Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

ভয়ঙ্কর মৃত্যু ! টবে প্রস্রাব, রাগের জ্বালায় ছেলেকে কুড়ুল দিয়ে কাটলেন বাবা

।। প্রথম কলকাতা ।।

খুন কিংবা নানান ধরনের অপরাধমূলক ঘটনা প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু সম্প্রতি গুজরাটের এই ঘটনা শোনা মাত্রই অনেকেই আঁতকে উঠেছেন । বাবা নিজের ঘুমন্ত ছেলেকে কুড়ুল দিয়ে কুপিয়ে রীতিমত কয়েক টুকরো করে কেটে ফেললেন। এখানে ছেলেটির দোষ আদৌ কতটা ,সেই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত প্রমাণ পাওয়া যায়নি । তবে বাবার মনে সন্দেহের বীজ বুনতে শুরু করেছিল অনেকদিন আগেই। তিনি মনে করেছিলেন তার ছেলে তার পকেট থেকে টাকা চুরি করে, পাশাপাশি টবে প্রস্রাব করে। সন্তানদের সব ভুলের ক্ষমা একমাত্র বাবা মায়ের কাছেই রয়েছে। সেক্ষেত্রে একজন বাবা হয়ে কীভাবে এমন ঘৃণ্য কাজ করলেন তা সত্যিই ভাববার বিষয়।

গুজরাটের নভসারি থেকে এই হৃদয় বিদারক ঘটনা সামনে এসেছে। এখানে একজন বাবা তার ১৯ বছর বয়সী ছেলেকে কুড়ুল দিয়ে হত্যা করেছেন। ওই ব্যক্তির সন্দেহ হয়েছে যে তার ছেলে তার পকেট থেকে টাকা চুরি করেছে। এছাড়াও তিনি পুলিশের কাছে বয়ানে আরও বলেন, ছেলে টবে প্রস্রাব করেছিল যার কারণে তিনি অত্যন্ত রেগে যান।

মৃতের মা চঞ্চলবেন প্যাটেল নভসারি জেলার খেরগাম থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। তার অভিযোগে অনুযায়ী, সকাল ৬টার দিকে তিনি রান্নাঘরে রান্না করছিলেন। সেই সময় তার স্বামী জেগে থাকলেও তিনি বিছানায় শুয়ে ছিলেন। তাদের ১৯ বছর বয়সী ছেলে সাহিল ঘুমাচ্ছিলেন। তখন তিনি ঘর থেকে বিকট চিৎকার শুনতে পান। দৌড়ে গিয়ে দেখেন তার ছেলে শরীর রক্তে ভেসে গিয়েছে। তার স্বামীর হাতে কুড়ুল এবং সেই কুড়ুল দিয়ে তিনি তার ছেলের গলায় রীতিমত দুই থেকে তিনবার আঘাত করেছেন। পাশাপাশি তিনি জানান, ছেলেকে হত্যার পর তার স্বামী মেঝেতে চুপ করে বসেছিলেন। কোন প্রশ্নের উত্তর দেননি। অবশেষে ওই মহিলা দৌড়ে বাইরে এসে অন্যান্য ব্যক্তিদের সাহায্য চান। দ্রুত অ্যাম্বুলেন্স নিয়ে আসা হলেও চিকিৎসকরা সাহিলকে মৃত ঘোষণা করেন। তারপর বিষয়টি পুলিশের কাছে পৌঁছায়।আপাতত ঘটনাটির তদন্ত চলছে এবং সাহিলের দেহ পোস্টমর্টেম করতে পাঠানো হয়েছে । সাহিল দশম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন এবং তার বাবা দিনমজুরের কাজ করতেন।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories