Prothom Kolkata

Popular Bangla News Website

Bankura: কোন দলের কর্মী ছিলেন সহদেব? দেহ উদ্ধারকে ঘিরে BJP-TMC তর্জা কোতুলপুরে

।। প্রথম কলকাতা।।

এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে বর্তমানে রাজনৈতিক তর্জা শুরু হয়েছে বাঁকুড়ার কোতুলপুরে। তিনি তৃণমূলের কর্মী ছিলেন নাকি বিজেপি সমর্থক ছিলেন তা নিয়ে এখনও পর্যন্ত রয়েছে প্রশ্ন কারণ তাঁর মৃতদেহ উদ্ধারের পর থেকেই দলীয় কর্মী খুনের প্রতিবাদে পথে নেমেছিল বিজেপি । অন্যদিকে তৃণমূলের দাবি ওই মৃত ব্যক্তি আগাগোড়াই শাসক দলের সমর্থক ছিলেন। যদিও নিহত ওই ব্যক্তির ময়নাতদন্তে খুনের কোন প্রমাণ মেলেনি, এমনটাই দাবি পুলিশের।বর্তমানে এই মৃতদেহ উদ্ধারকে ঘিরে বিজেপি এবং তৃণমূল মধ্যে বিবাদ চরমে।

গতকাল কোতুলপুরে সহদেব খাঁ নামে এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায় তাঁর দেহ । আর এই ঘটনা প্রকাশ্যে আসার পরেই গতকাল বিজেপির তরফ থেকে দাবি করা হয়েছিল যে নিহত সহদেব ১০৪ নম্বর বুথের কর্মী ছিলেন। নির্বাচনের পর বহুদিন ঘরছাড়া ছিলেন তিনি। সম্প্রতি গ্রামে ফিরে এসেছিলেন । আর তারপরেই খুন করা হয়েছে তাকে। যার প্রতিবাদে গতকাল বাঁকুড়ার জাতীয় সড়ক অবরোধ করা হয় বিজেপির তরফ থেকে। এমনকি বিষ্ণুপুরে মোমবাতি মিছিল পর্যন্ত করা হয়। তবে আজ তৃণমূলের তরফ থেকে বিজেপির এই দাবি পুরোপুরি নস্যাৎ করে দেওয়া হয়েছে।

কারণ স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব সহ অন্যান্য দলীয় সদস্যদের দাবি নিহত সহদেব তাদের দলের কর্মী ছিলেন দীর্ঘদিন ধরে । তবে এই ঘটনা কোনভাবেই খুনের সঙ্গে জড়িত নয় । এমনটাই দাবি পুলিশের। গতকালও প্রাথমিক তদন্তের পর পুলিশের মনে হয়েছিল গলায় ফাঁস লাগানো কারণেই মৃত্যু হয়েছে তাঁর। এরপর আজ ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে এসে পৌঁছায় পুলিশের । আর সেখানে এই ঘটনাটিকে খুন হিসেবে ধরে নেওয়ার মতো কোন তথ্য প্রমাণ মেলেনি। বরং স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে যে সহদেবের মৃত্যু আত্মহত্যা। সূত্রের খবর অনুযায়ী, আজ সহদেব খাঁর বাড়িতে আসার কথা ছিল বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁয়ের। তবে শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এখনও পর্যন্ত তাঁর বাড়িতে এসে উপস্থিত হন নি তিনি। কাজেই শাসকদলের তরফ থেকে অভিযোগ উঠছে, এই আত্মহত্যার ঘটনাটিকে খুন বলে চালানোর চেষ্টা করেছিল বিজেপি । তবে ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসার পরে সেই প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

খবরে থাকুন, ফলো করুন আমাদের সোশ্যাল মিডিয়ায়

সব খবর সবার আগে, আমরা খবরে প্রথম

Categories