ দিন কিংবা উৎসব সংক্রান্ত গান বাজানো হবে বলে জানা গিয়েছে পুলিশ সূত্রে। ট্রাফিক আইনের ক্ষেত্রেও এই সিস্টেম বেশ গুরুত্বপূর্ণ । শহরকে এবার অনেকটাই জ্যাম মুক্ত করা যাবে বলে আশাবাদী তাঁরা। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন জায়গায় চুরি-ছিনতাইয়ের মত যে ঘটনাগুলি ঘটছিল সেইগুলি এবার কমবে বলে মনে করছেন তা্রা।

শুধু তাই নয় শহরে দুটি এমন ক্যামেরা ব্যবহার করা হয়েছে, যা ৩৬০ ডিগ্রী অ্যাঙ্গেলে ঘুরবে অর্থাৎ প্রায় একটি ক্যামেরার মাধ্যমে ওই এলাকার সমস্ত দিক কভার করা যাবে। এর সাহায্যে কোন গাড়ি বা বাইক যদি ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন করে তাহলে তা খুব সহজেই ধরা পড়ে যাবে । গাড়ির নম্বর সনাক্ত করা সহজ হবে, কোন অপরাধ সংঘটিত হলে সম্পূর্ণ বিষয়টি আরও একবার খতিয়ে নেওয়া সহজ হবে। অর্থাৎ এক কথায় এই সেন্ট্রালাইজড সার্ভিলেন্স অ্যান্ড মনিটরিং সিস্টেমের মাধ্যমে শহরের মানুষের নিরাপত্তাকে আরও বেশ কয়েক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে । বলাই যায় যে পুলিশের চোখকে ফাঁকি দেওয়া বেশ কষ্টকর হয়ে উঠবে এবার।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories