Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Dilip ghosh: “মিথ্যা বলে সত্যকে চাপা দেওয়ার প্রয়াস”, ফের মমতা সরকারকে বিঁধলেন দিলীপ

।। প্রথম কলকাতা।।

রাজ্যের বিভিন্ন ক্ষেত্র থেকে একাধিক অভিযোগ উঠে আসছে যে চাকরিপ্রার্থীদের নিয়োগ নেই, নিয়োগ হলেও সে ক্ষেত্রে দুর্নীতি, সাধারণ মানুষকে বঞ্চিত করে শাসক দলের কর্মীদের স্বজনপোষণ । এরই মধ্যে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর সভা মঞ্চ থেকে জানান যে, বিজেপি রাজ্য মিথ্যাচার চালাচ্ছে । বাংলার মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে । কাজেই ফের একবার শাসকদলের বিরুদ্ধে সরব হলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি তথা সাংসদ দিলীপ ঘোষ। তাঁর কথায়, তৃণমূলের বহু নেতাকর্মী বিভিন্ন জায়গায় চাকরিপ্রার্থী যুবক যুবতীদের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা নিয়েছেন চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে। বর্তমানে প্রকাশ্যে এসেছে একাধিক ভিডিও , যেখানে কোষ চাকরি প্রার্থী তৃণমূল নেতার পা জড়িয়ে ধরছে আবার কোথাও তৃণমূল নেতৃত্ব আশ্বাস দিচ্ছেন ঠিক চাকরি পাইয়ে দেবেন তিনি।

এই ঘটনাগুলি যেহেতু প্রকাশ্যে এসে গিয়েছে তাই লোকে যাতে তা বিশ্বাস না করে তার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে চলেছেন তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব । তবে দিলীপ ঘোষের দাবি , রাজ্যবাসী সবকিছুই নিজের চোখে দেখছে। এই রকম হাজার হাজার মানুষকে প্রতারণা করা হয়েছে। কাজেই মিথ্যে কথা বলা অভ্যাসে পরিণত হয়েছে তৃণমূলের । তবে এইভাবে মিথ্যে কথা দিয়ে সত্যকে চাপা দেওয়ার প্রয়াস একেবারেই ঠিক নয়। অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর কথায় কেন্দ্র সরকার চাকরি দেওয়ার ক্ষেত্রে ৪০% পিছিয়ে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের থেকে বরং পশ্চিমবঙ্গ সরকার এগিয়ে রয়েছে ৪০ শতাংশ।

এই প্রসঙ্গেও পাল্টা জবাব দিতে শোনা যায় দিলীপ ঘোষকে। তিনি বলেন, ” আমি জানি না এই তথ্য উনি কোথা থেকে পাচ্ছেন , কোন ওয়েবসাইটে? কোন দপ্তরে কতজন চাকরি পেয়েছে তার কোন হিসাব নেই। আর হিসাব তিনি দিতেও পারবেন না। যাও দু চারজন চাকরি পেয়েছেন টাকা দিয়ে পেয়েছেন । কোন পরীক্ষার লিস্টে তাদের নাম নেই। চাকরির ম্যাসেজ এসে গিয়েছে বাড়িতে। ৪৫ বছর বয়সেও সরকারি চাকরিতে জয়েন করেছেন, এইরকম খবরও আছে আমাদের কাছে “। পাশাপাশি কেন্দ্র সরকার কাজের বিভিন্ন সুযোগ সাধারণ মানুষকে করে দিয়েছে বলে দাবি করলেন তিনি।

নির্মল মাঝি, যিনি তৃণমূলের বিধায়ক পদে রয়েছেন তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রানী রাসমনির অন্যরুপ বলে উল্লেখ করেন। তিনি জানান, রানী রাসমণিই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রূপে জন্মগ্রহণ করেছেন। আর তাঁর এই মন্তব্যকে ঘিরে বর্তমানে বেশ সমালোচনা শুরু হয়েছে, সেই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষ বলেন, “এই ভাবেই তৃণমূলের নেতারা নিজেদের পদ আটকে রেখেছেন। কেউ রানী রাসমণি বলছেন কেউ দুর্গা বলছেন ,ওনার নাম ছবি রেখে লুট করা হচ্ছে, পশ্চিমবঙ্গে লুটের রাজত্ব চলছে।” একই সঙ্গে তিনি বলেন, “সবকিছুরই সীমা থাকা প্রয়োজন। এত নিচে নামা উচিত নয় সে বিধায়ক হোক সাংসদ হোক কিংবা দলের কোনো কর্মী হোক না কেন। মহান ব্যক্তিত্বদের ছোট করার অধিকার তাদের কেউ দেয় নি”।

এছাড়াও রাজ্যে চাকরির নিয়োগের ক্ষেত্রে যে দুর্নীতি চলছে সেই প্রসঙ্গে বেশ কিছু মন্তব্য করেন দিলীপ ঘোষ। গতকাল মুখ্যমন্ত্রী জানার যে ১৭ হাজার চাকরি প্রস্তুত রয়েছে কিন্তু আদালতের জন্য তিনি চাকরি দিতে পারছেন না ।এখন চাকরি দিতে পারছেন না তবে এর আগে যে ১৭ হাজার চাকরি দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে কতজন পরীক্ষায় পাশ করে চাকরি পেয়েছেন তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। তাঁর দাবি, রাজ্যের সব জায়গাতেই দুর্নীতি চলছে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories